September 22, 2018

দিনাজপুরে মেছো বাঘের আক্রমনে ২৩ জন আহত, আতংকে কয়েক গ্রামের মানুষ

দিনাজপুরে

স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর- দিনাজপুরের দক্ষিণ কোতয়ালীর কয়েকটি গ্রামের মানুষ বাঘ আতংকে ভুগছে। ইতিমধ্যে ওই প্রাণীর আক্রমনে ২৩ জন আহত হয়েছে। এলাকাবাসী ছাড়াও পুলিশ এবং বন বিভাগের লোকজন বাঘ ধরার অভিযান অব্যাহত রেখেছে। পাহারা বসানো হয়েছে। এনিয়ে বেশ চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।
করিমুল্ল্যাপুর, তরিমপুর, চাউলিয়াপাড়া, সৈয়দপুর, পানুয়াপাড়া, লালপুকুর, হরিহরপুর ও কাওয়াপাড়া সহ দক্ষিণ কোতয়ালী’র বেশ হয়েকটি গ্রামে এখন চলছে বাঘ আতংক। ইতিমধ্যে ওই প্রাণীর আক্রমনে গবাদিপাশু ছাড়াও ২৩ জন আক্রমনের শিকার হয়েছে। আহতের এখন ভ্যাকনিসহ চিকিৎসা অব্যাহত রয়েছে।
দিন-দুপুরে হঠাৎ আমন ধানের ক্ষেত থেকে বেরিয়ে মানুষের উপর আক্রমন করছে কিছু প্রাণী। ওই প্রাণীকে মেছো বাঘ কেফবা বাঘ ডাস বলছে। আক্রমণের শিকার মো. করিম উদ্দিনের স্ত্রী আকতারা বেগম (৫০), সজল হক’র স্ত্রী শহর বানু (৩০), মো. জাহাঙ্গীরের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (৪৫), মকসেদুল ইসলামের স্ত্রী আহেচেনা (২৮), আজগর আলীর স্ত্রী রাবেয়া বেগমসহ (৬০) অন্যান্যরা জানায়, শেয়ালের মতো দেখতে খয়রি ধুসর ওই প্রানী’র মুখে বাঘের মতো ডোরাকাটা দাগ রয়েছে।

আউলিয়াপুর ইউপি’র ১ নং ওয়ার্ডের সদস্য ইলিয়াস হোনেন এবং ২ নং ওয়ার্ডের সদস্য গুলজার হোসেন জানান, নভেম্বরের ২ তারিখ থেকে এই আক্রমন শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে ওই প্রাণীর আক্রমনে গবাদিপাশু ছাড়াও ২৩ জন নারী-পুরুষ আক্রমনের শিকার হয়েছে। আক্রমণের স্থান ধান ক্ষেতে ওই প্রাণী’র পায়ের ছাপও রয়েছে।

দিনাজপুর সামাজিক বনবিভাগের কর্মকর্তা আব্দুস সালাম তুহিন জানান, নিরীহ গ্রামবাসী’র উপর আক্রোমণকারী ওই বাঘ ধরতে অভিযান চলছে। এ অভিযানে অংশ নিয়েছে পুলিশ, বন বিভাগের লোকজনসহ স্থানীয় জনতা। বাঘ ধরাও ফাঁদ পাতা হয়েছে। গ্রাম-বাসীরাও লাঠি-সোটা নিয়ে প্রস্তুত রয়েছে।

দিনাজপুর পুলহাট পুলিশ ফাঁড়ি’র ইনচার্জ পুলিশের উপ-পরিদর্শক বিদ্যুৎ কুমার জানান, আমরা এ ঘটনা জানার পর এলাকায় এসেছি। লোকজনকে সাহস দিচ্ছি ভয় না পাওয়ার জন্য। ওই প্রাণীটি ধরতে আমরাও অভিযান অব্যাহত রেখেছি।

Related posts