November 20, 2018

দিনাজপুরে দেশের সর্ববৃহৎ ঈদ জামাতের আয়োজন

Captureঢাকা::

দিনাজপুর জেলার ঐতিহাসিক গোর-এ শহীদ বড়ময়দানে দেশের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাতের আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়াও দৃষ্টিনন্দন ও সৌন্দর্য মন্ডিত করে গড়ে তোলা হয়েছে এ ঈদগাহ মাঠটি।

দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম জানান, শহরের গোর-এ শহীদ বড়ময়দানে নির্মিত ঈদগাহমাঠে এক সাথে ৫ লাখ মুসল্লী নামাজ আদায় করতে পারবেন। ইরাকের মসজিদে নমমী, কুয়েত, ভারত ও ইন্দোনেশিয়াসহ বিভিন্ন দেশের স্থাপনার আদলে এ ঈদগাহ ময়দান সাজানো হয়েছে। ইতোমধ্যে ঈদ-উল ফিতরের নামাজ আদায়ের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। এ ঈদগাহ মাঠ হবে বাংলাদেশের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী বৃহৎ ঈদগাহ মাঠ। জাতীয় সংসদের হুইপ এম ইকবালুর রহিম এমপি’র পরিকল্পনায় ও দিনাজপুর জেলা পরিষদের অর্থায়নে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এ ঈদগাহ মাঠের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করেছে।

দিনাজপুর জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ রানা জানান, এ ঈদগাহ মাঠটি দেশের ঐতিহ্যবাহী ঈদগাহ মাঠ হিসেবে স্থাপন করতে হুইপ এম ইকবালুর রহিম এমপির ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় নির্মাণ কাজ শুরু হয়। তিনি নিজে ইরাক, মিশর ও আরব আমিরাতের বিভিন্ন স্থানের ঈদগাহ মাঠের স্থাপনা সংগ্রহ করে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরকে পরিকল্পনা করার জন্য নির্দেশ দেন। তার নির্দেশেই ঈদগাহ মাঠটি নান্দনিক সৌন্দর্যকে গুরুত্ব দিয়ে তারা নির্মাণ কাজ শুরু করে। ঈদগাহ মাঠের মিনারের প্রথম গম্বুজ অর্থাৎ মেহেরাব (যেখানে ইমাম দাঁড়াবেন) তার উচ্চতা ৪৭ ফিট। এর সাথে রয়েছে আরো ৪৯টি গম্বুজ। এছাড়া ৫১৬ ফিট লম্বায় ৩২টি আর্চ নির্মাণ করা হয়েছে। পুরো মিনার সিরামিক্স দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে। দৃষ্টিনন্দন ঈদগাহ মিনারে রয়েছে ৫২টি গম্বুজ। প্রধান গম্বুজের সামনে রয়েছে মেহেরাব। ঈদগাহ মাঠের দু’দিকে থাকছে ওজুর ব্যবস্থা। প্রতিটি গম্বুজ ও মিনারে রয়েছে বৈদ্যুতিক লাইটিং। রাত হলে ঈদগাহ মিনার আলোকিত হয়ে উঠে। ঈদগাহ মাঠে যাতে বৃষ্টির পানি জমে না থাকে তার জন্য বালু ভরাট করে নামাজের উপযোগী করা হয়েছে।

দিনাজপুর জেলা পরিষদের সহকারী প্রকৌশলী জাকিউল আলম জানান, ঈদগাহ মাঠটি নির্মাণে ইতোমধ্যে ২ কোটি ৬৭ লক্ষ টাকা ব্যয় করা হয়েছে। এছাড়াও ত্রাণ ও পুনর্বাসন অধিদপ্তরের ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে ঈদগাহ মাঠে বালু ভরাটের কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে আরো অর্থ বরাদ্দের প্রয়োজন রয়েছে। ঈদ-উল ফিতরের পরে আনুষঙ্গিক কাজ সম্পন্ন করে নান্দনিক ঈদগাহ মাঠ হিসেবে সারাদেশে পরিচিতি লাভে উন্মুক্ত করে দেয়া হবে।

জাতীয় সংসদের হুইপ এম ইকবালুর রহিম এমপি জানান, এশিয়া মহাদেশের মধ্যে সর্ববৃহৎ এ মাঠে প্রায় ৫ লাখ মুসল্লী ঈদের নামাজ আদায় করবেন। বিশ্বের বিভিন্ন ইসলামিক দেশ থেকে মিনার ও ঈদগাহ মাঠ দেখার জন্য মুসল্লিরা দিনাজপুরে আসছেন। আসন্ন ঈদ-উল-ফিতরকে কেন্দ্র করে টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া পর্যন্ত মুসল্লিদের আসার জন্য তিনি আহ্বান জানান। এ ঈদগাহ মাঠ হবে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী ঈদগাহ মাঠ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ঈদগাহ মাঠের মিনার নির্মাণ সম্পর্কে অবগত রয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে মিনারের কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।

এদিকে দিনাজপুরের এই ঈদগাহ মাঠে লাখো মুসল্লির আগমন হবে এ প্রস্তুতিতে শহরের আবাসিক হোটেল ও রেস্টুরেন্টগুলো সংস্কার ও রং করা হয়েছে। এই ঈদগাহ মিনারকে ঘিরে দিনাজপুরের মুসল্লীদের মধ্যে আনন্দ ও উৎসাহ দুই-ই শুরু হয়ে গেছে।

Related posts