November 14, 2018

দলীয় প্রার্থীদের কাছে ইলিয়াসপত্নী লুনা এখন সোনার হরিণ!

39307মোঃ আবুল কাশেম, বিশ্বনাথ প্রতিনিধি :: সারা দেশে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ছয় ধাপে অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যে দেশের কয়েকটি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের দিন-তারিখ ঘোষনা করেছে নির্বাচন কমিশন। এই প্রথম বারের মতো দলীয় প্রতিকে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে দলীয় মনোনয়ন পেতে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা দৌড়ঝাপ শুরু করেছেন। কিন্তু সিলেটের বিশ্বনাথে এখনও নির্বাচনের তারিখ ঘোষনা হয়নি। তারপরও থেমে নেই আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনা। দলীয় মনোনয়ন পেতে প্রার্থীরা দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন। প্রবাসী অধ্যুষিত এলাকায় হওয়ায় আসন্ন ইউপি নির্বাচনে অংশ নিতে প্রবাসী চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য দেশে আসতে শুরু করেছেন।

সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে বইছে ইউনিয়ন নির্বাচনী হাওয়া। তার মধ্যে একযুগ ধরে উপজেলার দশঘর ইউনিয়নের সীমানা নির্ধারণ ঝটিলতায় এ ইউনিয়নের নির্বাচন রয়েছে অনিশ্চয়তায়। তবে সময়মত নির্বাচন দেয়ার জন্য সরকারের নিকট ওই ইউনিয়নের জনগন জোর দাবি করেছেন। সরকার এই প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতিকে স্থানীয় নির্বাচন ঘোষনা করায় দলীয় নেতাকর্মীদের বেশ আগ্রহ বেড়েছে। এতে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও জামায়াতের এ পর্যন্ত প্রায় অর্ধশতাধিক প্রার্থীরা মাঠে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার পাশাপাশি অনেক প্রবাসী নেতারাও দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করতে দেশে এসেছেন। দলীয় প্রতিকে স্থানীয় নির্বাচন হওয়ায় এসকল প্রার্থীরা উপজেলা ও জেলার সিনিয়র নেতাদের কাছে জোর লবিং শুরু করেছেন। তাদের জন্য দলীয় মনোনয়ন লাভই যেন প্রথম চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়িয়েছে। এমন বড় চ্যালেঞ্জে মনোনয়ন পেতেই বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের কাছে নিখোঁজ ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদি লুনা যেন এখন সোনার হরিণের মতো! সর্বশেষ কার কপালে দলীয় প্রতিক ধানের শীষের মনোনয়ন রয়েছে তাহা এখনই বলা সম্ভব হচ্ছেনা। ধানের শীষের প্রতিক পেতে প্রতিদিন ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীরা ইলিয়াসপত্নী তাহসিনা রুশদি লুনার সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন। কেউ কেউ আবার লুনার ঢাকাস্থ বাসভবনে গিয়ে প্রার্থীরা হওয়ার ঘোষনা দিয়ে আসছেন। এবারের নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রবাসী প্রার্থীরাও সুদূর প্রবাস থেকে তাহসিনা রুশদি লুনার সঙ্গে ফোনে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রাখছেন। ইলয়াসপত্নীর আর্শিবাদ পেলেই প্রার্থী হওয়া যাবে এমন মনোভাব নিয়ে কাজ করছেন প্রার্থীরা।

জানাগেছে, উপজেলার আটটি ইউনিয়নে বিএনপির প্রায় বেশ কয়েকজন চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেন। তারা সবাই ধানের শীষের প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করতে আগ্রহী। তবে দলীয় মনোনয়ন পেলে অনেকেই নির্বাচন করবেন। আসন্ন ইউপি নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীদের মধ্যে সমাঝোতা না হলে ভোট গ্রহন হবে বলে দলীয় সূত্রে জানাগেছে। এমন নিদের্শনা কেন্দ্রে থেকে রয়েছে বলে বিএনপির একাধিক নেতা জানান।

এব্যাপারে ইলিয়াসপত্নী তাহসিনা রুশদি লুনা বলেন, তৃণমূল নেতাকর্মীর ভিত্তিত্বে এবারের ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী দেয়া হবে। তবে দলীয় প্রার্থীদের মধ্যে সমাঝেতা না হলে প্রতিটি ইউপি সভাপতি,সম্পাদক ও ওয়ার্ড বিএনপির নেতৃবৃন্দের ভোটের মাধ্যমে প্রার্থী নির্বাচিত করা হবে বলে তিনি জানান।

Related posts