November 17, 2018

দক্ষ অভিবাসীর চেয়ে রিফিউজি বেশী নিবে কানাডা

অভিবাসীদের জন্য এক স্বপ্নের জায়গা কানাডা। কিন্তু দক্ষ অভিবাসীদের নেওয়ার বদলে এখন অদক্ষ রিফিউজি নেওয়ার দিকেই তাদের বেশি ঝোঁক।

নতুনদেশডটকমে প্রকাশিত একটি খবরে জানা যায়, ২০১৬ সালে কানাডা নতুন অভিবাসীর যে লক্ষ্যমাত্রা ঘোষণা করেছে তাতে অন্যান্য ক্যাটাগরির অভিবাসীর সংখ্যা কমিয়ে রিফিউজির সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। ফলে আগামীতে করদাতাদের অর্থ ব্যয় করে লিবারেল সরকার অধিকহারে রিফিউজি নিয়ে আসবে বলেই ধারণা সবার।

মঙ্গলবার হাউজ অব কমন্সে পেশ করা বার্ষিক রিপোর্টে বলা হয়েছে, লিবারেল সরকার চলতি বছরে ৫৫ হাজার রিফিউজি নিয়ে আসার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। ইতিমধ্যে ২৫ হাজার সিরিয়ান রিফিউজি আনার প্রক্রিয়ার অংশ বিশেষ বাস্তবায়িত হয়েছে।

ব্যক্তি উদ্যোগে স্পন্সর করে রিফিউজি আনার কোটাও তিনগুণ বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আগে যেখানে ৬ হাজার প্রাইভেট স্পন্সরশীপে আসতো, এখন সেটি বছরে ১৮ হাজার করা হয়েছে।

ইমিগ্রেশন ও সিটিজেনশীপ মন্ত্রনালয়ের তথ্যানুসারে, এই বিপুল সংখ্যক রিফিউজির লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করার ক্ষেত্রে সিরিয়ান রিফিউজিরাই সরকারের অগ্রাধিকার তালিকায় রয়েছে। এর বাইরে কংগো, কলম্বিয়া এবং ইরিত্রিয়া থেকে রিফিউজি নেওয়ার বিষয়টিও বিবেচনায় রয়েছে।

ফ্যামিলি রিইউনিফিকেশন বা পরিবারের পুনঃএকত্রীকরনের কোটায় অভিবাসীর লক্ষ্যমাত্রাও বাড়ানো হয়েছে। ৬৮ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৮০ হাজার করার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ইকোনোমিক ক্যাটাগরিতে ১৮১ হাজার থেকে কমিয়ে এ বছর ১৬২ হাজার ৪০০ নির্ধারণ করা হয়েছে।

কানাডার ইমিগ্রেশন ও সিটিজেনশীপ মন্ত্রী জন ম্যাককালাম বলেছেন, তার মন্ত্রণালয় বর্তমানের ইমিগ্রেশন আবেদনের দীর্ঘসূত্রীতা কমিয়ে আনার জন্য উদ্যোগ নেবে।

Related posts