November 18, 2018

তুলা চাষে লাভবান হচ্ছেন তুলা চাষীরা!

শামসুজ্জোহা পলাশ,
চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ  বাংলাদেশ তুলা উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে চুয়াডাঙ্গার ১৭টি ইউনিটে তুলা চাষ হচ্ছে। তুলা চাষে লাভ জনক হওয়ায় চাষীরা তুলা চাষের দিকে ঝুকছে। সুষ্ঠু বাজারজাতকরণ ব্যবস্থা তৈরী ও হাইব্রিড তুলা বীজের দাম কমলে চাষীরা তুলা চাষে আরো উদ্বুদ্ধ হবে। যা আর্থিক ভাবে দেশের সার্বিক উন্নয়নে ভুমিকা রাখার পাশা পাশি তুলার জন্য পর নির্ভরশীলতা অনেকাংশেই লাঘব হবে। ফলে সাশ্রায় হবে কোটি কোটি টাকার বৈদেশিক মূদ্রা। এখানে সরকারী প্রতিষ্ঠানের পাশা পাশি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানও এগিয়ে এসেছে চাষীদের তুলা চাষে উদ্বুদ্ধ করতে।

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার হোগলডাঙ্গা গ্রামের মরহুম আকবর আলীর ছেলে তুলা চাষী আব্দুল জব্বার জানান, তুলা চাষ লাভ জনক হওয়ায় তিনি গত বারের তুলনায় এবার দেড় বিঘা বেশী জমিতে তুলার আবাদ করেছে। এবার আব্দুল জব্বারের ৩ বিঘা ১৩ শতক জমিতে তুলা চাষে সব মিলিয়ে তার খরচ হয়েছে ৪০ হাজার টাকা। তার জমিতে ৫৩ থেকে ৫৪ মন তুলা উৎপাদন হবে বলে তিনি আশা করছেন। তিনি আরও জানান সরকার নির্ধারিত ২ হাজার ১০০ টাকা মন দরে তুলা বিক্রি করলে তার সমস্ত খরচ বাদ দিয়েও ৭৩ হাজার টাকার উপরে লাভ হবে।

চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া জোনে তুলা চাষীদের নিয়ে কাজ করা বেসরকারী কোম্পানী ইস্পাহানী এগ্রো লিমিটেডের ইউনিট ব্যবস্থাপক কিবরিয়া বলেন, এবারের মৌসুমে চুয়াডাঙ্গায় ৪টি ও কুষ্টিয়ায় ২টি ইউনিটে ৩০০ বিঘা জমির চাষীদের বিনা সুদে ঋন, বিষ, বীজ ও সার দিয়ে তুলা চাষ করিয়েছেন। উৎপাদিত তুলা বিক্রি করতে চাষীদের কারো কাছে ধন্না দিতে হবে না। চাষীদের উৎপাদিত তুলা সরকার নির্ধারিত দামে তারা (ইস্পাহানী এগ্রো লিমিটেড) কিনে নেবে। চুয়াডাঙ্গা জেলার আবহাওয়া তুলা চাষের উপযোগী হওয়ায় ইস্পাহানী এগ্রো লিমিটেড এই এলাকার চাষীদেরকে তুলা চাষে উদ্বুদ্ধ করছে।

চুয়াডাঙ্গার প্রধান তুলা উন্নয়ন কর্মকর্তা খোন্দকার এনামুল কবীর জানান, চলতি মৌসুমে ৪৫০ জন তুলা চাষীকে বিনা মূল্যে সরকারি উপকরণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এবার তুলা চাষ ভাল হয়েছে। এবার চাষীরা প্রতি মন তুলার দাম ১৮০ টাকা বেশী পাচ্ছে। গত মৌসুমে তুলার দাম প্রতি মন ছিলো ১ হাজার ৯২০ টাকা এবার দাম বেড়ে হয়েছে ২ হাজার ১০০ টাকা। সুষ্ঠু বাজারজাতকরণ ব্যবস্থা তৈরী ও হাইব্রিড বীজের দাম কমালে চাষীরা আরো আগ্রহী হয়ে তুলা চাষ করবে বলে তিনি মত প্রকাশ করেন। তিনি আরো জানান, চুয়াডাঙ্গা জোনের আওতায় চুয়াডাঙ্গার ১২টি ও মেহেরপুরের ৫টি নিয়ে মোট ১৭টি ইউনিটের অধীনে চলতি মৌসুমে চাষীরা ৩ হাজার ৯৫০ হেক্টর জমিতে তুলা চাষ করেছে। চলতি মৌসুমে তুলা চাষের লক্ষ মাত্রা ছিলো ৪ হাজার ১০০ হেক্টর।

এবার ১১ হাজার ৮৪০ জন চাষী ২২ হাজার বেল তুলা উৎপাদন করবে বলে আশা করা হচ্ছে। গত মৌসুমে প্রতি মন তুলার দাম ছিলো ১ হাজার ৯২০ টাকা, এবার তা বেড়ে দাড়িয়েছে হয়েছে ২ হাজার ১০০ টাকা।

তুলা চাষে আরো আগ্রহী করে তুলতে তুলা উন্নয়ন বোর্ড থেকে চাষীদের উদ্বুদ্ধকরণ ব্যবস্থা আরো জোরদার করার আহবান জানিয়েছে বেসরকারি তুলা ক্রেতা প্রতিষ্ঠান।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/১৮ মে ২০১৬

Related posts