September 23, 2018

তাহলে কী সবই জয়ার স্ট্যান্টবাজি?

474
পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে তারকারা প্রায়ই নতুন রহস্যের জন্ম দিয়ে থাকেন আলোচনায় আসার জন্য। এ তালিকায় রয়েছেন বিরাট কোহলি-আনুশকা, দীপিকা-রণবীর সিং, ক্যাটরিনা-রণবীর কাপুর। এদের প্রেম নিয়ে প্রায়ই নানা গুঞ্জন উঠে। বিশেষ করে এ সকল অভিনয়শিল্পীর সিনেমা মুক্তির আগে এ ধরনের স্ট্যান্ট বাজির মাধ্যমে সস্তা প্রচারণা চালিয়ে থাকেন।

সম্প্রতি বাংলাদেশেও এ ধরনের সস্তা প্রচারণার ছোঁয়া লেগেছে। জাজ-মাহির পর এবার দুইবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্ত মডেল ও অভিনয়শিল্পী জয়া আহসানও এ পথে পা বাড়িয়েছেন।

কয়েকদিন পর শাকিব -জয়া জুটির দ্বিতীয় সিক্যুয়েল সিনেমা পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী টু মুক্তি পাবে। আর এর ঠিক আগ মুহূর্তে কলকাতাসহ দেশীয় মিডিয়ায় জয়া আহসান আর ওপার বাংলার নির্মাতা সৃজিত মুখার্জিকে নিয়ে মুখরোচক আলোচনা শুরু হয়েছে।

কলকাতার নির্মাতা সৃজিত মুখার্জি নির্মিত রাজকাহিনী চলচ্চিত্রে অভিনেতা ইন্দ্রনীল রায়ের সঙ্গে অভিনয় করেন জয়া আহসান। এ সিনেমার একটি দৃশ্যে জয়া সংলাপে যোনি, স্তন ইত্যাদি শব্দগুলো উচ্চারণ করায় সমালোচনার ঝড় ওঠে। সে বিষয়টি নিয়েও মিডিয়ায় জল ঘোলা কম হয়নি। যদিও বিষয়টি কিছুদিন পরে থেমে যায়।

কিন্তু হঠাৎ করে আবারও নতুন করে শোনা যায় রাজকাহিনী সিনেমার পরিচালক সৃজিত জয়াকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছেন। এমন নানা মুখরোচক আলোচনা শুরু হয়েছে। এ বিষয়টি জয়া আহসান অস্বীকার করেছেন। পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী টু সিনেমায় জয়ার সহশিল্পী চিত্রনায়ক শাকিব খান নাকি জয়া-সৃজিতের ভেতরে কিছু একটা চলছে বুঝতে পেরেছেন। জাতীয় একটি দৈনিক পত্রিকায় এমন বক্তব্য দেন শাকিব খান।

এ বিষয়ে পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী-টু সিনেমার নির্মাতা সাফিউদ্দিন সাফির কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রথমে বলেন, ‘জয়ার ব্যক্তিগত বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। জয়ার সঙ্গে আমার কথা হয় কিন্তু এ বিষয়ে কিছুই জানি না।’

এরপর তিনি বলেন, ‘জয়ার ইন্ডিয়ায় বাসা আছে। ও ওখানেই বেশিরভাগ সময় থাকে। শ্যুটিং বা অন্য কাজের জন্য ঢাকায় আসে।’

প্রেম কাহিনী-টু সিনেমার প্রচারণার জন্যই এসব গুজব রটানো হচ্ছে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সিনেমার প্রচারণার জন্য এসব করা হচ্ছে না। এগুলো জয়ার ব্যক্তিগত বিষয়।’

জয়া-সৃজিতের বিয়ের বিষয়টি নিয়ে এখন কেন গুঞ্জন উঠবে? আর এ বিয়য়টি নিয়ে সহশিল্পী শাকিব খানই বা কেন মাথা ঘামাবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে সহজেই বুঝা যায় এটি প্রেম কাহিনী-টু সিনেমার সস্তা প্রচারণা ছাড়া আর কিছু না।

বিষয়টি নিয়ে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, জয়ার ব্যক্তিগত জীবনে এমন ঘটনা ঘটে থাকলেও এটা নিয়ে কাদা ছোঁড়াছুড়ির কিছু নেই। এখন যেটা হচ্ছে প্রেম কাহিনী টু সিনেমার প্রচারণা করা। এর বাইরে আর কিছুই না।রা.বি.

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts