November 18, 2018

তাহলে কি বেছে নেবে ব্রিটেন?

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্কঃ  ইউরোপিয়ান ইকোনোমিক কমিউনিটিতে (ইইসি) যোগ দিয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সদস্য হওয়ার ৪১ বছর পর ওই জোটে থাকা কিংবা বেরিয়ে আসা নিয়ে ব্রিটেনে গণভোট অনুষ্ঠিত হবে বৃহস্পতিবার (২৩ জুন)। দেশটির গুরুত্বপূর্ণ অনেক ইস্যুতে পার্লামেন্টে সিদ্ধান্ত হলেও স্পর্শকাতর এ বিষয়টিতে গণভোটে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

ব্রিটেন আগামী দিনে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য হিসেবে থাকবে, নাকি ২৮ জাতির এ জোটের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্কের ইতি টেনে নিজেদের মতো করে চলবে, এ ইস্যুতে এখন বিভক্ত পুরো দেশ। ঐতিহাসিক এ সিদ্ধান্তের কঠিন এ প্রশ্নে বিভক্ত রাজনীতিকরাও।

ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ইইউতে থাকার পক্ষে। দেশবাসীকে পক্ষে ভোট দেয়ারও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। বলেছেন, জোট থেকে বেরিয়ে এলে ব্রিটেন নিঃসঙ্গ হয়ে পড়তে পারে। একইমত সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারেরও।

অন্যদিকে ইইউ’র সঙ্গ ছাড়ার পক্ষে কনজারভেটিভ পার্টির নেতা মাইকেল গোভ। নিঃসঙ্গ হয়ে পড়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে ইইউ জোট ছাড়ার পক্ষে জনগণকে ভোট দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। বলেছেন, জোট ছাড়লে ব্রিটেনের সমৃদ্ধি আরও বাড়বে।

এদিকে গণভোটের আগে বিভিন্ন জরিপে দেখা গেছে, ইইউতে থাকার পক্ষে আছে ৪৪ শতাংশ, অন্যদিকে বিপক্ষে মত দিয়েছে ৪৩ শতাংশ মানুষ। কোনো কোনো জরিপে পক্ষে-বিপক্ষে সমর্থন সমান। যাইহোক বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন, দেশের ভবিষ্যৎ নির্ধারণ নিয়ে কঠিন এ প্রশ্নের সিদ্ধান্ত নেবে ব্রিটেনের জনগণ।

উল্লেখ্য, ১৯৭৫ সালের ৫ জুন ইউরোপিয়ান ইকোনোমিক কমিউনিটিতে যোগ দেয়ার প্রশ্নে গণভোট অনুষ্ঠিত হয় ব্রিটেনে। ওই গণভোটে ৬৭ শতাংশ নাগরিক ইইসিতে থাকার পক্ষে ভোট দেয়। মূলত ১৯৭৩ সালে এ জোটে যোগ দেয় তারা। ২০১৬ সালের ২৩ জুনের গণভোট একই ইস্যুতে দ্বিতীয়বার।

ব্রিটেনের ইতিহাসে কোনো ইস্যুতে গণভোটের আয়োজন বিরল ঘটনা। দেশটিতে দ্বিতীয় গণভোট হয় ২০১১ সালে, বিকল্প ভোটিং ব্যবস্থা নিয়ে।

ইইউ জোটে থাকার সিদ্ধান্ত জানতে অপেক্ষা আর কয়েকঘণ্টার। গণভোটের ফলাফল বলে দেবে কোন দিকে যাবে ব্রিটেন। সে মতো সিদ্ধান্ত নেবে ক্ষমতাসীনরা।

বিশ্লেষকদের মতে, ফলাফল যাইহোক, এ গণভোটের প্রভাব পড়বে আগামী দিনে ব্রিটেনের রাজনীতি ও সমাজে।

Related posts