April 21, 2019

‘তারাই নিজেদের অতিভক্তি চোরের লক্ষণ দেখাচ্ছেন’

694
সংসদে অনির্ধারিত আলোচনায় জাসদের মঈনউদ্দিন খান বাদল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চট্টগ্রাম সফর নিয়ে বলেন, সেখানে দেখলাম একজন সরকারি কর্মচারী ছবি টাঙিয়ে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন। তিনি কি সরকারি কর্মচারী, না রাজনৈতিক দলের নেতা, তা পরিষ্কার করতে হবে।

তিনি বলেন, রাজতন্ত্র আর প্রজাতন্ত্রের পার্থক্য আছে। প্রজাতন্ত্রে কিছু নিয়ম মানতে হয়। প্রজাতন্ত্রে বিশেষ বিশেষ কিছু লোক অনুগ্রহের পাত্র হয়। তারাই নিজেদের অতিভক্তি চোরের লক্ষণ দেখাচ্ছেন। এসব ব্যক্তি সমাজের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ান।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর প্রকল্প উদ্বোধনকালে সরকারি কর্মচারীরা কথা বলছেন। সেখানে গণপূর্ত মন্ত্রীও ছিলেন, তিনিও একটি কথা বললেন না।

বুধবার দশম জাতীয় সংসদের নবম অধিবেশনে অনির্ধারিত আলোচনায় অংশ নিয়ে বাদল এসব কথা বলেন।

তবে অনির্ধারিত আলোচনায় এ প্রসঙ্গটি উত্থাপন করায় ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের তোপের মুখে পড়েন মঈনউদ্দিন খান বাদল।

ডেপুটি স্পিকার বাদলের উদ্দেশে বলেন, যে বক্তব্যটি আপনি রাখলেন, তা পয়েন্ট অব অর্ডারের আওতায় পড়ে না। এর আগেও আপনাকে অনুরোধ করেছিলাম যথাযথ নিয়ম মেনে পদক্ষেপ নিন। তাহলে আমার সবাই কিছুটা হলেও স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারতাম। তা না করে সংসদে এভাবে ফলাও করে বললে আমরা কোনো ফলাফল পাব না। এ বিষয়ে আপনাকে আরো অধিকতর যত্নবান এবং কার্যকরী ভূমিকা রাখার অনুরোধ করছি।

এরপর ফ্লোর নিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, মাননীয় স্পিকার আপনার প্রতি আমার আস্থা, বিশ্বাস ও শ্রদ্ধা আরো বেড়ে গেল। মইনউদ্দিন খান বাদলের উদ্দেশে আপনার বক্তব্য যথার্থ হয়েছে।

কারণ আমি গত ৩০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে চট্টগ্রাম গিয়েছিলাম। অর্থমন্ত্রীও ছিলেন। সেদিন চট্টগ্রামে একটি মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। রাস্তার কোনো গাড়ি চলে নাই। হাজার হাজার লোক রাস্তার দুই পাশে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী দেখলেন এবং জয় করে ঢাকায় ফিরে আসলেন।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts