November 17, 2018

ড. কামালের সাথে কোনো ঐক্যে যাবে না জাতীয় পার্টি!

ঢাকাঃ গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সাথে জাতীয় পার্টির কোনো সম্পর্ক নেই বলে জানিয়েছেন পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তিনি সাফ জানিয়ে দেন জাতীয় পার্টির সাথে ড. কামালের কোনো ঐক্য হতে পারে না। গতকাল রোববার জাপা চেয়ারম্যানের বনানীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত পার্টির নবগঠিত প্রেসিডিয়ামের প্রথম সভায় তিনি এ কথা বলেন।

উল্লেখ্য শনিবার জাতীয় প্রেস কাবে আনুষ্ঠানিকভাবে ড. কামাল হোসেন জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া নামে নতুন জোট গঠন করেন। ওই কমিটিতে জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদেরকে সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে। জি এম কাদের নিজেও শনিবারের ওই সভায় উপস্থিত ছিলেন।

জাপা সূত্র জানায়, প্রেসিডিয়াম সভায় প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু ও মশিউর রহমান রাঙ্গা এ বিষয়ে এরশাদের অবস্থান জানতে চান। জবাবে এরশাদ বলেন, ড. কামালের সাথে জাতীয় পার্টির কোনো জোটে যাওয়ার সম্ভাবনা নেই। দলের কোনো নেতা যদি তার সাথে ( ড. কামাল ) বৈঠক করেন তাহলে তা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। এ ব্যাপারে মহাসচিবকে জি এম কাদেরের সাথে কথা বলার জন্য দায়িত্ব দেন এরশাদ।

জাতীয় পার্টির অষ্টম জাতীয় সম্মেলনের পর নবগঠিত কমিটির প্রথম সভায় জাপার ৪০ জন প্রেসিডিয়াম সদস্যের মধ্যে ৩৫ জন উপস্থিত ছিলেন। পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান বেগম রওশন এরশাদ এমপি, মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপি, এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি, কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি, জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, অধ্যাপক দোলোয়ার হোসেন, হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, গোলাম হাবিব দুলাল, গোলাম কিবরিয়া টিপু, অ্যাডভোকেট শেখ সিরাজুল ইসলাম, মাসুদা এম এ রশিদ চৌধুরী, ফখরুল ইমাম এমপি, প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু এমপি, নূর-ই-হাসনা লিলি চৌধুরী, প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা এমপি, তাজুল ইসলাম চৌধরী এমপি, মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা, মাঈদুল ইসলাম এমপি, হাবিবুর রহমান হবি, সুনীল শুভ রায়, এস এম ফয়সল চিশতি, মীর আব্দুস সবুর আসুদ, মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, হাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, অ্যাডভোকেট মহসিন রশিদ, সোলাইমান আলম শেঠ, রত্নাক্ষা আমিন হাওলাদার এমপি, আব্দুর রশিদ সরকার ও মেজর (অব:) খালেদ আখতার।

বৈঠক শেষে সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা জানিয়েছেন, এরশাদ সাহেব সব প্রেসিডিয়াম সদস্যকে নিজ নিজ এলাকায় গিয়ে সংগঠন শক্তিশালী করার নির্দেশ দিয়েছেন। বিশেষ করে তিনি আগামী নির্বাচনে এককভাবে অংশ নেয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেছেন, তোমরা এখন থেকে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করো। আগামীতে আমরা এককভাবে নির্বাচন করবো। তৃণমূল পর্যায়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করে যেকোনো মূল্যে আগামীতে জাতীয় পার্টিকে এককভাবে ক্ষমতায় আনতে হবে।

একই কথা বলেন বিরোধীদলীয় নেতা ও জাপার সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান বেগম রওশন এরশাদ। তিনি জাপার কেন্দ্রীয় কমিটির পরিধি আরো বাড়ানোর জন্য এরশাদের প্রতি আহ্বান জানান।

প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন জানান, সভায় মেয়াদউত্তীর্ণ সব জেলা কমিটির সম্মেলন আগামী তিন মাসের মধ্যে সম্পন্ন করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ ছাড়া আগামী চার মাসের মধ্যে দেশের অধিকাংশ জেলায় জনসভা ও বিভাগীয় শহরে মহাসমাবেশ সম্পন্ন করে আগামী ডিসেম্বরে ঢাকায় মহাসমাবেশ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, প্রেসিডয়াম সদস্যসহ যেসব কেন্দ্রীয় নেতা পার্টির মাসিক চাঁদা নিয়মিত পরিশোধ করেন না তাদের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এরশাদ। এ সময় জিয়াউদ্দীন আহমেদ বাবলু প্রেসিডিয়াম সদস্যদের মাসিক চাঁদা তিন হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে পাঁচ হাজার টাকা করার প্রস্তাব করেন। এরশাদ এই প্রস্তাব গ্রহণ করে আগামী মাস থেকে সব প্রেসিডিয়াম সদস্যকে নিয়মিত চাঁদা পরিশোধ করার নির্দেশ দেন।

প্রেসিডিয়াম সভা শেষে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে জাপার মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, আমরা আপাতত কোনো দল বা গোষ্ঠীর সাথে রাজনৈতিক ঐক্যে যাচ্ছি না। ভবিষ্যতে ঐক্য হলে তা দলের সর্বস্তরের নেকাকর্মীর সাথে আলাপ করে পার্টির চেয়ারম্যান সিদ্ধান্ত নেবেন। তিনি জানান, সংগঠনকে তৃণমূল পর্যায়ে শক্তিশালী করে অসমাপ্ত জেলার সম্মেলন সমাপ্ত করা হবে। জেলা সম্মেলন ও বিভাগীয় সমাবেশ শেষে আগামী ডিসেম্বরে ঢাকায় জাতীয় মহাসমাবেশ করবে জাতীয় পার্টি।

Related posts