September 21, 2018

ঝিনাইদহ সিমান্তে গড়াইটুপি মেলার আয়োজক কে এই শুকুর আলী ?

জাহিদুর রহমান
ঝিনাইদহ থেকেঃ
ঝিনাইদহ-চুয়াডাঙ্গার সীমান্তের গড়াইটুপি গ্রামের আমাবতির মেলায় অশ্লীল নাচ, যাত্রা, জুয়া, লাকী কুপন লটারী ও মাদকের আসর বসেছে। তিতুদহ গ্রামের আওয়ামীলীগ নেতা শুকুর আলী এই মেলার আয়োজন।

মেলার নামে তিনি অসামাজিক কাজ করে ঝাল পটলের ব্যবসায়ী থেকে এখন কোটিপতি। অভিযোগ উঠেছে পুলিশের দালালী, সোনা চোরাচালন ও মাদক সিন্ডিকেটির মাধ্যমে শুকুর আলী নিজেকে দানবীর হিসেবে জাহির করেন। তার আদি বাড়ি কোটচাঁদপুরের দয়ারামপুর গ্রামে। মা তালাক প্রাপ্ত হওয়ার পর তিতুদহ গ্রামে মামার বাড়ি মানুষ হয়েছেন। দুই নাম্বারী টাকায় নিজ গ্রামে ৫০ লাখ টাকা ব্যায় করে বানিয়েছেন দৃষ্টি নন্দন আলীশান বাড়ি। এই টাকা উৎস নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। গ্রামবাসির ভাষ্য ৩/৪ বছর আগেও শুকুর আলী বাজারে বাজারে ঝাল পটলের ব্যবসা করতেন। রাতারাতি তার ধনসম্পদ কি ভাবে বৃদ্ধি হলো এই প্রশ্ন মানুষের মুখে মুখে।

এদিকে মেলা বন্ধের দাবীতে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক সায়মা ইউনুস ও মেলার আয়োজক আওয়ামী লীগ নেতা শুকুর আলীর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে যার নম্বর ১১২/১৬। সোমবার বিকালে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার সিনিয়র সহকারী জজ আদালতের বিচারক খাইরুল ইসলামের আদালতে মামলাটি করেন এডভোকেট শফিকুল ইসলাম শফি নামে এক আইনজীবী।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা পুলিশ প্রশাসনের নিরাপত্তা ছাড়পত্র না নিয়েই চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক বিতর্কিত গড়াইটুপি মেলার অনুমোদন দিয়েছে। গত ১৫ জুলাই থেকে অনুমোদন পাওয়া এ মেলা ২৪ জুলাই পর্যন্ত চলার কথা থাকলেও মেলার আয়োজক চুয়াডাঙ্গার সদর উপজেলার তিতুদহ গ্রামের বিতর্কিত আওয়ামীলীগ নেতা শুকুর আলী পুলিশ প্রশাসনকে চ্যালেঞ্জ করে মেলা বসিয়েছেন।

এ জন্য তিনি ঘাটে ঘাটে অঢেল টাকা ছিটিয়েছেন বলে কথিত আছে। মেলা বসানোর পর সেখানে অবৈধভাবে মেয়েদের উলঙ্গ নাচ, জুয়ো ও লাকী কুপন লটারী চালানো হচ্ছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বক্ষনিক এক জন ম্যাজিষ্ট্রেট মেলার সার্বিক দেখভালের জন্য নিয়োজিত করার কথা। কিন্তু‘ মেজিস্ট্রেট সেখানে থাকেন না। ফলে মেলা কর্তৃপক্ষ অনাচারে লিপ্ত হচ্ছে। মেলার কারণে এলাকার প্রায় ৫০ গ্রামের যুব সমাজ টাকার জন্য নেমেছে চুরি ও রাহাজানীতে।

ফলে আইনশৃঙ্খালা পরিস্থিতি অবনতি হচ্ছে। এডভোকেট শফিকুল ইসলাম শফি জানান, মঙ্গলবার ১৯ জুলাই বিজ্ঞ বিচারক এ মামলার আদেশ জারী করবেন।
চুয়াডাঙ্গা সীমান্তে আ’লীগ নেতার অশ্লীল নাচ যাত্রা জুয়ার আসর!

ঝিনাইদহের সিমান্তে চুয়াডাঙ্গার শুরুতে গড়াইটুপি মেলায় অশ্লীল নাচ জুয়া ও লাকী কুপন লটারী বন্ধের দাবীতে জেলা প্রশাসক সায়মা ইউনুস ও মেলার আয়োজক আওয়ামী লীগ নেতা শুকুর আলীর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সোমবার বিকালে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার সিনিয়র সহকারী জজ আদালতের বিচারক খাইরুল ইসলামের আদালতে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক সায়মা ইউনুস ও সদর উপজেলার তিতুদহ গ্রামের বিতর্কিত গড়াইটুপির মেলার আয়োজক শুকুর আলীর বিরুদ্ধে মেলা স্থায়ীভাবে বন্ধ করার জন্য মামলা করা হয়েছে।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা পুলিশ প্রশাসনের নিরাপত্তা ছাড়পত্র না নিয়েই চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক বিতর্কিত গড়াইটুপি মেলার অনুমোদন দিয়েছে। গত ১৫ জুলাই থেকে অনুমোদন পাওয়া এ মেলা ২৪ জুলাই পর্যন্ত চলার কথা থাকলেও মেলার আয়োজক চুয়াডাঙ্গার সদর উপজেলার তিতুদহ গ্রামের শুকুর আলী পুলিশ প্রশাসনকে চ্যালেঞ্জ করে।

এরপর সেখানে অবৈধভাবে মেয়েদের উলঙ্গ নাচ, জুয়ো ও লাকী কুপন লটারী চালানো হচ্ছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বক্ষনিক ১ জন ম্যাজিষ্ট্রেট মেলার সার্বিক দেখভালের জন্য নিয়োজিত করার কথা। কিন্তু মেজিস্ট্রেট সেখানে থাকেন না। ফলে মেলা র্কর্তৃপক্ষ অনাচারে লিপ্ত হচ্ছে। মেলার কারণে ঝিনাইদহ-চুয়াডাঙ্গার যুব সমাজ টাকার জন্য নেমেছে চুরি ও রাহাজানীতে। ফলে আইনশৃঙ্খালা পরিস্থিতি অবনতি হচ্ছে।

এডভোকেট শফিকুল ইসলাম শফি আজ মঙ্গলবার ১৯ জুলাই বিজ্ঞ বিচারক এ মামলার আদেশ জারী করবেন। মামলা নম্বর ওসি-১১২/১৬।

ঝিনাইদহে পল্লী সমাজের উদ্যোগে জন্ম নিবন্ধনের উপর ক্যাম্পেইন ও মানব বন্ধন !

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার পোড়াহাটি ইউনিয়ন পরিষদে গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে ব্র্যাক সামাজিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচীর পল্লী সমাজের উদ্যোগে জন্ম নিবন্ধনের উপর ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হয়। ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন পরিষদের সচিব আবুল কাসেম ও ইউপি সদস্য হরেন্দ্রনাথ ঘোষ।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পল্লী সমাজের সদস্যগণ ও এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ। বক্তারা জন্ম নিবন্ধন সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেন এবং সকলকে সচেতন হওয়ার আহবান জানান। এছাড়া দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মেয়ে আমার অহংকার,১৮ বছরের আগে বিয়ে নয়, এই আমার অঙ্গিকার শ্লোগানে পল্লী সমাজের উদ্যোগে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এক মানব বন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়।

হরিণাকুন্ডুতে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ প্রতিরোধ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত !

ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার কাপাশহাটিয়া ইউনিয়ন পরিষদে গতকাল মঙ্গলবার সকালে মিলনায়তনে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ প্রতিরোধ শীর্ষক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক ও ৫ নং কাপাশহাটিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মশিউর রহমান জোয়ার্দ্দার, হাজী আরশাদ আলী ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মোতালেব হোসেন, ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি আব্দুল মজিদ, থানার সেকেন্ড অফিসার মনির হোসেন, প্রধান শিক্ষক ইবাদৎ হোসেন, লুৎফর রহমান, ইউপি সদস্যা শিখারন নেছাসহ স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসার শিক্ষকবৃন্দ ও মসজিদের ইমামগণ। বগুড়াসহ দেশের বিভিন্নস্থানে যেসব জঙ্গি হামলা হয়েছে তার সাথে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা জড়িত বলে সভায় উল্লেখ করা হয়।

আ’লীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মশিউর রহমান জোয়ার্দ্দার বলেন, জামায়াত-শিবির যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি ঠেকাতে আইএসের সাথে হাত মিলিয়েছে।

পবিত্র রমজান মাসে গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় কমান্ডো হামলা করে দেশি-বিদেশি মানুষকে হত্যা করে দেশের ভাবমুর্তি নষ্ট করেছে। ইহুদি নাসারাদের সহযোগিতায় ইসলামের শান্তির ধর্মকে সম্প্রতি বাংলাদেশকে বিশ্বের মাঝে হেয় প্রতিপন্ন করেছে।

তিনি আরো বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম মানুষ হত্যা করে কোন শান্তি প্রতিষ্ঠা করা যায়না। ঝিনাইদহে পুরোহিত হত্যাসহ বাংলাদেশে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া যেসব হত্যাকান্ড সংঘঠিত হয়েছে এর সাথে জামায়াত-শিবির জড়িত। জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে সবাইকে এক সাথে কাজ করার আহবান জানানো হয়।

ঝিনাইদহের নলডাঙ্গা ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মানব বন্ধন !

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার নলডাঙ্গা ইউনিয়নের নলডাঙ্গা বাজারের ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের উদ্যোগে গতকাল ১৯ শে জুলাই ২০১৬ মঙ্গলবার বিকাল ৩ ঘটিকার বিতর্কিত শিক্ষা নীতি বাস্তবায়নে প্রণীত শিক্ষা আইন এবং সর্বনাশা হিন্দুত্ববাদী ও নাস্তিকবাদী সিলেবাস রুখে দাড়াও দেশবাসী এই দাবীতে নলডাঙ্গা ইউনিয়নেরর ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সভাপতি নাছির উদ্দিনের সভাপতিত্বে এক মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এক ঘণ্টা ব্যাপী মানব বন্ধনে বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ঝিনাইদহ জেলার সহ সভাপতি ডাঃ মনতাজুল করিম ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের ঝিনাইদহ জেলার সভাপতি আব্দুল জলিল, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের কালীগঞ্জ উপজেলার সভাপতি হাফেজ সোলাইমান হোসেন, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের কালীগঞ্জ উপজেলার সাধারণ সম্পাদক হাফেজ জহুরুল ইসলাম,নলডাঙ্গা ইউনিয়নেরর ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক ইমাম হোসেন প্রমুখ।

মানব বন্ধনে বক্তাগন বলেন বর্তমান সরকারের হিন্দুত্ববাদী ও নাস্তিকবাদী শিক্ষা নীতি বাতিল করে পূর্বের শিক্ষানীতি প্রণয়ন করতে হবে। বর্তমান সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ দমন করে জনসাধারণের নিরাপত্তা ও শান্তির নিশ্চয়তা প্রদানের আহবান জানান।

আরও বলেন শিক্ষা আইনের ১১ নং ধারার ২ নং উপধারায় বলা হয়েছে যে নিবন্ধন ব্যাতিত কোন অবস্থাতেই কোণ বেসরকারি বিদ্যালয় বা মাদ্রাসা স্থাপন ও পরিচালনা করা যাবে না। অতএব সরকার এক মুখী শিক্ষা ব্যবস্থা চালুর উদ্যোগ নিলেই দেশে হাজার হাজার কওমি মাদ্রাসা বন্ধ করে দেওয়া হবে। এদেশে কওমি মাদ্রাসা বন্ধ করতে পারলেই এ দেশ থেকে ইসলাম বিদায় করা সহজ হবে।

ইতিমধ্যে জাতীয় শিক্ষা নীতির আলোকে তৈরি অভিন্ন সিলেবাসের কারনে আলিয়া মাদ্রাসা গুলোতে পৌত্তলিক ও নাস্তিকবাদি শিক্ষা চর্চা ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে। মানব বন্ধন শেষে দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনা করে মোনাজাত করেন।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts