November 19, 2018

জেবিবিএ’র নবনির্বাচিত কমিটির শপথ গ্রহণ

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বিশেষ সংবাদদাতাঃ   জ্যাকসন হাইটস বাংলাদেশী বিজনেস এসোসিয়েশন অব এনওয়াই’র (জেবিবিএ) নবনির্বাচিত কমিটির শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান গত ২৯ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের বাংলাদেশ পাজার কনফারেন্স রুমে অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচন কমিশনের অন্যতম সদস্য সাঈদ রহমান মান্নান নবনির্বাচিত কর্মকর্তাদের শপথ বাক্য পাঠ করার। এই সময় নির্বাচন কমিশনের সদস্য কাজী মন্টু, এমএম রহমান, পারভেজ কাজী, মাহবুব চৌধুরী, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ সকল প্রার্থী, জেবিবিএ’র সাবেক কর্মকর্তাসহ উভয় প্যানেলের এজেন্টরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, জেবিবিএ’র বহুল আলোচিত নির্বাচন গত ২০ ডিসেম্বর সারা দিনব্যাপী জ্যাকসন হাইটসের বাংলাদেশ পাজার কনফারেন্স রুমে অনুষ্ঠিত হয়। সারা দিন উৎসবমুখর নির্বাচন শেষে নির্বাচন কমিশন রাতেই কার্যকরী কমিটির ১৫ পদের মধ্যে ১৪টি পদের বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করেন। নির্বাচন কমিশন কর্তৃক ঘোষিত ফলাফলে কার্যকরী সদস্য পদে জিকো-তারেক প্যানেলের লিয়াকত আলী এবং ঋষিধাম চৌধুরী সমানসংখ্যক ১২০ ভোট পাওয়ায় নির্বাচন কমিশন তাদের ফলাফল স্থগিত রাখেন। নির্বাচন কমিশন ঘোষিত ফলাফলে জিকো- তারেক প্যানেলের ৬ জন প্রার্থী এবং দিদার- কামরুল প্যানেলের ৮ জন প্রার্থী জয়লাভ করেন।

লিয়াকত আলী ও ঋষিধাম চৌধুরীর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য নির্বাচন কমিশন গত ২৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় নির্বাচন কমিশনের অস্থায়ী কার্যালয় মেঘনা শপিং সেন্টারে এক জরুরী সভা আহবান করেন। সভায় জিকো- তারেক প্যানেলের সকল সদস্যকে আমন্ত্রণ জানান। অদ্ভূত পরিস্থিতি নিরসনে এই প্যানেলের ১৫ জন সদস্য এবং নির্বাচন কমিশনের ৫ জনকে নিয়ে আবারো ভোটের ব্যবস্থা করেন। এই ভোটে দুই জন প্রার্থী ১০টি করে সমান সংখ্যক ভোট পেয়েছেন। আবারো সমানসংখ্যক ভোট পাওয়ায় এ দুই প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারণ করা হয় টসে। টসে জয়লাভ করেন মোহাম্মদ লিয়াকত আলী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নির্বাচন কমিশনের অন্যতম সদস্য কাজী মন্টু।

লিয়াকত আলী ও ঋষিধাম চৌধুরীর পদ নিয়ে অচলাবস্থা কাটার পর নির্বাচন কমিশন সরকারিভাবে ফলাফল ঘোষণা করেন। ঘোষিত ফলাফলে জিকো- তারেক প্যানেল ৭টি পদে এবং দিদার- কামরুল প্যানেল ৮টি পদে জয় লাভ করে।

নবনির্বাচিত শপথ গ্রহণকারী কর্মকর্তারা হলেন, সভাপতি জাকারিয়া মাসুদ জিকো, সহ সভাপতি মোহাম্মদ শাহ নেওয়াজ, মোলা এমএ মাসুদ, সাধারণ সম্পাদক তারেক হাসান খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফাহাদ রাজভিন সোলায়মান, কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ সেলিম হারুন, সাংগঠনিক সম্পাদক আতিকুল ইসলাম জাকির, কালচারাল সেক্রেটারি মোহাম্মদ হাসান জিলানি, প্রচার সম্পাদক সাজ্জাদ হোসাইন, অফিস সেক্রেটারি মাহমুদ হোসেন বাদশা। কার্যকরী সদস্য কামরুজ্জামান বাচ্চু, শেখ এম হোসাইন, এসএমএ হাসান, আব্দুল আলিম ও লিয়াকত আলী।

নির্বাচন কমিশনের অন্যতম সদস্য সাঈদ রহমান মান্নানের সভাপতিত্বে এবং কমিশনের সদস্য মাহবুব চৌধুরী ও কাজী মন্টুর পরিচালনায় শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে মে  উপবিষ্ট ছিলেন নির্বাচন কমিশনের সদস্য পারভেজ কাজী, এম এম রহমান, বিদায়ী সভাপতি মহসীন মিয়া, বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক আবুল ফজল দিদারুল ইসলাম, নব নির্বাচিত সভাপতি জাকারিয়া মাসুদ জিকো, নব নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক তারেক হাসান খান। প্রথমে নবনির্বাচিত কমিটির সভাপতিকে শপথ করান সাঈদ রহমান মান্নান। এর পরই সভাপতি নব নির্বাচিত সকল সদস্যকে শপথ বাক্য পাঠ করান।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিদায়ী সভাপতি মহসীন মিয়া, আবুল ফজল দিদারুল ইসলাম, পারভেজ কাজী, জাকারিয়া মাসুদ জিকো, তারেক হাসান খান প্রমুখ।

মহসীন মিয়া বলেন, নির্বাচনে জয় পরাজয় আছে। যারা জয়লাভ করেছেন তাদের অভিনন্দন, যারা পরাজিত হয়েছেন তাদেরও অভিনন্দন। তিনি আরো বলেন, এখন আপনারা প্যানেলের কথা বলে ভুলে যান এবং জেবিবিএ’র স্বার্থে এক হয়ে কাজ করে যান। তিনি বলেন, আজকে আমাদের আনন্দের দিন। কারণ নির্বাচনের পর কেউ কারচুপির অভিযোগ আনেননি।

বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক আবুল ফজল দিদারুল ইসলাম বলেন, নির্বাচন জয়ী এবং পরাজিত সবাই এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত রয়েছেন। এটা ভাল দিক। আমি আশা করি আপনারা জেবিবিএএনওয়াই’ন সংবিধান ফলো করবেন। জেবিবিএ’র উন্নয়নে আমি কাজ করে যাবো।
নবনির্বাচিত সভাপতি জাকারিয়া মাসুদ জিকো বলেন, আমি জ্যাকসন হাইটসের ব্যবসায়ীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমরা যারা নির্বাচন করে জয়ী এবং পরাজিত হয়েছি আমরা সকলে জেবিবিএকে এগিয়ে নিয়ে যাবো। আপনারা আমাদের যে প্রত্যাশা নিয়ে ভোট দিয়েছেন আমরা তা পূরণ করার চেষ্টা করবো। আমাদের প্রথম কাজ হবে জেবিবিএ’র নেতৃত্ব একটি মসজিদ করার। আজকে শপথ নিলাম, আমরা আগামী কাল থেকেই কাজে নেমে যাবো। আমরা একটি অডিট কমিটি এবং ব্যবসায়ীদের সমস্যা সমাধানে আরো একটি কমিটি করবো। তিনি আরো বলেন, আমরা সবাইকে নিয়েই কাজ করবো।

নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক তারেক হাসান খান নির্বাচন কমিশন এবং নির্বাচনে যারা অংশগ্রহণ করেছেন, আমাদের প্যানেলের জন্য কাজ করেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। তিনি আরো বলেন, আমরা একটি ঐক্যবদ্ধ কমিটি পেয়েছি। জেবিবিএকে এগিয়ে নিয়ে সাবেক সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক আমাদের সহযোগিতা করবেন।

নির্বাচন কমিশনারের সদস্য কাজী মন্টু এবং এমএম রহমান সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুল ফজল দিদারুল ইসলামের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তার সহযোগিতার জন্য। তারা বলেন, আজকে আনন্দ লাগছে আমরা সবাই একত্রিত হতে পেরেছি। তারা আরো বলেন, নির্বাচনের সময় আপনারা যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন আশা করি তা পালন করবেন।

পারভেজ কাজী বলেন, এভাবে নির্বাচন হবে। নির্বাচনে জয়- পরাজয় রয়েছে। আজকে আনন্দ লাগছে সবাই আমরা শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে এসেছি। তিনি বলেন, মানুষ মাত্রই ভুল করে আমাদেরও ভুল আছে। আমাদের ক্ষমা করবেন।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts