September 25, 2018

জামায়াতের হরতালকে ঘিরে পুলিশ প্রশাসনের কঠোর অবস্থান!

রফিকুল ইসলাম রফিক, নারায়ণগঞ্জঃ   মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতের আমির মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদন্ডাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ বহাল রাখায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি।

বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নারায়ণগঞ্জ জেলা কমান্ডের ডেপুটি কমান্ডার এ্যাডভোকেট নুরুল হুদা জানান, নিজামীর ফাঁসির রায় উচ্চ আদালতে বহাল রাখায় আমরা মুক্তিযোদ্ধারা ভীষন খুশি। আমাদের দীর্ঘদিনের চাওয়া পূরন হতে চলেছে। আমরা এই রায় দ্রুত কার্যকর করার দাবী জানাচ্ছি।

সদর উপজেলা কমান্ডার শাহজাহান ভূইয়া জুলহাস জানান, নিজামীর ফাঁসির রায় বহাল থাকায় আমি মহাখুশি। এতে মুক্তিযোদ্ধাদের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। নিজামীর মতো সকল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এই বাংলার মাটিতে করতে পারলে শহীদদের আত্মা শান্তি পাবে।

চাষাঢ়া ইউনিয়ন কমান্ডার মোঃ নুর আলম মিয়া জানান, নিজামীর মতো রাজাকারদের স্বাধীনতার পরপরই গুলি করে মেরে ফেলা উচিত ছিলো। ৪৫ বছর তাদের বহাল তবিয়তে এদেশের শষ্য খাইয়ে বাঁচিয়ে রেখে ফাঁসি দেওয়ায় আমি পরিপূর্ন খুশি না। কারন আমরা যারা মুক্তিযুদ্ধ করেছি তারা এসকল যুদ্ধাপরাধীদের এদেশে বিচরণ কখনো মেনে নিতে পারিনি। এখনও আমাদের শরীরে গুলির স্প্রিন্টার রয়েছে। আমরা বুঝি স্বাধীনতা আনতে কতো কষ্ট করতে হয়েছে। এতো বছর পরে হলেও এদেরকে বিচারের ব্যবস্থা করে ফাঁসির রায় হওয়ায় আমি খুশি।

বাংলাদেশ ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির জেলা সভাপতি চন্দন শীল জানান, এই রায়ে আমি খুব খুশি। এতে করে জাতি কলংক মুক্তির পথে আরো একধাপ এগিয়ে গেলো। এই নিজামী ছিলো স্বাধীনতা যুদ্ধে বুদ্ধিজীবী হত্যার মূল নায়ক। বিএনপি-জামাত জোট সরকার সেই নিজামীকে মন্ত্রী বানিয়ে তার গাড়িতে বাংলাদেশের লাল সবুজ পতাকা উড়িয়েছিলো। সেই কলঙ্কের দায় থেকে জাতি মুক্তি পেতে যাচ্ছে। আমরা ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির পক্ষ থেকে এই রায় দ্রুত বাস্তবায়ন করার দাবী জানাচ্ছি।

অপরদিকে, নিজামীর মৃত্যুদন্ডাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে বহাল রাখার প্রতিবাদে রোববার (৮ মে) সকাল থেকে সোমবার (৯ মে) সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার হরতাল ডেকেছে জামায়াতে ইসলামী। তাই হরতালকে ঘিরে যেকোন ধরনের নাশকতা রোধে কঠোর অবস্থানে রয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার (৫ মে) নিজামীর করা রিভিউ (রায় পুনর্বিবেচনা) আবেদন খারিজ করে ফাঁসির রায় বহাল রাখেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে চার বিচারপতির আপিল বে । অন্য তিন বিচারপতি হলেন- বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

সর্বশেষ ধাপে এখন কেবলমাত্র রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাইতে পারবেন নিজামী। প্রাণভিক্ষা না চাইলে বা চাওয়ার পর আবেদন নাকচ হলে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করতে আর কোনো বাঁধা থাকবে না।

আইন অনুসারে তখন সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী যেকোনো সময় নিজামীর ফাঁসির রায় কার্যকর করতে পারবে কারা কর্তৃপক্ষ।

সর্বোচ্চ আদালতে শুনানি করেন আসামিপক্ষে নিজামীর প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন এবং রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

এদিকে, নিজামীর ফাঁসির রায় বহালের প্রতিবাদে এক যুক্ত বিবৃতিতে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমির মকবুল আহমাদ ও ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান শুক্রবার (৬ মে) দেশব্যাপী দোয়া দিবস, শনিবার (৭ মে) দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ এবং আগামী রোববার (৮ মে) সকাল ৬টা থেকে সোমবার (৯ মে) সকাল ৬টা পর্যন্ত দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণ সর্বাত্মক হরতালের কর্মসূচী ঘোষণা করেন।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/৬ মে ২০১৬

Related posts