September 19, 2018

জননিরাপত্তায় চাঁদপুর পুলিশ ও প্রশাসনের ব্যাপক তৎপরতা

এ কে আজাদ,
চাঁদপুর প্রতিনিধিঃ
দেশে চলমান অস্থিতিশীলতায় চাঁদপুর পুলিশ প্রশাসনের ব্যাপক পরিকল্পনা ও কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে অনেকগুলো পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হওয়া সাধুবাদ জানিয়েছেন চাঁদপুরের সাধারণ মানুষ।

এর মধ্যে রয়েছে অবৈধ যান চলাচলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন, ল ঘাট, থানা চত্ত্বর,বিভিন্ন শপিংমলসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থান সমুহকে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা ও মোটর সাইকেলে চালকসহ ২ জনের অধিক আরোহী না উঠা, একাধিক পয়েন্টে চেকপোস্ট, শহরে অতিরিক্ত টহল জোরদার, মুখোশধারী মোটর সাইকেলযোগে ছিনতাই চক্রকে ধরতে সাঁড়াশি অভিযান, মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স থেকে সে অনুযায়ী প্রতিনিয়ত মাদক বিরোধী অভিযান ও গ্রেফতার, জঙ্গিবাদ ইস্যুতে জনসচেতনতায় ব্যাপক প্রচারণা।

ইতোমধ্যে থানা চত্ত্বরে দালালদের দৌরাত্ম ঠেকাতে চাঁদপুর মডেল থানাকে সিসি ক্যামেরার আওতায় এনে ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে মডেল থানা অফিসার্স ইনচার্জ ওয়ালি উল্লাহ অলি জানান, ‘মডেল থানাকে সম্পূর্ণ দালাল মুক্ত করতে পুলিশ সুপারের নির্দেশে এসব ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে থানা অভ্যন্তরে গুরুত্বপূর্ণস্থানে ৭টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়। নিরাপত্তার নিশ্চিত করণে প্রয়োজনে পর্যায়ক্রমে আরো সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘এ সিসি ক্যামেরা স্থাপনের মাধ্যমে চাঁদপুর মডেল থানাকে তথ্য-প্রযুক্তির আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। এর ফলে থানা অভ্যন্তরে বিচারপ্রার্থীদের দালালের খপ্পরে পড়া বন্ধ হবে। আমরা চাই বিচার প্রার্থীরা থানায় এসে যাতে তার অভিযোগ দিতে পারে, সেদিকে সকল পুলিশ কর্মকর্তা দৃষ্টি রাখবে।’

এছাড়া এখন থেকে চাঁদপুর মডেল থানায় আগত বিচারপ্রার্থীদের সাথে স্কাইপির মাধ্যমে সরাসরি কথা বলবেন পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার। মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) চাঁদপুর মডেল থানার কম্পিউটার অপারেটরের কক্ষে এজন্য স্কাইপ স্থাপন করা হয়।

বিকেলে মডেল থানায় আইনী সহায়তা নিতে আসা দু’ ব্যাক্তির সাথে সরাসরি কথা বলে স্কাইফির উদ্বোধন করেন পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার।

চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার্স ইনচার্জ ওয়ালি উল্লাহ ওলি জানান,‘পর্যাক্রমে চাঁদপুর জেলার সকল থানায় এই স্কাইপি পদ্ধতি চালু করা হবে। এতে করে আইনী সহয়তা নিতে আসা ব্যাক্তিরা পুলিশ সুপারের সাথে সরাসরি ভিডিও চিত্রের মাধ্যমে কথা বলতে পারবেন।’

এছাড়া চাঁদপুর পুরাণবাজার ডিগ্রি কলেজ, সার্কিট হাউজ, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের বাসভবনসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ইতোমধ্যে সিসি ক্যামেরার নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

এদিকে জঙ্গি দমন ও অপরাধীদের চিহ্নিত করতে চাঁদপুর জেলার সব উপজেলা শহরের বাড়িওয়ালা ও মোটর সাইকেল চালকদের প্রতি বিশেষ নির্দেশনা জারি করেছেন চাঁদপুর পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার।

নির্দেশনায় বাড়ির মালিকদের বলা হয়েছে, নিজ থানার অফিসার ইনচার্জদের (ওসি) কাছ থেকে নির্ধারিত ফরম সংগ্রহ করে ওই ফরমটিতে বাড়িতে বসবাসকারী ভাড়াটিয়াদের নাম, মোবাইল নাম্বারসহ পূর্ণাঙ্গ তথ্যাবলী পূরণ করে জমা দেয়ার জন্য।

পুলিশ সুপারের আহবানে ইতিমধ্যে বেশীর ভাগ বাসাবাড়ীতে ফরম পৌঁছে গেছে। এবং ফরম পুরন করে জমা দেয়া শুরু হয়েগেছে।

এ নির্দেশনায় আগামী ২৫ জুলাই এর মধ্যে নিকটস্থ থানায় পূরণকৃত ফরমের সাথে ভাড়াটিয়ার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপিও জমা দিতে বলা হয়েছে।

বর্তমান দেশের সার্বিক আইন-শৃংখলা রক্ষার্থে এ পদক্ষেপ বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বাড়ির মালিকগণের কোনো গাফিলতি পরিলক্ষিত হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে একই নির্দেশনায় জানানো হয়, ‘সম্প্রতি কেউ কেউ রাস্তায় চালকসহ ৩ জন আরোহী নিয়ে মোটর সাইকেল চালিয়ে থাকে। যা মোটরযান আইনের সম্পূর্ণ পরিপন্থি।’

তাদের উদ্দেশ্যে বলা হয়েছে চালক ছাড়া কোনোভাবেই অতিরিক্ত আরো দু’জন বহন করা যাবে না। এরকম পাওয়া গেলে ‘জিরো টলারেন্সে’ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আইনের প্রতি শ্রদ্বাশীল চাঁদপুরের মানুষ ঈদের আগ থেকেই চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী অনেকেই ব্যক্তিগত উদ্যোগে নিজস্ব বাসা-বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সিসি ক্যামেরা লাগিয়েছেন। এ নিয়ে চাঁদপুরের কম্পিউটার-ক্যামেরা বিক্রয় কেন্দ্রগুলোতে সিসি ক্যামেরা ক্রেতাদের সংখ্যা তুলনামূলক বেড়েছে।

জঙ্গি ও নিরাপত্তা ইস্যুতে চাঁদপুর পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার বিভিন্ন সভা সমাবেশে তার বক্তব্যে বলেন, ‘নিরাপত্তার বিষয়ে সবাইকে কাজ করতে হবে, শুধুমাত্র পুলিশ আর প্রশাসনকে দিয়ে হবে না, প্রত্যেকটা ঘর থেকে সামাজিকভাবে দায়িত্ব নিতে হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘ফেসবুকের মাধ্যমে কিছু ছেলে-মেয়ে জঙ্গিদের দিকে ধাবিত হচ্ছে, তাই এ বিষয়টি নজর রাখতে হবে আমাদের সকলের।’

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts