September 22, 2018

‘জঙ্গিবাদ ইস্যুতে আলেম-ওলামাসহ ১৬ কোটি মানুষ আজ ঐক্যবদ্ধ’

রিপন হোসেন
ঢাকা থেকেঃ
আজ রোববার সকালে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমির ৬ নাম্বার গ্যালারীর অডিটরিয়ামে বঙ্গমাতা বেগম মুজিবের ৮৭জম জন্মদিন উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ আয়োজিত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, দেশের শান্তিকামী জনতার সাথে আমাদের ঐক্য তৈরি হয়ে গেছে। সে ঐক্য দিয়েই ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে এবং দেশজুড়ে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ মানববন্ধন-প্রতিবাদ সভার মাধ্যমে জঙ্গি নির্মূলে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে।

জঙ্গিরা আর রেহাই পাবে না, অচিরেই এদেশের মানুষ দেশ থেকে জঙ্গি নির্মূল করবে। তিনি আরও বলেন- বিএনপি-জামায়াত হরতাল জ্বালাও পোড়াও করে ব্যর্থ হয়ে এখন বাংলাদেশে বসবাসরত বিদেশিদের হত্যা করা শুরু করেছে। তাদের ধারণা ছিলো এইসব হত্যার মধ্য দিয়ে সরকারকে বৈদেশিক চাপে ফেলবে। ধমের্র নামে মিথ্যাচার করে মানুষদের হত্যা করছে। তারা মনে করেছিল এতে এদেশের ধর্মপ্রাণ মানুষের সমর্থন পাবে। কিন্তু বাস্তবে তার বিপরীত হয়েছে। বিএনপি-জামায়াত মানুষের তীব্র ঘৃণা পেয়েছে। তিনি আরো বলেন- বঙ্গমাতা বেগম মুজিব বঙ্গবন্ধুর ছায়ার মধ্যে ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃত্ব দিয়েছেন। ৭ মার্চ এর ভাষণের পূর্বে বঙ্গবন্ধু, বঙ্গমাতা বেগম মুজিবের পরামর্শ নিয়েছিলেন। বঙ্গমাতা একজন রত্নাগর্ভা।

তিনি রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার মত একজন সন্তান জন্ম দিয়েছেন, তিনি শুধু বাংলাদেশ নয় বিশ্বের শান্তিকামী মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি আজ বিশ্বনন্দিত নেতা।

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেছেন, রাষ্ট্রের এই ক্রান্তিকালে বিএনপির সঙ্গে কোনো ঐক্য হতে পারে না। তিনি বলেন, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গোটা জাতি আজ ঐক্যবদ্ধ। ঐক্যবদ্ধভাবেই জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলা করা হবে। নির্মূল করা হবে তাদের অর্থ ও মদদদাতাদের। খুনিদের মদদদাতা বিএনপি-জামায়াতের সাথে কোনো ঐক্য হতে পারে না। তিনি বলেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ ইস্যুতে দেশের আলেম-ওলামাসহ ১৬ কোটি মানুষ আজ ঐক্যবদ্ধ। যারা নাশকতা ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করে দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করতে চায় তাদের সাথে ঐক্য হতে পারে না। তিনি বলেন, ইসলাম শান্তি, মানবতা ও প্রতিবাদের ধর্ম। এ ধর্ম মানুষ হত্যা কিংবা মানুষের হাত-পায়ের রগ কাটা সমর্থন করে না।

তিনি দেশব্যাপি সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য মুক্তি যুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীদের এগিয়ে আসার আহবান জানান। তিনি বলেন, খুনিরা আজ চিহ্নিত। বঙ্গবন্ধু হত্যা এবং রাজাকারদের যেমন বিচার হয়েছে, তেমনি এই জঙ্গি এবং সন্ত্রাসবাদের গডফাদারদেরও বিচার এই বাংলার মাটিতেই হবে। তিনি বলেন, বিএনপির যেসব নেতারা বক্তব্য দিয়ে জঙ্গি সন্ত্রাসীদের উসকানি দিচ্ছে, তাদেরও ছাড় দেওয়া হবে না।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী। এ সময় বক্তব্য রাখেন যুবলীগ সাধারন সম্পাদক মো: হারুনুর রশীদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য শহীদ সেরনিয়াবাত, ফারুক হোসেন, মাহবুবুর রহমান হিরন, আতাউর রহমান, এডভোকেট মোতাহার হোসেন সাজু, আনোয়ারুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক মহিউদ্দিন আহমেদ মহি, মঞ্জর আলম শাহীন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ বদিউল আলম, ফজলুল হক আতিক, আসাদুল হক আসাদ, সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য কাজী আনিসুর রহমান, মিজানুল ইসলাম মিজু, ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন, শ্যামল কুমার রায়, মিল্লাত হোসেন, জাহাঙ্গীর হোসেন, কেন্দ্রীয় নেতা মোহাম্মদ আলী মিন্টু, মনিরুল ইসলাম হাওলাদার, রেকায়েত আলী খান নিয়ন, আশরাফুল ইসলাম দুলাল, ঢাকা মহানগর যুবলীগ উত্তর সভাপতি মাইনুল হোসেন খান নিখিল, সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সোহরাব হোসেন স্বপন, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন- যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ বাবলু।

বঙ্গমাতা বেগম মুজিবের আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি। প্রদর্শনী প্রতিদিন সকাল ১০ থেকে সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত সাধারণ মানুষের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

Related posts