November 20, 2018

চ্যাম্পিয়নস লিগ খেলা হবে তো ইউনাইটেডের!

                      স্পাের্টস ডেস্ক: ১১২ বছরের পুরোনো মাঠে নিজেদের শেষ ম্যাচ। উপলক্ষটা এমনিতেই আবেগে টইটম্বুরই ছিল ওয়েস্টহাম সমর্থকদের জন্য। কিন্তু অ্যান্থনি মার্শিয়ালের জোড়া গোল সেই উপলক্ষকে প্রায় ভেস্তে দিতেই বসেছিল। কিন্তু ওয়েস্টহামের মিখাইল অ্যান্টনিও ও উইনস্টন রেইড সেটা হতে দেননি। খেলার শেষ দিকে দারুণ দুটি গোলে আবেগপ্রবণ উপলক্ষকে আরও আবেগঘন করে তুললেন তাঁরা। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ৩-২ গোলে হারিয়ে নিজেদের মাঠের শেষ ম্যাচটাকে দারুণ স্মরণীয় করেই রাখলেন তাঁরা।
ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের জন্য পূর্ব লন্ডন ভ্রমণটা দুঃস্বপ্ন হয়েই রইল। এই হারে প্রিমিয়ার লিগে চতুর্থ হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলাটার স্বপ্নটা রীতিমতো ফিকেই হয়ে গেছে তাদের। ইউরোপ-সেরা লড়াইয়ে শামিল হওয়ার জন্য ইউনাইটেডকে এখন তাকিয়ে থাকতে হবে অন্যদের দিকে। নিজেদের শেষ ম্যাচে বোর্নমাউথকে কেবল হারালেই চলবে না সোয়ানসির বিপক্ষে হার কামনা করতে হবে ম্যানচেস্টার সিটির। অন্যদিকে, ইউনাইটেডের এই হারে পরের মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগ নিশ্চিত হলো আর্সেনালের।

খেলা শুরুর আগে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের টিম–বাস ভাঙচুর করা হয়। নানা ঘটনায় খেলা শুরু হতেও দেরি হয়েছে ৪৫ মিনিট। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ কর্তৃপক্ষ অবশ্য ঘটনাটির তদন্ত শুরু করেছে। কিন্তু ইউনাইটেড কোচ লুইস ফন গাল দলের হারের কারণ হিসেবে এই ঘটনাটিকে সামনে আনতে চান না, ‘খেলা শেষ হওয়ার ২০ মিনিট আগ পর্যন্তও আমরা ২-১ গোলে এগিয়ে ছিলাম। প্রতিপক্ষের মাঠে অনেক কিছুই নিজেদের হাতে থাকে না। সেখানে অনেক কিছুর সঙ্গেই মানিয়ে চলতে হয়। আমার মনে হয় না খেলা শুরুর আগের ঘটনাগুলো হারে প্রভাব রেখেছে।’

নিজেদের মাঠে ১১২ বছরের স্মৃতিকে বিসর্জন দেওয়ার রাতটির শুরুতেই এগিয়ে যায় ওয়েস্টহাম। ম্যানুয়াল লানজিনির পাস থেকে ওয়েস্টহামকে ১-০ গোলে এগিয়ে দেন দিয়াফরা সাখো। কিন্তু ১৯ মিনিটে অ্যান্ডি ক্যারল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের রক্ষণ দুর্বলতার সুযোগটা কেন যেন নিতে পারলেন না। বক্সের মধ্যে ঢুকেও তাঁর এলোমেলো শটের কারণে ওয়েস্টহাম ব্যবধানটা দ্বিগুণ করতে পারেনি।

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড খেলায় ফেরে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই। মার্কাস রাশফোর্ডের পাস থেকে হুয়ান মাতা বল ধরে তা বাড়িয়ে দেন মার্শিয়ালকে। মার্শিয়াল বলটি পাঠিয়ে দেন ওয়েস্টহামের জালে।

৭২ মিনিটে ২-১ গোলে এগিয়ে যায় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। এবারও গোলের উৎসমূলে ছিলেন রাশফোর্ড। তাঁর পাস থেকে করা মার্শিয়ালের গোলটি ছিল দুর্দান্ত।

৭৬ মিনিটে ওয়েস্টহামকে সমতায় ফিরিয়ে নিয়ে আসেন অ্যান্টনিও। দিমিত্রি পোয়েটের ক্রস থেকে অ্যান্টনিও হেড করে গোল করেন। খেলা শেষ হওয়ার ১০ মিনিট আগে উইন্সটন রেইডের গোলে স্কোরলাইন ৩-২ করে ফেলে ওয়েস্টহাম। মাঠে নিজেদের ২ হাজার ৩৯৮তম ম্যাচটি দারুণ স্মরণীয়ই করে রাখলেন ওয়েস্ট হাম ফুটবলাররা।

Related posts