September 24, 2018

চা বিরতিতে কী বলেছিলেন ক্ষুব্ধ হাথুরুসিংহে?

হাথুরুসিংহে

উপমহাদেশের উইকেটে ২৭৩ রানের লক্ষ্য তাড়া করা অনেক কঠিন কাজ। কিন্তু সেই কঠিনটাকেই সহজ করে তুলেছিলেন কুক ও ডাকেট। উদ্বোধনী জুটিতে বিনা উইকেটেই ১০০ তুলে ফেলেছিলেন এই দুই ওপেনার। সুইপ আর রিভার্স সুইপে বাংলাদেশের স্পিনারদের অসহায় করে ফেলেছেন ৫৬ তুলে ফেলা বেন ডাকেট। অন্যদিকে স্বচ্ছন্দ ছিলেন ৩৯ রানে অপরাজিত অ্যালিস্টার কুকও।

থমথমে মুখে তখন ডাগআউটে বসে কোচ চন্দিকা হাথুরুসিংহে। চা বিরতির খানিক আগে ড্রেসিং রুমের ভেতরে ঢুকে গেলেন বাংলাদেশের এই কোচ। বিরতির পর মাঠে দেখা গেল অন্য বাংলাদেশকে। বিরতিতে মুশফিকদের কি বলেছিলেন কোচ? কী এমন রহস্য এই বদলে যাওয়ার?

বিনা উইকেটে ১০০ রান নিয়ে চা বিরতিতে যাওয়া ইংল্যান্ড বিরতির পর ৬৪ রানেই হারিয়েছে ১০ উইকেট। ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম জানালেন, বিরতির সময় ভীষণ রেগে ছিলেন কোচ।

মুশফিক আরো বলেন, কোচের মেজাজ খুব একটা ভালো ছিল না। কোচের বকুনি হজম করতে হয়েছে কি না, তা সরাসরি না বললেও মুশফিক বলেছেন, ‘উত্থান-পতন ছিলই’।

পরে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে হাথুরুসিংহেও জানালেন, চা বিরতির সময় তিনি ছিলেন অসন্তুষ্ট। কি বলেছেন, সেটা খোলাসা করেননি। তবে অবশ্যই মধুর কোনো বাক্য ছিল না!

‘শব্দ ব্যবহারে আমাকে সতর্ক হতে হবে, কারণ আমি মোটেও খুশি ছিলাম না’। পরিকল্পনা যা ছিল, আমরা সেটা করতে পারছিলাম না।

‘কি বলেছিলাম, সেটা আমি অবশ্যই জানাব না। তবে আমি স্রেফ মনে করিয়ে দিয়েছি যে কি করা উচিত’। মনে করিয়ে দিয়েছি যে যাদের ওপর দল নির্ভর করে, তাদের এগিয়ে আসতে হবে। আমি খুশি যে বার্তাটা ওরা ধরতে পেরেছিল।

চা বিরতির পরই অন্য বাংলাদেশকে দেখল ক্রিকেট বিশ্ব। তৃতীয় সেশনের প্রথম বলেই ডাকেটকে ফিরিয়েছেন মিরাজই। সাকিবও চা বিরতির পর নিজের প্রথম ও দলের দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে ফিরিয়েছেন জো রুটকে। এরপর মিরাজের একের পর চমক। প্রথম ৬ উইকেটের ৫টিই তার। শেষ ব্যাটসম্যান ফিনকে ফিরিয়ে তিনিই জয়ের কারিগর।

Related posts