September 20, 2018

চাঁদপুর নির্বাচন; ক্ষমতাসীনরা মাঠে থাকলেও মাঠে নেই বিএনপি

এ কে আজাদ,চাঁদপুরঃ নির্বাচনী প্রচারনায় সরগম হয়ে উঠেছে চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ছেংগারচর পৌর এলাকা। ক্ষমতাসীন দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা তফসীল ঘোষনার আগেই প্রচারনা শুরু করলেও বিএনপি কিংবা জাতীয় পার্টীর কাউকে এখনো মাঠে দেখা যায়নি।

ক্ষমতাসীন দলের মেয়র ও কাউন্সিলর প্রর্থীরা ভোটোরদের মন জয় করার জন্য নানা রকম চেষ্টা তদবীর চালাতে ব্যস্ত রয়েছে। মেয়র ও কাউন্সিলর পদে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা সামাজিক বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ভিড় করা ছাড়াও ডিজিটাল ব্যানার, পোষ্টার, ফেষ্টুনসহ নানা কৌশলে প্রচারনায় ব্যস্ত রয়েছেন।

এদিকে দেশে প্রথমবারের মতো স্থানীয় নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন ও প্রতীকে আয়োজনের আইন পাশ হওয়ায় সম্ভাব্য প্রার্থীদেরকেও ভিন্নভাবে ভাবতে হচ্ছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরা তৃনমূলের যোগাযোগ রক্ষার পাশাপাশি উচ্চ পর্যায়ে বা হাইকমান্ডের সাথে লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন।

২৬ হাজার ১৭৭ ভোটারের ‘খ’ শ্রেণীর ছেংগারচর পৌরসভায় মেয়র পদে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের ৯ নেতা দলের মনোনয়ন লাভে সচেষ্ট রয়েছেন। মাঠের আলোচনায় যারা রয়েছেন তারা হলেন- বর্তমান মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ্ব রফিকুল আলম জর্জ, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সাধারন সম্পাদক আইয়ুব আলী গাজী, উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি ও ছেংগারচর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোখলেছুর রহমান মাস্টার, প্যানেল মেয়র রুহুল আমিন মোল্লা, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান ঢালী, উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি বাবুল হোসেন, পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন খান, প্রয়াত মেয়র বিল্লাল হোসেন সরকারের স্ত্রী কুলসুম বেগম, আ’লীগ নেতা আতিকুর রহমান আতিক, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক মহসিন মিয়া মানিক। তবে, একাধিক নেতা জানান, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) যাকে মনোনয়ন দেবেন, নেতাকর্মীরা তার পাশে থাকবেন।

অপরদিকে মেয়র পদে বিএনপি নেত্রী ও সাবেক মেয়র মিসেস আমেনা বেগম, পৌর বিএনপির আহ্বায়ক খোরশেদ আলম মোল্লা, পৌর যুবদলের সভাপতি উজ্জল ফরাজীর নাম আলোচনায় রয়েছে। তবে বিএনপির কোনো প্রার্থী এখনো প্রকাশ্যে মাঠে নামেননি। জাতীয় পার্টির আবুল কালাম আজম ও এ্যাডভোকেট শামীমুল ইসলামের নাম আলোচনায় রয়েছে। তবে প্রায় সকল দলের সম্ভাব্য প্রার্থীই উন্নয়ন, মাদক ও সন্ত্রসের বিরুদ্বে কঠোর অবস্থানের কথা বলছেন। তবে, বর্তমান মেয়রের ব্যপারে পৌরপার্ক নির্মান ও জীবগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ে অডিটরিয়াম নির্মানে অনিয়ম নিয়ে মাঠে ব্যপক আলোচনা রয়েছে।

২০১১সালের ১৮জানুয়ারী ছেংগারচর পৌর নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হন আওয়ামীলীগ নেতা বিল্লাল হোসেন সরকার। ঐ বছরেরই ১০মে মেয়র মারা যাবার পর মেয়র নির্বাচিত হন আওয়ামীলীগ নেতা রফিকুল আলম জর্জ। তবে মাঠে-ময়দানে নির্বাচনী প্রচারনা না থকলেও দলীয় সিদ্ধাস্ত পেলে পরপর দু’বারের নির্বাচিত পৌর মেয়র ও গত দু’বারের পরাজিত আমেনা বেগম নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধীতা করতে পারেন বলে দলীয় সূত্রে জানা যায়। যিনি প্রথমবারে আওয়ামীলীগ ও পরের বার বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী হিসাবে জয়লাভ করেছিলেন।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts