December 13, 2017

চলছে আসা-যাওয়ার খেলা; ভোগান্তি এসএসসি পরীক্ষার্থীসহ সবার!

268
মোঃ আঃ রহিম রেজা,ঝালকাঠিঃ   ঝালকাঠির রাজাপুরে গত বেশকিছু দিন ধরে এক সপ্তাহ ধরে দিনে পল্লী বিদ্যুতের ভয়াবহ বিদ্যুৎ বিভ্রাট দেখা দিয়েছে। গরম আসতে না আসতেই রাজাপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি প্রতিদিন দিনে ও রাতে ৪-৫ ঘন্টা করে লোডশেডিং দিচ্ছে। এছাড়াও অগনিতবার বিদ্যুৎ আসা-যাওয়ার খেলা চললেও দেখার কেউ নেই। বিদ্যুতের এ বেলকিবাজিতে চলমান এসএসসি পরীক্ষার্থী, গ্রাহক ও বিদ্যুত নির্ভর বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা পল্লী বিদ্যুতের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন। বিদ্যুতচালিত বিভিন্ন যন্ত্রাংশ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে বলে ভুক্তভোগিদের অভিযোগ।

উপজেলা সদরের একাধিক ব্যবসায়ী ও ভুক্তভোগী গ্রাহকরা অভিযোগ করে জানান, প্রতিদিন সকালে, দুপুরে, বিকেলে, সন্ধ্যা এবং রাতের শেষ ভাগে ৩-৪ ঘন্টা লোডশেডিং দেওয়ায় ফ্রীজসহ বিদ্যুত চালিত যন্ত্রাংশ ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। রাতে বিদ্যুৎ না থাকালে ট্রান্সফর্মার চুরি এবং চোর-ডাকাত আতংকে থাকতে হয়। দিনের বেলায় বিভিন্ন সময় বিদ্যুতের বিভিন্ন ত্রুটির অযুহাতে ২-৩ ঘন্টা লোডশেডিং দেওয়া হচ্ছে। লোডশেডিং এর সময় উপজেলা পল্লী বিদ্যুত সমিতির কর্মকর্তা-কর্মচারিরা তাদের ফোনে চার্জ নেইসহ বিভিন্ন অযুহাতে মোবাইল বন্ধ করে রাখে।

ফোনে লোডশেডিং এর কারন পর্যন্ত জানা যায় না। দিনের বেলায় একাধিক বার লোডশেডিং দেওয়ায় ডিজিটালের যুগে বিভিন্ন অফিস আদালত ও ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের কম্পিউটারসহ মূল্যবান ইলেকট্রিক যন্ত্রাংশ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। গত কয়েকদিন ধরে মিনিটে মিনিটে ঘনঘন বিদ্যুৎ আসা যাওয়ায় চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে মিলকারখানাও। গ্রাহকরা আরও অভিযোগ করে জানান, উপজেলা সদরের চেয়ে গ্রামা লে লোডশেডিং আরো বেশি দেয়া হচ্ছে।

পল্লী বিদ্যুতের লোডশেডিং এর হাত থেকে বাঁচতে সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশুহস্তক্ষেপ কামনা করছেন এ উপজেলার পল্লী বিদ্যুৎ গ্রাহকরা। জানতে চাইলে রাজাপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লাইনম্যান মোঃ লোকমান হোসেন জানান, বিভিন্ন ফলটের কারনে মাঝে মাঝে লাইন বন্ধ হয়ে যায়, তা আবার চালু করি এবং বিভিন্ন লাইনে কাজ করার কারনে দিনের বিভিন্ন সময় লাইন বন্ধ রাখা হয়।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts