September 23, 2018

ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় চাঁদপুর প্রশাসনের প্রস্তুতি ॥ লঞ্চ চলাচল বন্ধ ॥ চরাঞ্চলে মাইকিং

‡‡‡‡‡‡এ কে আজাদ,চাঁদপুর : ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় মোরা । আবহাওয়া বিভাগ চাঁদপুর নদীবন্দরকে চট্রগ্রামের সাথে ১০ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে । আবহাওয়া অফিস সূত্রে আর ৬/৭ ঘন্টার মধ্যে উপকুল অঞ্চলে ঘূণিঝড়ের প্রভাব শূরু হবে। এতে দমকা হওয়ার সাথে ব্যাপক বৃাষ্টপাতের সৃষ্টি হবে।
চাঁদপুর-থেকে নৌ-পথের সকল রুটে ছোটবড় যাত্রীবাহী লঞ্চ ও অন্যা নৌ-যান পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন।
এ ব্যাপারে চাঁদপুর নৌ-ঘাটের লঞ্চ সুপার ভাইজার রুহুল আমিন জানান, ‘আবহাওয়া অধিদপ্তর চাঁদপুরকে চট্রগ্রমের সাথে ১০নং সতর্ক সংকেতের আওতায় রাখা হয়েছে। এর কারনে চাঁদপুর থেকে নৌ-পথে ছোট-বড় সকল প্রকার নৌ-চলা-চল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।
চাঁদপুরের সকল চরাঞ্চলে মাইকিং করে ঘূর্ণিঝড় মোরা’র ব্যাপারে সতর্ক বার্তা পৌচে দিচ্ছে স্থানিয় সেচ্ছাসেবি সংগঠনের সদস্যরা।
এ ব্যাপারে সদর উপজেলার রাজরাজেশ^র ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ হযরত আলী বেপারী জানান, ঘূর্ণিঝড়ের কথা তার নির্বাচনী এলাকার চরাঞ্চলে মাইকিং করা হচ্ছে,এবং সকলকে আশ্রয়ন কেন্দ্রে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তিনি এও জানান, প্রশাসন থেকে সকল ব্যাবস্থা প্রস্তুত রয়েছে।
ঘ্্্্্ূির্ণঝড় মোরা’ মঙ্গলবার ভোর নাগাদ আঘাত হানতে পারে। ঘূর্ণিঝড়টি অতিক্রমকালে চট্টগ্রাম,কক্সবাজার, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, ফেনী, চাঁদপুর, ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর এসব উপকূলীয় জেলায় ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ এবং ঘণ্টায় ৮০ থেকে ১শ’২০ কি.মি. বেগে ঝড়ো ও দমকা হাওয়া বয়ে যেতে পারে। চর ও নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে চার-পাঁচ ফুট অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।
ঘূর্ণিঝড় মোরা” মোকাবেলায় চাঁদপুর জেলা প্রসাশক জরুরী বৈঠক ডেকেছেন। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘুর্ণিঝড় ‘মোরা’ চাঁদপুরসহ উপকূলীয় অঞ্চলের দিকে ধেয়ে আসছে। যে কোনো সময় তা আঘাত হানতে পারে।
এ বিষয়ে প্রস্তুতি হিসেবে সোমবার (২৯ মে) বিকেলে চাঁদপুর জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মো. আব্দুস সবুর মন্ডল বলেন, ‘ ঘূুর্ণিঝড় মোকাবেলায় আমরা সতর্ক অবস্থায় রয়েছি। প্রত্যেক উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে জরুরি প্রস্তুতি গ্রহণের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। প্রাথমিক পস্তুতি হিসেবে আশ্রয়ন কেন্দ্র, মেডিকেল টিম, ঔষধ, শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।
এছাড়াও নৌ-পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও বিদ্যুৎ বিভাগকে সতর্ক অবস্থায় থাকার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসক।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. মাসুদ হোসেনের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আব্দুল হাই, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশ্রাফুজ্জামান, সিভিল সার্জন ডা.মতিউর রহমান, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শরীফ চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক জিএম শাহীনসহ প্রমুখ।

Related posts