November 16, 2018

গোসলের আগে নড়ে উঠল ‘মৃত ব্যক্তি’

সাটুরিয়া সদর হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক দেখলেন সামছুল হক তখনও জীবিত। বর্তমানে তিনি ওই হাসপাকালে চিকিৎসাধীন।

এলাকায় মাইকিং করে জানাজার খবর প্রচার করা হল, কবর খোঁড়া শুরু, গোসল দেয়ার জন্য পানি গরম করা হচ্ছে, ঠিক তখন ‘মৃত ব্যক্তি’ নড়ে উঠলেন।

অবাক করা এ ঘটনাটি ঘটেছে মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার হান্দুলিয়া গ্রামে। উল্লিখিত ব্যক্তি গ্রামের মৃত: মফিজ উদ্দিনের পুত্র এবং সাটুরিয়া সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. আবুল বাশার সরকারের বড় ভাই সামছুল হক (৬২)।
আবুল বাশার সরকার বলেন, ‘গত ১ নভেম্বর আমার বড় ভাই সামছুল হক ব্রেন স্ট্রোক করেন। এরপর তাকে সাটুরিয়া হাসপাতালে ভর্তি করি। পরে মানিকগঞ্জের বেসরকারি মন্নু হাসপাতাল ও স্থানীয় চিকিৎসকের পরামর্শে তিনি সুস্থ হয়ে উঠেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘গত ৪ নভেম্বর আবার ব্রেন স্ট্রোক করলে তাকে সাটুরিয়া হাসপাতালে নিয়ে যাই। পরে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকার শমরিতা হাসপাতালে ভর্তি করি। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৫ নভেম্বর আবারও স্ট্রোক করেন। রবিবার তাকে আইসিওতে রাখা হয়। সোমবার দুপর ১২টার দিকে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে বাঁচানো সম্ভব না বলে জানান। তখন আমরা তাকে বাড়িতে নিয়ে আসি। বাড়িতে আনার পর তিনি নিস্তেজ হয়ে পড়েন।

তিনি মারা গেছেন ভেবে সোমবার আসর নামাজের পর জানাজার সময় নির্ধারণ করা হয়। সে মোতাবেক সাটুরিয়া ইউনিয়নে মাইকিং করা হয়। কিন্তু বিকালে তিনি নড়ে চড়ে উঠলে ৫টার দিকে তাকে সাটুরিয়া হাসপাতালে আনলে সেখানকার চিকিৎসক তাকে জীবিত বলে জানান। বর্তমানে তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন আছেন।

এদিকে মাইকিং করে মৃত ঘোষণা করার পর বেঁচে আছেন এমন সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে সাটুরিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে উৎসুক জনতা তাকে এক নজর দেখার জন্য সন্ধ্যা থেকে সাটুরিয়া হাসপাতালে ভীড় করতে থাকেন।

এ ব্যাপারে সাটুরিয়া হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রাজিব জানান, বিকাল ৫টায় লোকটিকে নিয়ে আসা হয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে তাকে ভর্তি করা হয়। তিনি জীবিত থাকলেও অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছে। কিন্তু তিনি শঙ্কা মুক্ত নন।

Related posts