September 19, 2018

গেইল না খেলায় ‘সন্দেহ’ বিসিবির

ক্রিস গেইল

স্পোর্টস ডেস্কঃ    বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) গভর্নিং কাউন্সিল অন্তত নিজের ক্ষমতাবলে একটা ফ্র্যাঞ্চাইজি কোন খেলোয়াড়কে খেলাবে, আর কোন খেলোয়াড়কে খেলাবে না সেটা নিয়ে প্রকাশ্যে কথা বলতে বা তা নিয়ে তদন্ত করতে পারে না। তবে, নামটা বিপিএল বলেই কি না একটা ‘বিতর্ক’-এর গন্ধ থেকেই যায়।

সেকারণেই ক্রিস গেইলের না খেলার ঘটনায় একটু নড়েচড়ে বসেছে বিপিএলের গভর্নিং কাউন্সিল। শেষ ম্যাচে রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে না খেলেই বিমান ধরার ঘটনায় ‘অনেকরকম’ সন্দেহের উদ্রেক হচ্ছে বিসিবির। আর সেকারণে রীতিমত ব্যাপারটা নিয়ে তদন্ত করতে চলেছে তারা।

তবে বরিশাল ফ্র্যাঞ্চাইজির পক্ষ থেকে একটি ব্যাখ্যা দেয়া হয়। কিন্তু তাতেও সন্তুষ্ট নয় বিসিবি। কোয়ালিফায়ারের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে গেইলকে না খেলানোর সিদ্ধান্ত সন্দেহের চোখে দেখছেন খোদ কাউন্সিল-প্রধান আফজালুর রহমান সিনহা। জানালেন খতিয়ে দেখা হবে পুরো ব্যাপারটি।

রোববার কোয়ালিফায়ারের ম্যাচে বরিশাল বুলসের একাদশ চমকে দেয় সবাইকে। কারণ সেখানে সব ঠিক থাকলেও দেখা যায়নি ক্রিস গেইলকে। মারকুটে এই টি-টোয়েন্টি ব্যাটসম্যানকে ছাড়াই কোয়ালিফায়ারের মত গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে মাঠে নামে বরিশাল।

গেইলের না খেলার ব্যাপারে ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বরিশালের ম্যানেজার সাইদুল ইসলাম বলেন, ‘আজ সকালে হঠাৎ করেই সে বলল, তার পিঠে ব্যথা। সে কারণে এই ম্যাচে খেলতে পারবে না। যেহেতু মাত্রই সে চোট থেকে ফিরেছে, আমরাও তাকে জোর করিনি। গেইলের ইচ্ছা বিগ ব্যাশের আগে সেখানে পিঠের ব্যথার চিকিৎসা করাবেন।’

তবে এই ব্যাখ্যা মনঃপুত হয়নি কাউন্সিলের প্রধান সিনহার। বললেন, ‘এখানে অন্য কোনো উদ্দেশ্য আছে কি না, সেটা খতিয়ে দেখা হবে। দেখতে হবে, গেইল কেন খেললেন না। টুর্নামেন্ট শেষে বিষয়টা আমরা তদন্ত করে দেখব।’

ফ্র্যাঞ্চাইজি থেকে গেইলের চোটের যে কারণ দেখানো হচ্ছে তাতেও সন্দেহ প্রকাশ করলেন সিনহা, ‘সে ক্ষেত্রে তারা আমাদের জানাতে পারত। বিসিবির ফিজিও, ডাক্তাররা প্রাথমিকভাবে দেখতে পারত কি সমস্যা। কিন্তু তারা আমাদের এ ব্যাপারে কিছুই জানায়নি। আমরা খেলার একটু আগে জানতে পারি গেইল খেলবে না। ও চলে যাচ্ছে।’

এছাড়াও তিনি গেইলের চোট নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, ‘চোট থাকলে কাল (পরশু) পুরো ম্যাচে ও ফিল্ডিং করত না। মাঠেই প্রকাশ পেত সেটা।’

বিপিএলের আগের দুই আসরের অভিজ্ঞতা থেকেই হঠাত করে গেইলের না খেলা বিভিন্ন প্রশ্নের উদ্রেক করেছে। কিন্তু ফ্র্যাঞ্চাইজি যদি কোনো খেলোয়াড়কে না খেলায় তবে তার জন্য ব্যাখ্যা চাওয়ার অধিকার নেই গভর্নিং কাউন্সিলের।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে গভর্নিং কাউন্সিলের এক কর্মকর্তাও জানালেন কাউন্সিল ব্যাখ্যা চাইতে পারে না। বললেন, ‘আমরা হয়তো সেভাবে তা পারি না। তবে এ ধরনের টুর্নামেন্টে মানুষের দৃষ্টি থাকে বেশি। কৌতূহলও বেশি থাকে। গেইল আজ না খেলায় আমরা এখন নানা প্রশ্নের সম্মুখীন হচ্ছি। কাজেই বিষয়টা পরিষ্কার হওয়া দরকার।’

গভর্নিং কাউন্সিল কর্মকর্তারাই শুধু নন, কাল বরিশাল-রংপুর ম্যাচ চলাকালে মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের প্রেসিডেন্ট বক্সেও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলো গেইলের না খেলার বিষয়টি। বিসিবি কর্মকর্তারা গেইলকে খেলতে না দেখে যারপরনাই বিস্মিত।

‘গেইলকে না খেলিয়ে টুর্নামেন্টের আকর্ষণটাই কমিয়ে দিল বরিশাল। এ জন্য তাদের শাস্তি পেতে হবে।’– এক পরিচালকের মন্তব্য।

অন্য আর একজন পরিচালকের ধারণা এখানে অন্য কিছু অবশ্যই আছে। বললেন, ‘১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত গেইল পাঁচ ম্যাচ খেলবে এবং ম্যাচপ্রতি ৩৫ হাজার ডলার পাবে, এমনটাই জানানো হয়েছে আমাদের। সে অনুযায়ী গেইলের আরও একটা ম্যাচ খেলার কথা। সেটা না খেলেই সে চলে যেতে পারে না। এখানে নিশ্চয়ই অন্য কিছু আছে।’

বিসিবি এই ব্যাপারে তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে। তদন্তের পরেই বুঝা যাবে আসলে কেনো কোয়ালিফায়ারের মত গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে খেললো না গেইল।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/মেহেদি/ডেরি

Related posts