November 16, 2018

গণফাঁসি দেশের জন্য ভালো লক্ষণ নয়:- কাদের সিদ্দিকী

কাদের সিদ্দিকী

এক দিনে পৃথক মামলায় ২৯ জনের ফাঁসির আদেশের কড়া সমালোচনা করেছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর আব্দুল কাদের সিদ্দিকী।

তিনি বলেন, ‘যারা মনে করছেন ফাঁসি দিলে সব সমস্যার সমাধান হবে, তারা ভুল পথে রয়েছেন। ফাঁসি বরং সমস্যা আরো বাড়িয়ে দিচ্ছে।’

মঙ্গলবার দুপুরে মতিঝিল দলীয় কার্যালয়ের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে কাদের সিদ্দিকী একথা বলেন।

উল্লেখ্য, গতকাল সোমবার রাজধানী ঢাকাসহ ছয় জেলায় পৃথক মামলায় ২৯ জনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছে আদালত। এর মধ্যে চট্টগ্রাম, সিলেট, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ ও কুষ্টিয়ার হত্যা মামলায় রায় এসেছে বিচারিক আদালত থেকে। আর ঢাকার পোস্তগোলা এলাকার ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর আলম হত্যা মামলার রায় এসেছে উচ্চ আদালত থেকে।

কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘এক দিনে ২৯ জনের গণফাঁসি দেওয়া কোনো দেশের জন্য ভাল লক্ষণ নয়। এভাবে ফাঁসি দেয়া হলে বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ ফাঁসির দেশ বা মানবতাবিরোধী দেশ হিসেবে পরিচিত হবে, যা আগামী প্রজন্মের জন্য সুখকর হবে না।’

তিনি এভাবে গণহারে ফাঁসি দেওয়া বন্ধ করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

বিতর্কিত ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের বর্ষপূর্তি ঘিরে চলতি বছরের শুরুতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট আন্দোলন শুরু করে। সে সময়ে ব্যাপক প্রাণহানি হয়। এরপর ২৮ জানুয়ারি শান্তির দাবিতে মতিঝিলের দলীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেন কাদের সিদ্দিকী।

৩০৮ দিন এই কর্মসূচি পালন করে মঙ্গলবার তার সমাপ্তি ঘোষণা করতেই সংবাদ সম্মেলন ডাকেন কাদের সিদ্দিকী।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আবারো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চলমান সংকট নিরসনে সংলাপে বসার আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সাবেক এই নেতা বলেন, ‘দেশের অবস্থা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রীকে সবাই আলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়েছিলেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, কার সঙ্গে আলোচনায় বসব। বিএনপি নেত্রীর গায়ে পোড়া মানুষের গন্ধ।’

তিনি বলেন, ‘কিন্তু, আমি প্রধানমন্ত্রীকে বলব- বিএনপি নেত্রীর গায়ে পোড়া মানুষের গন্ধ হলে যার সঙ্গে বসলে দেশের বর্তমান সমস্যার সমস্যা হবে, দেশ ও জাতির স্বার্থে তার সঙ্গে আপনি আলোচনায় বসেন।’

কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর কন্যা আর খালেদা জিয়া মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমানের স্ত্রী। তাই সময় থাকতে জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে আপনারা আলোচনায় বসুন। এমন সময় আসবে যখন আলোচনার আর সুযোগ পাবেন না।’

তিনি আরো বলেন, ‘আজকে খালেদা জিয়ার হরতাল নেই। মানুষ নিজেরাই হরতাল প্রত্যাখ্যান করেছেন। যেহেতু খালেদা জিয়া আলোচনার কথা বলছেন, তাই এখনই সময় তার সঙ্গে বসে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করা।’

এ সময় কৃষক শ্রমিক জনতা পার্টির সভাপতি সরকারের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘৫ জানুয়ারি যে নির্বাচন হয়েছে, তাতে আপনারা হয়তো ক্ষমতায় আছেন। কিন্তু এ নির্বাচনে ৯০ শতাংশ লোকের সমর্থন নেই। সাধারণ মানুষ একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেখতে চায়।’

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন- কাদের সিদ্দিকীর স্ত্রী নাসরীন সিদ্দিকী, কবি ও সাংবাদিক সাজ্জাদ কাদির, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সেক্রেটারি হাবিবুর রহমান তালুকদার, জাসদ (রব) সেক্রেটারি আব্দুল মালেক রতন প্রমুখ।

Related posts