September 22, 2018

খাদ্যে ক্ষতিকর উপাদান, মারাত্মক ঝুঁকিতে মানুষ

497

রাজধানীর খাদ্যপণ্যের শতকরা ৫০ ভাগেই রয়েছে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর উপাদান। পুষ্টিগুণ ও অন্যান্য মানের বিচারে প্রায় শতভাগেই পাওয়া যাচ্ছে কোন না কোন সমস্যা। বাংলাদেশ জনস্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের পরীক্ষাগারের নমুনা পর্যবেক্ষণ থেকে প্রাপ্ত ফলাফল দিচ্ছে এমনই সব তথ্য।

বাংলাদেশ জনস্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের পরীক্ষায়, ২০১০ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত সারা দেশের ২১ হাজার ৮৬০টি খাদ্য পণ্যের নমুনা পরীক্ষায় ৫০ ভাগেই ভেজাল পাওয়া গেছে।

আর গত ছয় মাসে খোলা ও প্যাকেটজাত ৬২১টি খাদ্যের নমুনা পরীক্ষায় দেখা গেছে, অর্ধেকেরও বেশিতে রয়েছে বিষাক্ত রাসায়নিক আর শতভাগই সঠিক মান পূরণে ব্যর্থ।

বিশ্ব খাদ্য ও কৃষি সংস্থার হিসেবে বাংলাদেশে প্রতিবছর খাদ্যে বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে প্রায় ৪৫ লাখ মানুষ। যা ক্যান্সারের মত মারাত্মক জটিল সব রোগের সম্ভাবনাকে উস্কে দিচ্ছে।

এনএফএসএল মেডিকেল টেকনোলজিস্ট আব্দুল আহাদ বলেন, আমরা এখনই আক্রান্ত হচ্ছি সেটা না। এটা একটা স্লো-পয়জনিং। পরবর্তী প্রজন্মের জন্য এখন থেকেই আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।

অথচ ভেজাল রোধে সারা বছরই অব্যাহত রয়েছে নজরদারি সংস্থাগুলোর অভিযান। কিন্তু থামছে না এই অপসংস্কৃতি। অসাধু ব্যবসায়ীদের যেকোনো উপায়ে অধিক মুনাফা অর্জনের প্রবণতা এর জন্য দায়ী বলে মনে করেন ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম।

ওয়াটার লু’র যুদ্ধে পরাজিত হওয়ার পর সেন্ট হেলেনা দ্বীপে নির্বাসিত ফরাসি সেনাপতি নেপোলিয়নকে প্রতিদিন খাবারের সাথে সামান্য পরিমাণে আর্সেনিক মিশিয়ে স্লো-পয়জনিং এর মাধ্যমে হত্যা করেছিল তাঁর চিরশত্রু ব্রিটিশরা।

আর আজ আমরা নিজেরাই নিজেদেরকে বিভিন্ন স্লো-পয়জনিং করে ঠেলে দিচ্ছি মৃত্যুর দিকে। শুধুমাত্র ভেজাল খাদ্যের মধ্য দিয়ে আমাদের শরীরে যে পরিমাণ রাসায়নিক ঢুকছে তা শুধুমাত্র আমাদেরকেই নয় আমাদের পরবর্তী প্রজন্মকেও মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকির দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts