November 16, 2018

খাগড়াছড়িতে অনির্দিষ্ট কালের হরতালের ঘোষনা<<শিক্ষিক নিয়োগ পক্রিয়া নিয়ে ঘুর্ণিপাকে

আল-মামুন,
খাগড়াছড়ি প্রতিনিধিঃ  খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের শিক্ষিক নিয়োগ পক্রিয়া নিয়ে ঘুর্ণিপাক মধ্যে অন্দোলনে নেমেছে খাগড়াছড়ি জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডসহ স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা। বৃহস্প্রতিবার সকাল ১০টার দিকে খাগড়াছড়ির মুক্ত মে  থেকে অনির্দিষ্ট কালের জন্য হরতাল সর্মসূচীর ঘোষনা করেন।

এছাড়াও শিক্ষক নিয়োগ পক্রিয়ায় বৈষম্যমুলক আচরণসহ সরকার ঘোষিত মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরী নিয়ে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ করেন নেতৃবৃন্দরা।

সকালে মুক্ত মে  ও দুপুরে খাগড়াছড়ি সাংবাদিক ইউনিয়নে “জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড” এর আহবায়ক মো. হারুন মিয়া সভাপতিত্বে এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে খাগড়াছড়ি জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো: রইছ উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম হুমায়ুন কবির, দপ্তর সম্পাদক মোস্তাফা,সদর উপজেলা কমান্ডার আব্দুর রহমান,জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সহ-সভাপতি তসলিম উদ্দিন, মাটিরাঙ্গা পৌর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবুল হাসেম এসময় উপস্থিত ছিলেন।

সমাবেশে বক্তরা বলেন, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ নিয়োগ নিয়ে ক্ষুব্দ মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড।

২০১৩ সালে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায় সহকারী শিক্ষক পদে বিজ্ঞপ্তিতে

সরকারী চাকুরীতে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য নির্ধারিত কোটা সংরক্ষণ না করার প্রতিবাদে খাগড়াছড়িতে রবিবার থেকে অনির্দিষ্ট কালের জন্য খাগড়াছড়ির মুক্ত মে  থেকে অনির্দিষ্ট কালের জন্য হরতাল সর্মসূচীর ঘোষনা করেন।

এতে বক্তরা বলেন, পার্বত্য খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের হস্তান্তরিত বিভাগের সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য নির্ধারিত ৩০ শতাংশ কোটা সংরক্ষণ না করে মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তারদের বাদ দিয়ে বর্তমানে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। মুক্তিযোদ্ধারা বেঁচে থাকতে এ উদ্দেশ সফল করতে দেওয়া হবেনা বলে জানান তারা।

এছাড়াও সরকারী নিয়ম অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ৩৪ জনের চাকুরী পাওয়ার কথা থাকলে তা অমান্য করে পরিষদ চেয়ারম্যানের খেয়াল-খুশিমত এ পক্রিয়া চলছে বলে অভিযোগ করেন নেতৃবৃন্দরা। মুক্তমে  প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসকে বরাবরে স্মারক লিপি প্রদান করে নেতৃবৃন্দরা।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি ৩০ জুন ২০১৬

Related posts