November 14, 2018

ক্যামেরনে সরকার বিরোধী হাজারো মানুষের বিক্ষোভ!

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্কঃ  ভারি বৃষ্টি উপেক্ষা করে হাজার হাজার মানুষ বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করলেন। তারা ঐতিহাসিক তাফালগড় স্কয়ারে সমবেত হয়ে সরকার বিরোধী স্লোগান দেয়। অনেক নেতাকর্মী প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরনের পদত্যাগ দাবি করেন। পানামা পেপারস বিস্ফোরণের আগেই এই সমাবেশের পরিকল্পনা করা হয়েছিল। শনিবার সমাবেশ থেকে বৃটেনে স্বাস্থ্য খাত, গৃহায়ণ, শিক্ষা ও সরকারি খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির আহ্বান জানানো হয়। পাশাপাশি ওয়েলসে যাতে স্টিল কারখানায় নিয়োজিত কয়েক হাজার মানুষ কাজ না হারায় সে বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানানো হয় ডেভিড ক্যামেরনের প্রতি। উল্লেখ্য, ওই কারখানাগুলোতে খরচ কমানোর উদ্যোগ নিয়েছেন ক্যামেরন। এতে কয়েক হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়ার আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে।

শনিবার এ সমাবেশের আয়োজন করে দ্য পিপলস অ্যাসেম্বলি। এতে বৃষ্টি উপেক্ষা করে বক্তব্য রাখেন ট্রেড ইউনিয়নের নেতারা ও রাজনীতিকরা। এতে যোগ দেন বিরোধী দলী লেবার পার্টির কিছু নেতা। ভিডিও বার্তা পাঠান লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন। তিনি বলেন, যে কঠোরতা চালানো হচ্ছে তা রাজনৈতিক বিবেচনায়। এর অর্থনৈতিক কোন প্রয়োজন নেই। ওদিকে ক্যামেরন বলেছেন, তিনি ২০১০ সালে দায়িত্ব নেয়ার আগে তার পিতার কাছ থেকে পাওয়া অফসোর কোম্পানির শেয়ার বিক্রি করে তা থেকে সুবিধা নিয়েছেন। তার পিতা আয়কর ফাঁকি দেয়ার জন্য অফসোর কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেছিলেন এমন অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি। তা সত্ত্বেও তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে চাপ আসছে।

নিজের দলের ভিতরেও রয়েছে চাপ। বৃটেন কি ইউরোপিয় ইউনিয়নে থাকবে কিনা তা নিয়ে গণভোট আসন্ন। সেই ভোটে কি সিদ্ধান্ত হয় তা এখন দেখার বিষয়। ডেভিড ক্যামেরন চাইছেন ইউরোপিয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে আসুক বৃটেন। পার্লামেন্টে রয়েছে তার রক্ষণশীল বা কনজার্ভেটিভ দলের ৩৩০ জন সদস্য। তার মধ্যে ১২৮ জনই তার মতের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। আগামী ২৩শে জুন ওই গণভোট হওয়ার কথা রয়েছে। বর্ষিয়ান এমপি কেন ক্লার্ক শনিবার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন। তিনি বলেছেন, যদি ওই ভোটে ক্যামেরন হেরে যান তাহলে তাকে ক্ষমতা হারাতে হতে পারে।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/১৭ এপ্রিল ২০১৬/রিপন ডেরি

Related posts