November 14, 2018

‘কোহলি থাকতে কোচের কী দরকার’

Captureস্পোর্টস ডেস্ক::বেশ বাজে একটা পরিস্থিতির মধ্য দিয়েই যাচ্ছে ভারতীয় ক্রিকেট। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে হারের ক্ষত সইতে না সইতে খবর এল ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন অনিল কুম্বলে।

বিরাট কোহলির সঙ্গে দ্বন্দ্বের কারণেই নাকি সরে যেতে বাধ্য হয়েছেন কুম্বলে। আর সেটিই মানতে পারছেন না ভারতীয় সমর্থকেরা।

অনিল কুম্বলেকে সরিয়ে দিতে কোহলির মরিয়া ভাবকেই এখন নিন্দা জানাচ্ছেন অনেকে। চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে হেরে যাওয়ার ক্ষত টাটকা বলেই হয়তো এ অবস্থা।

শুধু তাঁর ‘স্টাইল’ কোহলির পছন্দ নয় বলে কুম্বলেকে সরে যেতে বাধ্য করা হলো! তাই ক্ষোভে-বিস্ময়ে ফেটে পড়েছেন ভারতের সমর্থকেরা। এই ক্ষোভের মাত্রাটা টুইটারেই বেশি দেখা যাচ্ছে। সেখানে কেউ কোহলিকে বলছেন উদ্ধত, স্বার্থপর। কেউ বলছেন, কোহলি কি এখন ভারতের ক্রিকেটের ঈশ্বর?

কারও ব্যঙ্গাত্মক মন্তব্য, কোহলিকে ভারতের ক্রিকেটের সর্বেসর্বা করে দাও। সে-ই সব করুক। কোচ, অধিনায়ক, নির্বাচক।

এ সূত্র ধরে সৈয়দ হানজলা রহমান টুইট করেছেন, ‘ব্যাপারটা দাঁড়াল এমন, আপনি আপনার টিউশন শিক্ষককে ছাঁটাই করে দিলেন, কারণ তাঁর অপরাধ তিনি খুব সকালে পড়াতে আসেন।’

কাসুকুর্তি সুরেশ নামের একজন মন্তব্য করেছেন, ‘যেকোনো খেলোয়াড়ের চেয়ে খেলা আর দেশ অনেক বড়’। এখন কোহলিকে সরানোর দাবি তুলছি।

হিমাদ্রি নামের একজন টুইট করেছেন, ‘কোহলি খুবই উদ্ধত। এই প্রজন্মের খেলোয়াড়েরা খুবই বেয়াদব। তারা সিনিয়রদের কাউকে সম্মান করে না। সব সময় নিজের সুবিধাটা দেখে।’

কার্তিকেয়ানের মন্তব্য, ‘খেলোয়াড়ের প্রথম যোগ্যতা হলো কোচের প্রতি শ্রদ্ধা। এখন ওর অনেক টাকা, অনেক গোমড়। এসব কোহলি বলেই সম্ভব।’

কেউ কেউ কোহলিকে অধিনায়কের পদ থেকে সরিয়ে মহেন্দ্র সিং ধোনিকেই আবারো অধিনায়ক করার দাবি তুলেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবর, কোচ হিসেবে কুম্বলে নাকি কড়া মানসিকতার। এতটুকু ছাড় দিতে রাজি নন তিনি। এটাই নাকি কোহলিসহ কিছু তারকা খেলোয়াড়ের পছন্দ নয়।

এ কারণে কোহলির পক্ষেও অনেকে কথা বলছেন। পুরো ঘটনার শুধু একটা দিক জেনে মন্তব্য করা ঠিক নয় বলে দেবানসি নামের একজন টুইট করেন, এ ব্যাপারে শুধু কুম্বলের দিকটাই সবাই দেখছে। কোহলিরও নিশ্চয়ই কোনো যুক্তি বা বক্তব্য আছে। ‘আমিও কারও কারও কাজের ধরনে স্বস্তিবোধ করি না’।

তার মানে কি আমি খারাপ হয়ে গেলাম? দুটি ভালো মানুষের নিজেদের মধ্যে কি ভিন্নমত থাকতে পারে না? এর মানে কি একজনকে এর জন্য খারাপ হতেই হবে? কুম্বলের পদত্যাগের জন্য আমি কোহলিকে ঘৃণা করি না, কিন্তু কুম্বলেকেও শ্রদ্ধা করি।’

এ কারণেই অস্ট্রেলিয়ার সাবেক ক্রিকেটার ডিন জোন্স সেই চিরকালীন প্রশ্নটাই করে বসলেন, ‘তাহলে ক্রিকেটে বস কে? কোচ, নাকি অধিনায়ক?’

Related posts