September 22, 2018

কে হচ্ছেন বিএনপির মহাসচিব?

368
আগামী মার্চেই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বিএনপির কাউন্সিল। পরবর্তী মহাসচিব কে নির্বাচিত হবেন এই নিয়ে চলছে কৌতুহল। ২০১১ সাল থেকে মির্জা ফখরুল দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব থাকা সত্ত্বেও অন্তত সাতজন হেভিয়েট প্রতিদ্বন্দ্বী রয়েছে মহাসচিব পদে।

মার্চে অনুষ্ঠেয় বিএনপির এই কাউন্সিল হবে দলটির ষষ্ঠতম কাউন্সিল। বিএনপির নীতি নির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়। শনিবার বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দীর্ঘমেয়াদী বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লেঃ জেঃ (অবঃ) মাহবুবুর রহমান জানান, কাউন্সিলের আগেই পার্টির শীর্ষ পর্যায়ে চেয়ারপারসন ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানের পদে কে থাকবেন তা নির্ধারণ করবেন। কাউন্সিল উপলক্ষে ইতিমধ্যে একটি নির্বাচন কমিশনও গঠন করা হয়েছে ।

১৯৭৮ সালে বিএনপির প্রতিষ্ঠার পরে এইবার সপ্তমবারের মতো মহাসচিব নির্বাচিত হবেন। পার্টির ৭৫টির সাংগঠনিক জেলা কমিটি ও জাতীয় নির্বাহী কমিটির সাড়ে ৩’শ সদস্য তাদের ভোটের মাধ্যমে মহাসচিব নির্বাচিত করবেন। তবে মির্জা ফখরুলের যদি কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকে তবে মহাসচিব পদে কোনো নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে না বলে দলটির একটি সূত্র জানায়।

এদিকে পার্টির কেন্দ্রীয় সূত্রে জানা যায়, কাউন্সিলকে সামনে রেখে দেশের সাংগাঠনিক জেলাগুলোতে কমিটি গঠন করা শুরু হয়েছে। তার মধ্যে ৬০টি জেলায় কমিটি রয়েছে।

বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও তার বড় ছেলে দলের সিনিয়র ভাইস চেয়াম্যান তারেক রহমানের আর্শীবাদপুষ্ট ব্যবসায়ী নেতা আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারেন। এছাড়া তরিকুল ইসলামের নামও আসতে পারে প্রতিদ্বন্দ্বিতার দৌড়ে। দলের প্রতি তার অভিজ্ঞতা, উৎস্বর্গ ও আনুগত্যর জন্যই মহাসচিব হিসেবে তার নাম আসছে। তবে স্বাস্থ্যগত দিককেও বিবেচনা করা হচ্ছে বলেও পার্টি সূত্রে জানা যায়।

তরিকুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন রোগে ভুগছেন। তার জন্য তাকে মহাসচিবের পদ নাও দেওয়া হতে পারে বলেও জানা যায়। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান ও ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমানের নামও সম্ভাব্য তালিকায় রয়েছে। মহাসচিব হিসেবে নির্বাচিত করতে মোশাররফ ও গয়েশ্বরের জন্য বিএনপির একটি গ্রুপ অভিযানও শুরু করেছে।

স্বচ্ছ ভাবমূর্তি, রাজনৈতিক উৎস্বর্গ ও দলের প্রতি আনুগত্যের দিকে মির্জা ফখরুল সবার চেয়ে এগিয়ে আছেন বলেও বিএনপির সূত্র জানায়। এছাড়া ২০১১ সালে খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের মৃত্যুর পরে দলকে দায়িত্বের সঙ্গে নেতৃত্ব দিচ্ছেন মির্জা ফখরুল। তারেক রহমানের বিরোধীতার জন্যই মির্জা ফখরুল দলের মহাসচিব হিসেবে বিগত বছরগুলোতে দায়িত্ব পাননি বলেও বিএনপির একটি সূত্র জানায়। ২০০৯ সালের ৮ ডিসেম্বর সর্বশেষ বিএনপির জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

দ্য ডেইলি স্টার থেকে অনুবাদ
দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts