November 21, 2018

কেন ছবছর ধরে শেকলে বেঁধে রাখা হল ফাতেমাকে

Captureঢাকা::

ময়মনসিংহের কিশোরগঞ্জের একটি ২১ বছরের মেয়ের মানসিক ভারসাম্যহীন আচরণের কারণে তাকে প্রায় ছবছর শিকল দিয়ে বেঁধে বাড়িতে বন্দী করে রেখেছিল তার পরিবার – এমন এক ঘটনার কথা সংবাদমাধ্যমে বেরুনোর পর তাকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

ফাতেমা আক্তার নামে মেয়েটির বাবা মহিবুর রহমান নিজেই বিবিসিকে বলেছেন, ২০১১ সালে টেস্ট পরীক্ষায় ফেল করার কারণে এসএসসি পরীক্ষা দিতে না পেরে ফাতেমার মানসিক সমস্যা দেখা দেয়।

ফাতেমার বাবার বক্তব্য অনুযায়ী অনেক চিকিৎসার পরও ফাতেমার সেই মানসিক সমস্যাগুলো ভালো হয়নি।

ফাতেমার আচরণ উগ্র হয়ে উঠলে এক পর্যায়ে তাকে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখার সিদ্ধান্ত হয় বলে তার পরিবার জানাচ্ছে।

তবে সংবাদ মাধ্যমে এ খবর বেরুনোর পর ফাতেমাকে এখন ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজে ভর্তির জন্য আনা হয়েছে।

ফাতেমা আক্তারের চাচাতো ভাই অপু সরদার বিবিসি বাংলার পুলক গুপ্তর কাছে বলছিলেন কীভাবে ফাতেমার এ সমস্যার শুরু।

“২০১১ সালে যখন ফাতেমা এসএসসি পরীক্ষা দিতে পারল না, তখন থেকেই ওর মন ভেঙে যায়। সব সময় বলত, বন্ধুরা পরীক্ষা দিচ্ছে – কিন্তু আমি দিতে পারলাম না। আস্তে আস্তে তারপর থেকেই ও বিগড়ে যেতে শুরু করে।”

“অথচ কী দারুণ ভদ্র মেয়ে ছিল ফাতেমা। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ত, আরও কত কিছু করত। সেই মেয়েটাই ধীরে ধীরে একেবারে পাল্টে গেল। বাড়ির লোকজনকে মারধর করতে লাগল, একা একা চুপচাপ বসে থাকত।”

প্রতিবেশীরা তখন অনেকেই বলতেন ফাতেমাকে ‘শয়তানে ধরেছে’। সে জন্য কবিরাজি চিকিৎসাও করানো হয়েছিল। পরিবারের আর্থিক অবস্থা বেশ খারাপ হওয়া সত্ত্বেও দেখানো হয়েছিল ডাক্তারকেও।

Related posts