December 11, 2018

কৃষক দলে ভারপ্রাপ্তের পর ভারপ্রাপ্ত

7
দীর্ঘ ১৮ বছর পর সংগঠনের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল করার উদ্যোগ নিচ্ছে বিএনপির অন্যতম অঙ্গ সংগঠন জাতীয়তাবাদী কৃষক দল। মার্চে বিএনপির কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের আগেই সংগঠনটি নিজেদের কাউন্সিল করতে চায়। লম্বা সময় ধরে সম্মেলন না হওয়ায় ভারপ্রাপ্তের পর ভারপ্রাপ্ত দিয়ে চলছে সংগঠনটির সভাপতির পদ। অবশ্য শেষ পর্যন্ত এবারও কাউন্সিল হয় কি না—এ নিয়েও সংশয় রয়েছে।

সূত্র জানায়, তিন বছর পর পর কৃষক দলের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল হওয়ার কথা। কিন্তু ১৯৯৮ সালের পর সংগঠনের আর কোনো সম্মেলন হয়নি। অথচ এ সময়ের মধ্যে পাঁচটি কাউন্সিল হওয়ার কথা। এর মধ্যে নির্বাচিত সভাপতি আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন। তারপর যিনি ভারপ্রাপ্ত হয়েছিলেন, তিনি মারা গেছেন। এর পর থেকে আট বছর ধরে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এবার কাউন্সিল করে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের উদ্যোগ নিয়েছে কৃষক দল। কেন্দ্রীয় কাউন্সিল আয়োজনের অংশ হিসেবে ২৫ জানুয়ারি কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি সম্মেলন করে কৃষক দল। সে সময় দ্রুত কেন্দ্রীয় সম্মেলন ও কৃষক সমাবেশ আয়োজন করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কৃষক সমাবেশটি ঢাকার বাইরে করার চিন্তা করা হচ্ছে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তিনি প্রধান অতিথি হওয়ার ব্যাপারে প্রাথমিকভাবে সম্মতি দিয়েছেন।

২৫ জানুয়ারি প্রতিনিধি সম্মেলনের পর ওই রাতে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে কৃষক দলের প্রতিনিধিরা মতবিনিময় করেন। সেখানে খালেদা জিয়া এবার সত্যিকারের কৃষকদের নিয়ে সব পর্যায়ে কৃষক দল গঠন করার জন্য নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান।

কৃষক দলের সম্মেলনের বিষয়ে জানতে চাইলে সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান দুদু বলেন, নানা ঘটনার কারণে তাঁদের সংগঠনের সম্মেলন করা যায়নি। ২০০৫ সালে তাঁরা কাউন্সিলের উদ্যোগ নিয়েছিলেন, কিন্তু হয়নি। গত ২৬ জানুয়ারি তাঁরা প্রতিনিধি সম্মেলন করেছেন। চলতি বছরের মার্চের দ্বিতীয় বা তৃতীয় সপ্তাহে তাঁরা সংগঠনের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল করতে চান। সবকিছু ঠিক থাকলে বিএনপির কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের আগেই কৃষক দলের কাউন্সিল হবে।

১৮ বছর ধরে কাউন্সিল না হওয়ায় সভাপতি পদে ভারপ্রাপ্তের পর ভারপ্রাপ্ত দিয়ে চলছে কৃষক দল। সংগঠনের সহদপ্তর সম্পাদক এস কে সাদী বলেন, কৃষক দলের সর্বশেষ কাউন্সিল হয় ১৯৯৮ সালের ১৬ মে। সে সময় মাহবুব আলম তারাকে সভাপতি ও সামসুজ্জামান দুদুকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। মাহবুব ২০০১ সালে কৃষক দল ছেড়ে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। তখন মুজিবুর রহমান মোল্লা ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পান। তিনি ২০০৭ সালের আগস্টে মারা যান। তাঁর মৃত্যুর পর থেকে কৃষক দলের সভাপতি হিসেবে দায়িত্বে আছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

দলীয় সূত্র জানায়, বিএনপির কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের আগে কৃষক দলের কাউন্সিল হওয়ার সম্ভাবনা কম। তবে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে মতবিনিময়ের পর সংগঠনের নেতা-কর্মীরা মনে করছেন, এবার সম্মেলন হবে। কেন্দ্রীয় কমিটির নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন নিয়ে দলে আলোচনা শুরু হয়েছে। কৃষক দলের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান দুদু, ঢাকা মহানগর বিএনপির সাবেক সদস্যসচিব এম এ সালাম, সাবেক ছাত্রনেতা হাবিবুর রহমান, এগ্রিকালচারিস্টস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (অ্যাব) মহাসচিব হাসান জাফির তুহিন প্রমুখের নাম শীর্ষ দুই পদে আলোচনায় আছে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts