December 15, 2018

কুষ্টিয়ায় মাদ্রাসা ছাত্রকে অমানসিকভাবে পিটিয়েছে দূবৃত্তরা

510
শেখ হাসান বেলাল,কুষ্টিয়াঃ  কুষ্টিয়ার মিরপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বন্ধু ও শিক্ষকের সামনেই প্রকাশ্যে মাদ্রাসা ছাত্র শিশু হাবিবুর রহমানকে গাছের ডাল দিয়ে অমানসিকভাবে পিটিয়েছে এক দূবৃত্ত। মিরপুরের নাজমূল উলুম ফাজিল মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেনীর ওই ছাত্র হাবিবুর রহমান (১৩) উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ব্যাথায় কাতরাচ্ছে। ঘটনার পর পরই শিশু নির্যাতনকারী অভিযুক্ত মোজাম্মেল পালিয়েছে। বিচার দাবী করেছেন সংশ্লিষ্টরা। পুলিশ বলছে মোজাম্মেলকে আটকের জন্য অভিযান চলছে।

প্রত্যক্ষদর্শিরা জানান, মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের মিটন গ্রামের ডালিম হোসেন’র ছেলে হাবিবুর রহমান নাজমূল উলুম ফাজিল মাদ্রাসায় অষ্টম শ্রেনীতে পড়ে। বৃহস্পতিবার মাদ্রাসা চলাকালে মজা করার ছলে হাবিবুর রহমানের ব্যাগ থেকে তার সহপাঠী নাহিদা খাতুন একটি খাতা বের করে নেয়। মাদ্রাসা ছুটি হলে বিকেলে পাশেই একটি কক্ষে প্রাইভেট পড়তে গিয়ে হাবিবুর ব্যাগে খাতা না পেয়ে নাহিদার কাছে চায়। নাহিদা খাতা না দিলে হাবিবুর নাহিদার একটি বই নিয়ে নেয়। নাহিদা বের হয়ে এসে তার চাচা মোজাম্মেলের কাছে নালিশ দেয়। মোজাম্মেল গাছের ডাল ভেঙ্গে নিয়ে এসে প্রকাশ্যে বন্ধু ও প্রাইভেট শিক্ষকের সামনেই কথা বলার কোন সুযোগ না দিয়ে অতর্কিত হাবিবুরকে পেটাতে থাকে।

অমানসিক মারপিটে একসময় হাবিবুর মাটিতে লুটিয়ে পড়লে মোজাম্মেল চলে আসে। পরে হাবিবুরকে মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়। এখন হাবিবুর হাসপাতালের বিছানায় ব্যাথায় কাতরাচ্ছে। তার হাতে, পিঠে ও শরীরের বিভিন্ন অংশে কালস্বিরা ও ফোলা দাগ হয়েছে। বর্বরোচিত এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেছেন হাবিবুরের সহপাঠীরা ও শিক্ষকরা এবং পরিবারের লোকজন।
508
হাবিবুরের চিকিৎসা দেওয়া কর্তব্যরত ডাক্তার তাহানি আক্তার জানান, শরীরের বিভিন্ন অংশে ও চোখের পাশে চাপা ধরনের মারপিট হয়েছে। তার হাত ভেঙ্গে গেছে কিনা রিপোর্ট পাওয়ার পরেই জানা যাবে। আর এই ব্যাথা কমতে সময় লাগবে।

এদিকে, হাবিবুরের পিতা আমলার মিটন গ্রামের ডালিম হোসেন পাষন্ড মোজাম্মেলকে অভিযুক্ত করে থানায় অভিযোগ দাখিল করেছেন। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) আক্তার হোসেন জানান, অভিযুক্ত পলাতক মোজাম্মেলকে আটকের জন্য অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। যে কোন মূল্যে দ্রুতই তাকে আটক করা হবে। এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক বিচার হোক, তাহলেই এমন ঘটনা কমে আসবে বলে মনে করেন সবাই।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts