November 17, 2018

কাশ্মির পরিস্থিতি নিয়ে ভারতীয় সংসদে উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রস্তাব পাস

দিল্লিঃ ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু কাশ্মিরে কারফিউ, সহিংসতা এবং মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে ভারতীয় সংসদে উদ্বেগ প্রকাশ করে আজ সর্বসম্মতিতে এক প্রস্তাব পাস করা হয়েছে।

আজ (শুক্রবার) লোকসভায় এক প্রস্তাব পাস করে বলা হয়েছে ভারতের একতা, অখণ্ডতা এবং জাতীয় নিরাপত্তা নিয়ে কোনো সমঝোতা করা হবে না।

রাজ্যসভায় আগেই কাশ্মির নিয়ে প্রস্তাব পাস করে সেখানে চলমান অশান্তি, সহিংসতা এবং কারফিউ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। এছাড়া সেখানে নিহত ও আহতদের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে জাতীয় নিরাপত্তা নিয়ে কোনো আপোশ করা হবে না বলে অঙ্গীকার করা হয়।

কাশ্মিরে গত ৮ জুলাই হিজবুল মুজাহিদীন কমান্ডার বুরহান ওয়ানি নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত হওয়ার পর গত ৩৫ দিন ধরে থেকে সেখানে সহিংসতা অব্যাহত রয়েছে।

কাশ্বিরে উত্তপ্ত পরিস্থিতি

কাশ্মির পুলিশের তথ্যে প্রকাশ, সেখানে অব্যাহত উত্তেজনার মধ্যে এ পর্যন্ত বিক্ষোভকারী এবং নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে ১১০০ টি সহিংস সংঘর্ষ হয়েছে। এছাড়া কমপক্ষে ৬০ জন নিহত হওয়ার পাশাপাশি ৩ হাজারের বেশি মানুষ আহত হয়েছে। পেলেট গানের ছররা গুলিতে ৪০০ যুবক আহত হয়েছে। যদিও বেসরকারি পরিসংখ্যানে আহতের সংখ্যা আরো অনেক বেশি।

কাশ্মিরের অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি নিয়ে আজ (শুক্রবার) প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সভাপতিত্বে এক সর্বদলীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং সিনিয়র কংগ্রেস নেতা মনমোহন সিং, রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা গুলাম নবী আজাদ, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং, পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ, কংগ্রেস নেতা মল্লিকার্জুন খাড়্গে, ‘সপা’ নেতা মুলায়ম সিং যাদবসহ অন্য নেতারা উপস্থিত রয়েছেন।

এদিকে, আজ জুমাবার উপলক্ষে সহিংস প্রতিবাদ বিক্ষোভের আশঙ্কায় বৃহস্পতিবার গভীর রাত থেকে বিএসএনএল ছাড়া অন্য কোম্পানির মোবাইল পরিষেবা সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। গত ৯ জুলাই থেকে সেখানে একটানা মোবাইল ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ রয়েছে। রেলওয়ে পরিষেবাও বন্ধ।

পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে মুসলিম ধর্মীয় নেতাদের উদ্দেশ্যে এক আবেদনে শুক্রবার জুমা নামাজে উত্তেজক বক্তব্য না দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। মানুষজনকে অবাঞ্ছিত কাজকর্ম থেকে দূরে থাকার জন্যও আবেদন করা হয়েছে।

এদিকে, হুররিয়াত কনফারেন্স নেতারা আজ ১৩ আগস্ট থেকে কাশ্মিরে চলমান বনধ কর্মসূচির মেয়াদ ১৮ আগস্ট পর্যন্ত বাড়িয়ে দিয়েছেন।

আগামী ১৫ আগস্ট ভারতের স্বাধীনতা দিবস। এদিন যাতে শিশুদের স্কুলে পাঠানো না হয় সেজন্য বাবা-মায়েদের উদ্দেশ্যে আবেদন জানিয়েছেন কাশ্মিরি নেতারা। ওই দিন তারা বাড়িতে, দোকানপাট এবং বাজারে কালো পতাকা তোলার আহ্বান জানিয়েছেন। এছাড়া কালো পোশাক বা কালো ব্যান্ড বেঁধে প্রতিবাদ কর্মসূচিরও ডাক দিয়েছেন আন্দোলনকারী কাশ্মিরি নেতারা।সূত্রঃ পার্সটুডে

Related posts