November 21, 2018

কারও ‘পদক’ প্রত্যাহার করা শুভ নয়, বললেন শীর্ষ নেতারা

ঢাকাঃ বিএনপি-জাপাসহ চার বাম দলের শীর্ষ নেতারা বলেছেন, কারও ‘পদক’ প্রত্যাহার করা শুভ নয়-কেন করবে। বৃহস্পতিবার বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাদের সঙ্গে আলাপকালে তারা এ কথা বলেন।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদানের জন্য বীর উত্তম খেতার পেয়েছেন। পরবর্তীতে ‘স্বাধীনতা পদক’ পাওয়াও গৌরবের বিষয়। তবে, কেন প্রত্যাহার করা হবে জানি না। জিয়াউর রহমান স্বাধীনতা পদক কবে পেয়েছেন তা আমার জানা নেই। এই ব্যাপারে আগে জেনে নেই, তারপর আরও বিস্তারিত বলব।

জাতীয় পার্টির সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি বলেন, মন্ত্রী পরিষদের বৈঠকে জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না। জানার পর আমি এ বিষয়ে কথা বলব।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান বলেন, পদক বা পুরস্কার একজন ব্যক্তি বা সংস্থার ব্যক্তিগত কিংবা গোষ্ঠীগত স্বার্থের ঊর্ধ্বে ওঠে জাতীয় স্বার্থ, মানব কল্যাণ কিংবা মানব মুক্তির পথ নির্দেশক হিসেবে লিখনী কার্যক্রম বা সংগ্রামের স্মারক হিসেবে দেয়াটা ব্যঞ্জনীয়। এতে ভাল কাজে ব্যক্তি প্রণোদনা, উৎসাহ উদ্দীপনা বৃদ্ধি পায়, তেমনি মঙ্গল কাজে সমাজের স্বীকৃতিও মেলে। কিন্তু আমরা যা দেখি অধিকাংশ ক্ষেত্রে পদ-পদবী, পদক, প্রমোশন ইত্যাদি জনগণ বা সমাজের কল্যাণ কাজের বিবেচনায় না হয়ে শাসক গোষ্ঠীর সন্তুষ্টিও তোষামদকারীদের উৎসাহ দানে ব্যবহৃত হয়। ফলে পদক দেয়া কিংবা পদক কেড়ে নেয়া উভয়ক্ষেত্রে সংকীর্ণ দলীয় স্বার্থ। দেশ, গোষ্ঠী স্বার্থ বিবেচনা বর্জনীয়। কারণ তাতে একদিকে মেধা মননের স্বীকৃতি যেমন মেলে না-তেমনি ক্ষমতাবানদের রাগ-বিরাগের আওতামুক্ত ও থাকতে পারে।

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবু জাফর আহমেদ বলেন, যে কারও পদক প্রত্যাহার করা শুভ নয়, কেনইবা প্রত্যাহার করা হবে।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আসম আবদুর রব বলেন, আমি জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে কিছুই জানি না। তাই এ মূহুর্তে কিছুই বলতে পারছি না।

বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পাটির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক বলেন, জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত সরকারের রাজনৈতিক হীনমন্যতার বহি:প্রকাশ। জিয়াউর রহমান একজন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন- এতে কোনো সন্দেহ নেই। বিচারপতিদের অনেক গুরুত্বপূর্ণ রায় রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়। তিনি বলেন, একজন বিচারপতির রায়েরভিত্তিতে কারও স্বাধীনতার পদক প্রত্যাহার করার কোনো যুক্তিকতা নেই।আস

Related posts