September 19, 2018

কাটার মাস্টার মুস্তাফিজকে নিয়ে এটা কেমন খেলা!

স্পোর্টস ডেস্ক: ক্রিকেটবিশ্বে এই মুহূর্তে সবচেয়ে আলোচিত নাম মুস্তাফিজুর রহমান। অভিষেক আইপিএলে আলো ছড়িয়েছেন বাংলাদেশের এই বিস্ময় পেসার, জিতে নিয়েছেন সেরা উদীয়মান ক্রিকেটারের পুরস্কার।

নিজের দল সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে শিরোপা জিতিয়ে দেশে ফিরেছেন কাটার মাস্টার। দুই মাস পর দেশে ফিরেই বিমানবন্দরে পান বিশাল সংবর্ধনা।

বল হাতে বিশ্বে দেশের ভাবমর্যাদা উজ্জ্বল করায় তাকে সংবর্ধনা দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ও স্বয়ং বাংলাদেশ সরকার।

ঢাকায় ফিটনেস পরীক্ষা, ফিজিও ও বিসিবির অন্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে দেখা করে মুস্তাফিজ চলে যান জন্মভূমি সাতক্ষীরার তেঁতুলিয়া গ্রামে।

সেখানে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এলাকার গর্ব মুস্তাফিজকে দেয়া হয় সংবর্ধনা। তেঁতুলিয়ায় গ্রামের বাড়িতে পৌঁছে মুস্তাফিজসহ তার পরিবারকে মিষ্টিমুখ করানোর পাশাপাশি সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা দেয়া হয়।

সাতক্ষীরায় জেলা প্রশাসকের পরিবারের সঙ্গে মুস্তাফিজ সেখানে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক

 
আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দিন মুস্তাফিজ ও তার পরিবারের হাতে একটি স্মারক ও এক লাখ টাকার চেক তুলে দেন।

আর এই সংবর্ধনার একটি  ছবি নিয়েই ভারতের গণমাধ্যম অপপ্রচারে নেমেছে মুস্তাফিজের বিরুদ্ধে। লাজুক মুস্তাফিজের প্রেম নিয়ে যেন চুলকানি শুরু হয়েছে তাদের।

২০ বছর বয়সী কাটার মাস্টার আগেই জানিয়েছেন যে, তার কোনো প্রেমের সম্পর্ক নেই। আন্তজার্তিক পর্যায়ে উঠে আসা মুস্তাফিজকে ঘিরে অনেক তরুণীর ঘুম হারাম হয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার প্রতি প্রেম নিবেদন করলেও তাতে কোনো রকম সাড়া দিতে রাজি নন মুস্তাফিজ।

সাতক্ষীরায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে নিজের সঙ্গে মিষ্টি এবং ফুলের তোড়া নিয়ে স্বপরিবারে কালীগঞ্জের মুস্তাফিজের বাড়িতে হাজির হন জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দিন।

এ সময় মুস্তাফিজের সঙ্গে ছবিও তোলেন তারা। কয়েকটি গ্রুপ ছবিতে মুস্তাফিজের সঙ্গে জেলা প্রশাসক ও তার পরিবারের সদস্যদের দেখা যায়।

এছাড়া একটি সিঙ্গেল ছবিতে মুস্তাফিজের সঙ্গে এক তরুণীকে দেখা যায়। ওই তরুণী জেলা প্রশাসক মহিউদ্দিনের মেয়ে বলে জানা গেছে।

আর এই ছবি নিয়েই মুস্তাফিজের প্রেমের গল্প লিখেছেন ভারতের পত্রিকা এবেলা। বাংলাদেশে ওই ছবি নিয়ে কারও মাথা ব্যথা না থাকলেও ব্যথা শুরু হয়েছে এবেলার।

তারা লিখেছে, ‘মুস্তাফিজুরকে নিয়ে জল্পনা শুরু হয়ে গেছে একটি ছবি দিনের আলো দেখার পরে। ছবিতে দেখা গেছে মুস্তাফিজুরের পাশে রয়েছে একটি মিষ্টি মেয়ে। আর সেই ছবি প্রকাশিত হওয়ার পরেই মুস্তাফিজের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে শুরু হয়ে গেছে চর্চা। এই মেয়েই কি মুস্তাফিজুরের প্রেমিকা? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজছে বাংলাদেশ।’

স্বভাবতই যখন কোনো তারকাকে কাছে পায় মানুষ, তার সঙ্গে ছবি তোলার আগ্রহ সবারই থাকে। মুস্তাফিজও এখন একজন তারকা ক্রিকেটার। তাই অনেকেই তার সঙ্গে ছবি তুলেছেন।

আবার সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও প্রকাশ করা হয়েছে। তাহলে কী সবাই মুস্তাফিজের প্রেমিকা?

কোনো মন্তব্য ছাড়া হঠাৎ করেই কারও ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে খবর প্রকাশ কতটা যৌক্তিক তাও ভাবা দরকার ছিল। এ ধরনের খবরকে অনেকেই চরম বাড়াবাড়ি বলেই উল্লেখ করেছেন।-

Related posts