November 20, 2018

এ্যাম্বুলেন্স চালকদের অবহেলায় বিপাকে রোগীরা!


এ কে আজাদ,
চাঁদপুর প্রতিনিধিঃ
চাঁদপুর ২শ’ ৫০ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি জেনারেল হাসপাতালে এ্যাম্বুলেন্স চালকদের অবহেলায় প্রায়ই বিপাকে পড়তে হয় আশঙ্খাজনক রোগীদের। প্রায় সময়ই চাঁদপুর শহর এবং শহরতলীর ও বিভিন্ন উপজেলা থেকে হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগী ও রোগীর লোকজনের কাছ থেকে এ্যাম্বুলেন্স চালকদের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ পাওয়া যায়। এমন অভিযোগ পাওয়া গেলো গত ৩০ মে সদর উপজেলার ৫নং রামপুর ইউনিয়নে হৃদরোগ আক্রান্ত মুক্তিযোদ্ধা মফিজুল ইসলামের পরিবারের কাছে।

ওই পরিবারের সদস্যরা জানান, ৩০ মে বিকেলে মুক্তিযুদ্ধা মফিজুল ইসলাম হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে পড়লে তারা তাকে চিকিৎসার জন্য চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিয়ে আসেন। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবস্থা আশংঙ্খাজনক দেখে তার উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায়  নেওয়ার জন্য পরামর্শ দেন। ডাক্তারের পরামর্শ পরিবারের লোকজন মুক্তিযোদ্ধা মফিজুল ইসলামকে তাৎক্ষনিক ঢাকায় নেওয়ার জন্য হাসপাতালের দু’টি এ্যাম্বুলেন্স চালক মনির আহমেদ একাদিক বার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি কিংবা তার ফোনে কে বা কারা ফোন দিলো সেটি তিনি জানার প্রয়োজন মনে করেননি।

এমনকি হাসপাতালের আরএমও ডা. মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন এ্যাম্বুলেন্স চালকদেরকে রোগীকে ঢাকা নেয়ার বিষয়ে অবগত করলেও তারা তাতেও কোন গুরুত্ব দেয়নি। তখন স্বজনরা ব্যার্থ হয়ে চালক মফিজ মিয়াকে ফোন দিলে তিনি এ্যাম্বুলেন্সের হরণ নষ্ট বলে এড়িয়ে যান।পরে তারা সরকারি এ্যাম্বুলেন্স না পেয়ে নিরুপায় হয়ে প্রাইভেট এ্যাম্বুলেন্স যোগে রোগীকে ঢাকায় নিয়ে যান।

এ’ব্যাপরে হাসপাতালের তত্তাবধায়ক ডা. প্রদীপ কুমার দত্ত বলেন, গত ৩০ তারিখে চালকদের এমন ঘটনার কথা আমার জানা নেই। আমি বিষয়টি খতিয়ে দেখবে। তিনি বলেন আমাদের হাসাপাতালে দু’টি এ্যাম্বুলেন্স ও তার সাথের দুই জন চালক রয়েছে। তার পরেও যদি তাদের গাফলতির কারনে রোগীদের এমন বিপাকে পড়তে হয় তাহলে’তো সেটি দু:খজনক।

এ’বিষয়ে এ্যাম্বুলেন্স চালক মনির আহমেদের সাথে মোবাইল ফোনে একাধীকবার কল করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। অপর চালক মফিজ মিয়ার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, সেদিন তারা আমাকে ফোন দেওয়ার পর আমি হাসপাতালে গিয়ে তাদের সাথে কথা বলেছি। তারা এ্যাম্বুলেন্স যোগে রোগীকে ঢাকা নেওয়ার কথা বললে এ্যাম্বুলেন্সের হরণের সমস্যার কথা জানাই। এ’ছাড়াও তখন মনির আহমেদের ডিউটি ছিলো।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি ৮ মে ২০১৬

Related posts