July 18, 2018

এবার আমিরের মন্তব্যে ভারতে তোলপাড়

আমির

ভারতে গত কয়েক মাস ধরে ক্রমবর্ধমান ধর্মীয় অসহিষ্ণুতার সমালোচনায় এবার যোগ দিলেন বলিউডের আরেক আইকন অভিনেতা আমির খান। আমির খানের মন্তব্যের পরপরই দেশজুড়ে সমর্থক ও বিরোধীদের মধ্যে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে শঙ্কিত বলে সোমবার একটি পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আমির খান মন্তব্য করেন। তার স্ত্রী কিরণ রাও এ জন্য প্রয়োজনে দেশ ছাড়তে চাইছেন বলেও সেখানে জানান এই বলিউড তারকা। এ মন্তব্যের জন্য ক্ষমতাসীন দল বিজেপির তোপের মুখে পড়েছেন আমির খান। দিলি্লর অশোক নগরে তার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। দিলি্লর রাস্তায় তার পোস্টার পুড়িয়ে বিক্ষোভ শুরু করেছে বিজেপি সমর্থকরা। আমির খান ও তার পরিবারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এরই মধ্যে তার বাড়িতে পুলিশ নিয়োগ করা হয়েছে। তবে বিজেপির বিরোধিতার মুখে পড়লেও আমিরের পাশে দাঁড়িয়েছেন কংগ্রেস সহসভাপতি রাহুল গান্ধী ও দিলি্লর মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালসহ অনেকে। খবর :বিবিসি, এনডিটিভি, দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া।
একটি পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে ভারতে চলমান ধর্মীয় অসহিষ্ণুতায় শঙ্কিত হয়ে পড়ছেন বলে যখন আমির মন্তব্য করেন, তখন ক্ষমতাসীন দল বিজেপির একজন সিনিয়র মন্ত্রী অরুণ জেটলি ওই মঞ্চেই ছিলেন। আমির খান বলেন, তিনি এবং কিরণ জীবনের পুরোটা সময় ভারতে কাটিয়েছেন। বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রথমবারের মতো কিরণ বলছেন, সন্তানদের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনে তাদের দেশের বাইরে যাওয়ার কথা ভাবা উচিত।
অসহিষুষ্ণতার বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ায় বিজেপি ও কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনার মুখে পড়লেন আমির খান। বিজেপির মুখপাত্র শাহনওয়াজ হোসেন বলেছেন, ‘এমন মন্তব্য করে আমির দেশের বদনাম করেছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমির ভুলে যাচ্ছেন, কারা তাকে হিরো বানিয়েছে!’ এদিকে কেন্দ্রীয় সরকারের মন্তব্য, আমির তার ‘ফ্যান’দেরই চটিয়ে ফেলেছেন! দেশের মানুষকে অপমান করেছেন! গতকাল কেন্দ্রীয় সংখ্যালঘু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মুখতার আব্বাস নকভি বলেছেন, ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত রাজনৈতিক প্রচারের হাওয়ায় আমির প্রভাবিত হয়েই ওই মন্তব্য করেছেন। এত দিন এ দেশের যে মানুষজন তাকে সম্মান দেখিয়ে এসেছেন, আমির ওই মন্তব্য করে তাদেরই অপমান করেছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমিরকে দেশ ছেড়ে যেতে দেব না আমরা। তিনি দেশে নিরাপদেই আছেন।’ অসহিষুষ্ণতা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশের পরপরই আমির খানের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা জানালেন হলিউড অভিনেতা ও পরিচালক অনুপম খের। তবে কংগ্রেসের সহসভাপতি রাহুল গান্ধী বলেন, ‘সরকারের বোঝা উচিত_ মানুষ কিসে বিব্রত বোধ করছেন। তার জন্য মানুষের কাছে যাওয়া উচিত সরকারের।’ হুমকি-ধমকি দিয়ে কারও মুখ বন্ধ করা উচিত নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি।
চলতি মাসের শুরুতেই ধর্মীয় অসহিষুষ্ণতার প্রতিবাদ করে বিজেপির তোপের মুখে পড়েছিলেন বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খান। মাসখানেক ধরেই দেশটির খ্যাতিমান লেখক, বিজ্ঞানী, চলচ্চিত্র নির্মাতা, অভিনয় শিল্পীরা নিজেদের কৃতিত্বের জন্য পাওয়া জাতীয় পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করে ভারতজুড়ে ক্রমবর্ধমান ধর্মীয় অসহিষ্ণুতার প্রতিবাদ জানিয়ে আসছেন।
দাদরিতে গো-মাংস খাওয়ার গুজবে বৃদ্ধ আখলাখকে পিটিয়ে খুন করা, সাহিত্য একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত কন্নড় লেখক কালবুর্গিকে গুলি করে হত্যা, দিলি্লর কেরল ভবনের ক্যান্টিনে গরুর মাংস বিক্রির গুজবে পুলিশের তল্লাশি, বিশিষ্ট নাট্যকার-অভিনেতা গিরিশ কারনাডকে হত্যার হুমকিতে বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে।

Related posts