November 15, 2018

এক মেডিকেল কলেজের ৩ ছাত্রীর ‘আত্মহত্যা’

12
ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যের ভিল্লুপুরমে এক মেডিক্যাল কলেজের কুয়ার মধ্যে থেকে ওই কলেজের তিন ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের সূত্রে জানা গেছে, মেডিকেল কলেজের ব্যবস্থাপনায় অসন্তুষ্ট হয়ে ‘আত্মহত্যা’ করেছেন এসভিএস মেডিকেল কলেজ অব ন্যাচারোপ্যাথি অ্যান্ড ইয়োগা সায়েন্স কলেজের স্নাতকের তিন ছাত্রী।

স্থানীয় গণমাধ্যমগুলোতে বলা হচ্ছে, কলেজের কাছেই একটি খামারের কুয়া থেকে গতকাল শনিবার তাঁদের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। প্রাথমিকভাবে পুলিশের ধারণা আত্মহত্যা করেছেন এই তিন মেডিকেল কলেজের ছাত্রী।

পুলিশের বরাত দিয়ে এনডিটিভি জানায়, কুয়ার পাশে একটি সুইসাইড নোট পাওয়া গেছে। সেখানে তাঁরা কলেজের ব্যবস্থাপনা এবং বিশেষ করে কলেজের চেয়ারম্যানকে মৃত্যুর জন্য দায়ী করেছেন।

ঊর্ধ্বতন এক পুলিশ কর্মকর্তা এনডিটিভিকে জানিয়েছেন, ওই সুইসাইড নোটে কলেজ কর্তৃপক্ষের অতিরিক্ত টিউশন ফি আদায় এবং মৌলিক সুযোগ-সুবিধা আদায়ের জন্য ছাত্রদের অবিরাম সংগ্রামের কথা তুলে ধরা হয়েছে। নিহত ছাত্রীরা সুইসাইড নোটে অভিযোগ করেছেন, তাঁদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ফি আদায় করা হতো। সেই ফির পরিমাণ ছয় লাখ টাকা। কিন্তু এজন্য কোনো বিল দেওয়া হতো না।

পুলিশ কর্মকর্তা নরেন্দ্র নায়ারের বরাত দিয়ে সুইসাইড নোটে লেখা কিছু কথা জানিয়েছে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস। নিহত ছাত্রী ই সারানাইয়া, ভি প্রিয়াংকা ও টি মণীষার লেখা সম্মিলিত ওই নোটে লেখা ছিল, ‘আমাদের আত্মহত্যার পর কলেজ চেয়ারম্যান বাসুকি সুব্রহ্মণ্যম বলবেন যে, আমাদের চরিত্র খারাপ ছিল। অনুগ্রহ করে তাঁকে বিশ্বাস করবেন না এবং তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন।

ওই পুলিশ কর্মকর্তা আরো জানান, এই নোটের সূত্র ধরেই তদন্ত কাজ এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ। ইতিমধ্যেই পলাতক কলেজ মালিককে ধরতে অভিযান শুরু করেছেন আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা।

এদিকে নিহত ছাত্রীদের পরিবারের সদস্যরা দাবি করেছেন ওই কলেজের শিক্ষার্থীরা দীর্ঘদিন ধরে কলেজ কর্তৃপক্ষের নির্যাতনের শিকার হচ্ছিল। এক শিক্ষার্থীর বাবা জানিয়েছেন, এটা আত্মহত্যা নয়। তাঁর মেয়েকে খুন করা হয়েছে। তিনি দাবি করেন, তাঁর মেয়েসহ তিনজনেরই পোস্টমর্টেম যেন ভিল্লুরাম হাসপাতালে না করে চেন্নাইতে করা হয়।

অপর এক ছাত্রীর স্বজন জানিয়েছেন, কলেজ কর্তৃপক্ষ ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত ও নির্যাতন করত। এই নির্যাতন সইতে না পেরেই তাঁদের আজ এই পরিণতি হয়েছে।

এর আগে গত ১৯ জানুয়ারি ভারতের হায়দরাবাদে পিএইচডি গবেষক এক দলিত শিক্ষার্থীকে আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে বাধ্য করার অভিযোগে ভারতের কেন্দ্রীয়মন্ত্রী বন্দারু দত্তাত্রেয়ে, হায়দরাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts