September 21, 2018

এক নজরে নারায়ণগঞ্জ

635
বাংলাদেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে হলে নতুন প্রজন্মকে আধুনিক ও যুগপযোগী শিক্ষায় শিক্ষিত করার আহবান জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর ও অর্থনীতিবিদ খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ।
রোববার বিকালে নারায়ণগঞ্জ শহরের দেওভোগ ভূঁইয়ারবাগ এলাকার বিদ্যানিকেতন হাইস্কুলের দশম বর্ষে পর্দাপণ উপলক্ষে দু’দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের শেষদিনের আলোচনা সভার প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।অর্থনীতিবিদ খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ বলেন, দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হলে শিশুদের সত্যিকারের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। পুঁথিগত বিদ্যা একটি শিশুকের প্রকৃত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারে না। এজন্য প্রয়োজন মানবিক শিক্ষা। তাই শিক্ষার্থীদের বই পুস্তকের শিক্ষার প্রতি নজর না দিয়ে একজন মানুষ হিসাবে গড়ে তুলার জন্য সমাজ, খেলাধুলা ও সংস্কৃতিক চর্চা বাড়ানোর প্রতি দৃষ্টি দিতে শিক্ষকদের  প্রতি আহবান জানান তিনি।এছাড়াও রোববার প্রথম পর্বে ২০১৬ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় এবং নবীন শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেয়া হয়। গত ৩০ জানুয়ারি বিদ্যা নিকেতন হাইস্কুলে দশম বর্ষে পদার্পন উপলক্ষে দুই দিন ব্যাপী পিঠা মেলা, চিত্র প্রদর্শনী ও সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও দৈনিক সংবাদের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক কাসেম হুমায়ূনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আফরোজা আকতার চৌধুরী ও দেলোয়ার হোসেন চুন্নু প্রমুখ।

নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও পৌরসভা নির্বাচনে একটি ওয়ার্ডে ভোট গণনায় ব্যাপক কারচুপি ও অনিয়মের অভিযোগ তুলে দায়ের করা মামলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা ৪জন কাউন্সিলর প্রার্থী ও নারায়ণগঞ্জ জেলা নির্বাচন অফিসার সহ ১০জনের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন নারায়ণগঞ্জের একটি আদালত।
রোববার নারায়ণগঞ্জ নির্বাচনী ট্র্যাইবুন্যাল এবং যুগ্ম ও জেলা জজ আদালতের বিচারক উৎপল চৌধুরীর মামলাটি গ্রহণ করে আদালত বিবাদীদের বিরুদ্ধে সমন জারির আদেশ দেন। মামলাটি দায়ের করেন ওই নির্বাচনে মাত্র এক ভোটে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম।
বাদী পক্ষের আইনজীবী নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েল জানান, আদালত মামলাটি গ্রহণ করে বিবাদীদের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন।
মামলায় বিবাদী করা হয়েছে নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে নির্বাচিত হওয়া নাঈম আহম্মেদ, মাইনউদ্দিন মেম্বার, শামীম মীর, আহসান জামিল ভূইয়া, কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার ইয়াছিনুল হক, প্রধান নির্বাচন কমিশনার, সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাচন অফিসার, নারায়ণগঞ্জ জেলা নির্বাচন অফিসার, রিটার্নিং অফিসার সোনারগাঁও পৌরসভা নির্বাচন ও নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসককে।
মামলায় জাহাঙ্গীর আলম অভিযোগে উল্লেখ করেন, গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর সোনারগাঁও পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনে জাহাঙ্গীর আলম পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী ছিলেন। ওই নির্বাচনে নাঈম আহম্মেদ, মাইন উদ্দীন মেম্বার, শামীম মীর ও আহসান জামিল ভূইয়া কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করেছেন। যে ওয়ার্ডের কেন্দ্র ছিল গোয়ালদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। মোট ভোটার ছিল ২৫৮১ জন। মোট ভোট কাস্ট হয় ২১৪২। ওই নির্বাচনের দিন জাহাঙ্গীর আলমের এজেন্টকে অলিখিত রেজাল্ট শীটে ও অন্যান্য অলিখিত কাগজে স্বাক্ষর নেয়। নির্বাচনে ভোট গ্রহনের আগেই তার এজেন্টকে কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া হয়। প্রার্থীরা প্রিজাইডিং অফিসারের সাথে যোগসাজসিকভাবে অনিয়ম ও কারচুপি করে। এ বিষয়ে পুনরায় ভোট গণনার আবেদন করা হলেও গ্রহণ করা হয়নি। নির্বাচনে জাহাঙ্গীর আলমের পাঞ্জাবী প্রতীকে ৫৩৮ ভোট ও নাঈম আহম্মেদকে টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে ৫৩৯ ভোট দেখিয়ে বেআইনীভাবে নির্বাচিত দেখানো হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে সোনারগাঁ পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করা নারায়ণগঞ্জ জেলা নির্বাচন অফিসার তারিফুজ্জামান জানান, আমরা তো আর গণনার সময় ভোটকেন্দ্রে যাই না। তখন ভোটকেন্দ্রে থাকেন প্রিজাইডিং অফিসার সহ অন্যরা। নির্বাচনী ট্রাইব্যুনাল আমাদের কাছে জানতে চাইলে সিলগালা করা বস্তা আদালতে নেয়া হবে। আদালত তখন বস্তা খুলে গণনা শেষে সিদ্ধান্ত দিবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা হেফাজতে ইসলামের আমির ও ডিআইটি রেলওয়ে কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আব্দুল আউয়াল সহ হেফাজত ও বিএনপির ৬৫ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে নাশকতার মামলায় বিচারিক কার্যক্রম শুরু করেছেন আদালত। সোনারগাঁও থানায় দায়ের হওয়া একটি মামলায় রোববার ৬৫ জন নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেছেন নারায়ণগঞ্জ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম এর আদালত। একই সঙ্গে যে সব আসামী আদালতে উপস্থিত ছিলেন না তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।মাওলানা আব্দুল আউয়ালের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শরীফুল ইসলাম শিপলু বলেন, মামলায় আদালত আসামীদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেছেন। আগামী ১৯ এপ্রিল সাক্ষ্য গ্রহনের দিন ধার্য্য করেছেন আদালত। আশা করি দ্রুত সাক্ষ্য গ্রহন ও যুক্তিতর্ক শেষ করে আদালত রায় দিবেন এবং সেই রায়ে আশা করি আসামীরা খালাস পাবেন।মামলা সূত্রে জানাগেছে, ২০১৩ সালের ৬মে হেফাজত ইসলামের নেতাকর্মীরা সোনারগাঁও কাঁচপুর এলাকায় সড়কে অবস্থান নেয়। ওই দিন রাস্তা অবরোধ করে হেফাজত নেতাকর্মীরা গাড়ি ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ, পুলিশ ফাঁড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। পুলিশের সঙ্গে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটে।  ওই ঘটনায় সোনারগাঁও থানায় কাঁচপুুর হাইওয়ে থানার পরিদর্শক সোহেল আহম্মেদ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।ওই মামলায় আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হয়। চার্জশিটে আসামী করা হয় মাওলানা আব্দুল আউয়াল, মাওলানা আব্দুল কাদির, মুফতি মাওলানা আজিজুল হক, মাওলানা আব্দুর রহমান, মাওলানা ইব্রাহীম, মাওলানা আবু সায়েম খান, মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম, মাওলানা মফিজুর রহমান, সোনারগাঁও থানা যুবদলের নেতা শহিদুর রহমান স্বপন, বিএনপি নেতা শাহজাহান মেম্বার, বজলুর রহমান, স্বেচ্ছাসেবকদলের আহ্বায়ক সালাউদ্দীন সালু, ছাত্রদল নেতা ওমর ফারুক টিটু, ওসমান গনি রিতু সহ ৬৫ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হয়। রোববার আদালত চার্জ গঠন করেন।

নাশকতা সহ ফৌজদারী মামলায় অভিযুক্ত থাকায় বহিস্কৃত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ আগামী ৬ মাসের জন্য আবারও কাউন্সিলরশীপ ফিরে পেয়েছেন।৩০ নভেম্বর  স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে খোরশেদের কাউন্সিলরশীপ পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। পরে খোরশেদ হাইকোর্টে আপিল করেন।খোরশেদের আইনজীবী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার জানান, রোববার বিচারপতি সৈয়দ দস্তগীর হোসেন ও একেএম শাহিদুল ইসলামের সমন্বয়ে হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বে  প্রদত্ত আদেশে খোরশেদের কাউন্সিলরশীপ বাতিলের বিষয়টি ৬ মাসের জন্য স্থগিতাদেশ প্রদান করে।

ষাটোর্ধ্ব বয়সী স্বামী সন্তানহীন অসহায় হিন্দু নারীর জমি রাতের আঁধারে দখল করার অভিযোগে রোববার (৩১ জানুয়ারি) নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে ভুক্তভোগী ও হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতারা।রোববার সকাল সাড়ে ১১টায় বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শংকর সাহার নেতৃত্বে প্রথমে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক আনিছুর রহমানের কাছে স্মারকলিপি দেয়া হয়। পরে দুপুর সাড়ে ১২টায় নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার ড. খন্দকার মহিদউদ্দিনের কাছে স্মারকলিপি দেয়া হয়। এসময় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার উভয় এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন।
স্মারকলিপিতে উল্লেখ করেন, নারায়ণগঞ্জ পাইকপাড়া শাহ সূজা রোড এলাকার আমিনা মঞ্জিলের তৃতীয় তলার ভাড়াটিয়া মৃত রাধা গোবিন্দ পালের স্ত্রী উপাসনা পালের (৬৫) স্বামীর ওয়ারিশ সূত্রে মালিক হওয়া পারিবারিক শশ্মান রাতের আঁধারে সাহেদ আলী জোর করে দখল করে। এ কাজে বাধা দিতে গেলে প্রাণ নাশের হুমকি দেয় সাহেদ আলী ও তার লোকজন। এর প্রেক্ষিতে গত  ১৭ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ সদর থানায় সাধারণ ডায়রী করা হয়েছে। ভুক্তভোগী উপসনা পাল (৬৫) বলেন, ‘আমার স্বামীর একমাত্র সম্বল ওই জায়গাটি। তাও এখন ভূমিদস্যু সাহেদ আলী দখল করে নিয়েছে। আমার এমন কিছু নেই তার বিরুদ্ধে কোন কিছু করবো। আপনারা সাহায্য না করলে আমার আর কিছু করতে পারবো না।’এসময় উপস্থিত ছিলেন, ভুক্তভোগী উপসনা পাল, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি শংকর সাহা, সাধারণ সম্পাদক সুজন সাহা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কমলেশ সাহা, সদস্য তপন ঘোষ, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা দেবাশীষ ঘোষ, জাগো হিন্দু পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি কৃষ্ণ দাস কাজল, সহ সভাপতি অজয় সূত্রধর, সাধারণ সম্পাদক সুজন দাস প্রমুখ।

নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জের আইলপাড়ায় সাত ঘোড়া (সেভেন হর্স) সিমেন্ট কারখানার ক্রেন বেল্ট অপারেটর বিল্লাল হোসেন (৩৮) নামের এক শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনায় ভাঙচুর করেছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। নিখোঁজের পর রোববার সকাল ১১টায় আইলপাড়ায় শীতলক্ষ্যা নদীর তীর থেকে পুলিশ বিল্লাল হোসেনের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ১০০ শয্যা বিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে।বিল্লাল হোসেন আইলপাড়া এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে। নিহতের মাথায় আঘাতের দাগ রয়েছে।পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষেরদ সাবেক নেতা ও আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি নুরে আলম সিদ্দিকীর মালিকাধীন আইলপাড়ার সাত ঘোড়া (সেভেন হর্স) সিমেন্ট কারখানার ক্রেনের কনবেয়ার বেল্ট অপারেটর বিল্লাল হোসেন শনিবার বেলা ২টায় কাজে যোগ দেয়। রাত ১০ টার পর থেকে বিল্লাল হোসেন নিখোঁজ হয়। রাতভর বিল্লাল হোসেনর আত্মীয়-স্বজনারা তাকে খোঁজাখুজি করে। রোববার সকালে বিল্লাল হোসেনের লাশ শীতলক্ষ্যা নদীর কারখানার জেটি সংলগ্ন এলাকায় দেখতে পেয়ে স্থানীয় জনতা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ বেলা ১১টায় লাশ উদ্ধার করে। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে কয়েকশ ক্ষুব্ধ জনতা একত্রিত হয়ে সেভেন হর্স (সাত ঘোড়া) সিমেন্ট কারখানার নিরাপত্তা অফিস কক্ষের কাঁচ ভাংচুরসহ আশপাশের জানালার কাঁচ ভাংচুর করে। পরে তারা সিমেন্ট বহনকারী ৬-৭টি গাড়ির কাঁচ ভাংচুর করে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। খবর পেয়ে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি সরাফতউল্লাহ জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ঘটনাটি হত্যাকান্ড। তবে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার মৃত্যুর আসল কারণ জানা যাবে। তিনি আরও জানান, নিহত বিল্লাল হোসেনের সঙ্গে বৃহস্পতিবার একই কারখানার কর্মচারী সুজনের সঙ্গে ঝগড়া হয়েছিল। ঝগড়ার সূত্র ধরেই ঘটনাটি ঘটেছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাবাসাবাদের জন্য ৮ জনকে থানায় আনা হয়েছে।
নিহত বিল্লাল হোসেনের পিতা আবুল হোসেন জানান, আমার ছেলের কোন শত্রু ছিল না। আমার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। আমি এ হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচার চাই।

সেভেন হর্স কারখানার ডিজিএম সেলিম রেজা জানান, ক্রেনের বেল্ট অপারেটর বিল্লাল হোসেন কিভাবে মারা গেছে, তা আমরা জানি না। সকালে তার লাশ উদ্ধারের পর উত্তেজিত জনতা কারখানার নিরাপত্তা প্রহরীর অফিস কক্ষের জানালার কাঁচ ও আমাদের ৬-৭টি গাড়ির কাঁচ ভাঙচুর করেছে। তিনি আরও জানান, সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত কারখানার উৎপাদন বন্ধ ছিল।
নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মোখলেছুর রহমান জানায়, ঘটনাটি প্রাথকিভাবে হত্যাকান্ড হিসেইে মনে হচ্ছে। তবে বিষয়টি তদন্ত করে করা দেখা হচ্ছে।

সিদ্ধিরগঞ্জে মাদ্রাসায় হামলার ঘটনাকে ‘মিথ্যা ও বানোয়াট’ দাবী করে সংবাদ সম্মেলন করেছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মিয়া। রোববার বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জপুলস্থ সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি রিয়াজউদ্দিন রেনু, আবু বকর সিদ্দিক, তাজিম বাবু, এম এ বারী, আ লিক শ্রমিকলীগ সভাপতি আব্দুস সামাদ বেপারী, থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হক রাজু ও নাসিক কাউন্সিলর শাহজালাল বাদল প্রমুখ।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মিয়া বলেন, চাঁদার দাবিতে মাদ্রাসায় হামলা ও প্রিন্সিপালকে মারধরের ঘটনায় তাকে জড়িয়ে সংবাদ প্রচার করার ঘটনাকে সু-পরিকল্পিত চক্রান্ত। সংবাদটি মিথ্যা ও বানোয়াট। নিজেকে ধর্মভীরু উল্লেখ করে তিনি বলেন, কোন মুসলমান এমনকি একজন সচেতন মানুষও কোন ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও কোন শিক্ষককে মারধর করতে পারে না। পত্রিকায় উল্লেখিত মাদ্রাসার পাশ  দিয়ে যাওয়া রাস্তায় মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ বিল্ডিংয়ের ছাদ করায় এলাকার লোকজনের অসুবিধা হচ্ছে। এলাকাবাসী আমার কাছে এ অভিযোগ করলে আমি ব্যাপারটি মীমাংশা করতে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি এলাকাবাসীর সাথে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের বাদানুবাদ চলছিল। এক পর্যায়ে তা চরম আকার ধারণ করে। তিনি উল্লেখ করেন, এক পর্যায়ে মাদ্রাসার কিছু উশৃঙ্খল ছাত্র এলাকাবাসীর উপর চড়াও হওয়ায় পরিস্থিতি আমার নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। এসময় আমি উক্ত স্থান ত্যাগ করি। এসময় মাদ্রাসার ছাত্ররা মফিজুল ইসলাম মজু নামে একজনকে মারধর করতে থাকায় আমি এ ব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসিকে ফোন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করি। মাদ্রাসার ছাত্ররা মফিজুল ইসলাম মজুকে মেরে রক্তাক্ত করে মাদ্রাসায় আটকে রাখায় পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে মজুকে উদ্ধার করে।সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে ইয়াছিন মিয়া জানান, আগামী বুধবার থানায় মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের সাথে এলাকাবাসীর সমঝোতা বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। সংবাদ সম্মেলন চলাকালে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের প্রায় দেড় শতাধিক নেতা-কর্মী রাজাকার ও জামাত-শিবিরের বিরুদ্ধে শ্লোগান দিতে দেখা গেছে।

আরএমজি সেক্টরে চলমান সমস্যা নিরসনে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের সাথে, বাণিজ্যমন্ত্রী, শিল্পমন্ত্রী, বিকেএমইএ, বিজিএমইএ, ও বিটিএমইএ নেতৃবৃন্দের সাথে সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় বিকেএমইএ সভাপতি সেলিম ওসমান ২০১৫-১৬ অর্থবছরে নগদ সহায়তার হার ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৪ শতাংশ করার সিদ্ধান্ত পুর্ণনির্ধারণ করে পুনরায় ৫ শতাংশ করার দাবি জানিয়েছেন। সেই সাথে নগদ সহায়তা প্রদানের ক্ষেত্রে অডিট সিস্টেম বাতিলের দাবি জানিয়েছেন। পাশপাশি বিজিএমইএ এর পক্ষ থেকে ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে নির্ধারণ করা ৩৫ শতাংশ করপোরেট টেক্স কমানোর দাবি করা হয়েছে।
রোববার(৩১ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টায় তৈরি পোশাক খাতের বিদ্যমান সমস্যা ও তা নিরসনের জন্য অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত-এর সাথে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বিকেএমইএ, বিজিএমইএ ও বিটিএমএ’র এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বানিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এম.পি., অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদ, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেদায়েতুল্লা আল মামুন এনডিসি, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মোঃ নজিবুর রহমানসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
বিকেএমইএ’র পক্ষে উক্ত সভায় অংশগ্রহণ করেন বিকেএমইএ’র সভাপতি এ.কে.এম সেলিম ওসমান এম.পি। এছাড়াও বিজিএমইএ’র সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান এবং বিটিএমএ’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোঃ ফজলুল হক উপস্থিত ছিলেন। সভায় বিজিএমইএ’র পক্ষ থেকে পোশাক খাতের জন্য ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে কর্পোরেট ট্যাক্স শতকরা ৩৫ শতাংশ ধার্য করার কারণে শিল্পোউদ্যোক্তারা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জানিয়ে উক্ত ট্যাক্স হ্রাস করার দাবি জানানো হয়। বিকেএমইএ এবং বিটিএমএ উক্ত প্রস্তাব সমর্থন করেন। একইসাথে এক্ষেত্রে ২০১৪-১৫ ও ২০১৫-১৬ অর্থবছরে কর্পোরেট ট্যাক্স হ্রাসকৃত হারে গ্রহণ করারও দাবি উত্থাপন করা হয়। বিকেএমইএ’র পক্ষে সভাপতি এ.কে.এম সেলিম ওসমান এম.পি বলেন ২০১৫-১৬ সালের বাজেটে নগদ সহায়তার হার স্টেকহোল্ডারদের সাথে কোনো রকম আলোচনা না করেই ৫ শতাংম থেকে কমিয়ে ৪শতাংশ করা হয়েছে। এতে শিল্পোউদ্যোক্তারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে জানিয়ে তিনি নগদ সহায়তার হার ৫শতাংশ পুনঃনির্ধারণ করার আবেদন জানান। অন্যদিকে নগদ সহায়তা প্রদানের ক্ষেত্রে একটি অডিট সিস্টেম চালু করে শিল্পোউদ্যোক্তাদের হয়রানি আরও বৃদ্ধি করা হয়েছে। তাই তিনি নগদ সহায়তা প্রদানের কাঠামোতে অডিট সিস্টেম বাতিল করার অনুরোধ জানান। তিনি আরও বলেন, সাম্প্রতিককালে স্থানীয় ও রাজস্ব অডিট অধিদপ্তর কর্তৃক নিরীক্ষা ও আপত্তির সুপারিশ মোতাবেক ১৮০ দিনের মধ্যে নগদ সহায়তার আবেদন না করে পরবর্তীতে আবেদনের মাধ্যমে উত্তোলিত অর্থের বিষয়ে আপত্তি জানিয়ে আপত্তিকৃত পরিশোধিত (রপ্তানীকারকদের কাছে) নগদ সহায়তার টাকা ফেরৎ প্রদান বিষয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চিঠি আসছে। এর ফলে শিল্প উদ্যোক্তারা নানাভাবে হয়রানির মুখোমুখি হচ্ছে। এমনকি দ্বিতীয় প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের জন্য প্রযোজ্য প্রণোদনার কোথাও ১৮০ দিনের মধ্যে আবেদনের বাধ্যবাধকতা না থাকলেও সেখানেও স্থানীয় ও রাজস্ব অডিট অধিদপ্তর উক্ত বিষয়টি টেনে এনে নানা প্রক্রিয়ায় হয়রানি করছে। এই প্রক্রিয়ায় ৪/৫ বছর আগে নগদ সহায়তার জন্য গৃহীত অর্থ বেশি হওয়ার দাবি জানিয়ে তা ফেরৎ দেওয়ার জন্য মালিকদেরকে নানাভাবে হয়রানি করা হচ্ছে। অথচ দেশীয় সুতার ব্যবহার নিশ্চিত করে বিটিএমএ’র সার্টিফিকেট এবং নির্ধারিত এলসির বিপরীতে প্রসিড রিয়ালাইজেশন-এর ভিত্তি করে নগদ সহায়তা পরিশোধ করার সিস্টেম চালু করা হলে এ ধরনের হয়রানি থেকে শিল্পোউদ্যোক্তারা মুক্তি পেতো। কিন্তু বর্তমান নিয়মের কারণে নগদ সহায়তার অর্থ উত্তোলনের আগে ব্যাংকগুলো প্রায় ৯শতাংশ এর মত সুদ নিচ্ছে এবং অন্যদিকে এর উপর করায়ন করা হচ্ছে। ফলে বস্তুত ৪শতাংশ নগদ সহায়তা দিলেও সব কিছু হিসাব নিকাশ করলে দেখা যায় শিল্পোউদ্যোক্তারা ২ থেকে ২.৫ শতাংশের উপর নগদ সহায়তা পাচ্ছেন না। সভায় এছাড়াও নীটিং ও ডায়িং মেশিন না থাকলে নগদ সহায়তা উত্তোলনের ক্ষেত্রে কিছু কিছু ব্যাংকের আপত্তির কথা তুলে ধরা হয়। এ বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এম.পি. ব্যবসায়ীদের নগদ সহায়তা প্রাপ্তিতে হয়রানি বন্ধের দাবি সমর্থন করে অর্থমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এছাড়াও বিকেএমইএ সভাপতি ইউরো জোনে রপ্তানীর বিপরীতে ২ শতাংশ অতিরিক্ত সহায়তা প্রদানের সিদ্ধান্ত এখনো সার্কুলার আকারে আসেনি জানিয়ে তা অতি সত্ত্বর সার্কুলার করার বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদানের জন্য অর্থমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন। তিনি বলেন, এই সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতেই ইউরো জোনের বিভিন্ন বায়ার-রা ইতোমধ্যেই আমাদের সাথে যোগাযোগ শুরু করেছে।
আলোচনা শেষে মাননীয় অর্থমন্ত্রী ২০১৫-১৬ অর্থবছরে কর্পোরেট ট্যাক্স হ্রাস করার বিষয়টি কীভাবে কাঠামোবদ্ধ করে নির্ধারণ করা যায় তা নিয়ে সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে আলোচনা করে একটি সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রতিশ্রুতি দেন।এছাড়াও নগদ সহায়তা প্রদানে অডিট সিস্টেম বাতিল করে এবং একইসাথে স্থানীয় ও রাজস্ব অডিট অধিদপ্তরের হয়রানী বন্ধ করার বিষয়ে কীভাবে একটি সহজীকরণ পদ্ধতি নির্ধারণ করা যায় তা চূড়ান্ত করার জন্য অর্থমন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদকে দায়িত্ব দেয়া হয়।
সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন এক্সপোটার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি সালাম মুর্শেদী, বিজিএমইএ’র সহ-সভাপতি মাহমুদ হাসান খান বাবু, বিটিএমএ’র সাবেক সভাপতি এ. মতিন চৌধুরী, বিকেএমইএ’র প্রথম সহ-সভাপতি এ.এইচ আসলাম সানি, দ্বিতীয় সহ-সভাপতি মনসুর আহমেদ, প্রাক্তন প্রথম সহ-সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম ও বিটিএমএ’র পরিচালক মোহাম্মদ জামালউদ্দীন।

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় একটি স্কুলের অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীকে কাঁদিয়ে আবার হাসালেন প্রভাবশালী এমপি শামীম ওসমান। বিকাল ৩টার পরিবর্তে অনুষ্ঠান শুরু হয় বিকাল সাড়ে ৪টায়। এর আগে থেকেই স্কুলে বিভিন্ন সাজে সেজে শিক্ষার্থীরা অপেক্ষা করতে থাকে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শামীম ওসমানের জন্য। স্কুলের ভিতরে যেমন শিক্ষার্থীদের ভীড় ছিল তেমনি স্কুলের গেটেও শিক্ষার্থীরা সারিবদ্ধ ভাবে অপেক্ষা করছিল। গেটে অপেক্ষা করা সকল শিক্ষার্থীদের হাতে ছিল গাধা ফুলের পাপড়ি। এছাড়াও শামীম ওসমানকে গার্ড অব অনার দেয়ার জন্যও স্কাউটের শিক্ষার্থীরাও সারিবদ্ধ ভাবে দাড়িয়ে থাকে স্কুলের গেট থেকে প্রায় ২০ গজ দূরে লাইন ধরে।শামীম ওসমানের অপেক্ষার প্রহর শেষ হয় বিকাল সোয়া ৪টায়। গাড়ি থেকে নেমে স্কুলের রাস্তায় প্রবেশ করতে না করতেই শিক্ষার্থীরা সালাম জানায়। গার্ড অব অর্নারের সঙ্গে ফুলের পাপড়ি দিয়ে স্বাগত জানানো হয় শামীম ওসমানকে।বিকাল সাড়ে ৪টায় শামীম ওসমান মে  প্রধান অতিথির আসন গ্রহণের পর পরই শিক্ষার্থীদের আয়োজনে শুরু সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বঙ্গবন্ধুর গান ও অধুনিক গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেন অপেক্ষায় থাকা শিক্ষার্থীরা। এর ফাকে শামীম ওসমান জানিয়ে আয়োজকদের জানিয়ে দেন তিনি চট্টগ্রাম থেকে শনিবারই ফিরেছেন। স্কুলের অনুষ্ঠানের আসার আগেও তিনি আরেকটি অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করে এসেছেন। এজন্য তিনি খুব বেশি সময় দিতে পারছেন না। এজন্যই আয়োজকেরা অনুষ্ঠানের বিভিন্ন আয়োজন বাতিল ঘোষণা করেন এমনকি শেষ পর্যন্ত সকল অতিথিরাও বক্তব্য রাখতে পারেননি।সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলাকালীন সময়ে শামীম ওসমানের কম সময় দেয়ার কারণে মৌ নামে ওই স্কুলের শিক্ষার্থীর নৃত্য পরিবেশনও বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় কর্তৃপক্ষ। যা শুনতে মৌয়ের দু চোখ বেয়ে জল চলে আসে। কিন্তু পরক্ষনে শামীম ওসমান নিজেই মৌকে শেষ নৃত্য পরিবেশন করার অনুমতি দেয়। এতে খুশি হয়ে নৃত্য পরিবেশন করে মৌ।
শনিবার (৩০ জানুয়ারি) বিকালে ভূঁইগড় এলাকার হাজী পান্দে আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরুস্কার বিতরণ উপলক্ষ্যে ওই  সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
এছাড়াও অনুষ্ঠানের শামীম ওসমান শিক্ষার্থীদের কাছে তাদের সমস্যা ও চাহিদা সম্পর্কে জানতে চাইলে স্কুলের শিক্ষার্থীরা শামীম ওসমানের কাছে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিং রুটের উপরে ফুট ওভার ব্রীজ, কম্পিউটার ল্যাব, খেলারমাঠ, এলাকার রাস্তা সহ বিভিন্ন কিছুর দাবি করে। যার প্রেক্ষিতে সব কিছু করে দেয়ার ইচ্ছা পোষন করে শিক্ষার্থীদের মুখে হাসি ফোটান শামীম ওসমান।

অনুষ্ঠানের শামীম ওসমান বলেন, মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজী ও ভূমিদস্যু প্রধান সমস্যা। এসব কিছু দুর করতে সবাই কে এগিয়ে আসতে হবে। এসব কিছুকে সবাই না বলতে হবে। টিনসেডের পরিবর্তে ভবন করে দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। আশা করছি চলতি বছরের মধ্যে ভবনটা হয়ে যাবে।  আমার হাতে আরো ২ থেকে ৩ বছর সময় আছে এ এলাকার সকল স্কুল, কলেজ সহ রাস্তাঘাট করবো।
হাজী পান্দে আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন আহমেদ, নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল, কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মো.জসিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মানিক চাঁন, ইউ নিয়নের সদস্য মো. নজরুল ইসলাম, মো. আশাবউদ্দিন সিকদার, মো. মাসুদ মিয়া, নারী সদস্য রাশিদা বেগম, স্কুলের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) শিশির কুমার বালা সহ স্কুলের অন্যান্য শিক্ষক শিক্ষিক ও শিক্ষার্থীরা।
আইসিটি পার্ক নির্মাণের কাজ অনেকটাই এগিয়ে : জুনায়েদ পলক
নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম : তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহম্মেদ পলক এমপি বলেছেন, ৫ বিলিয়ন ডলার আয়ের লক্ষ্যে সারা বাংলাদেশে আইসিটি পার্ক গড়ে তোলার প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। আইসিটি পার্ক নির্মাণের কাজও ইতিমধ্যে অনেকটাই এগিয়ে গেছে।
রোববার বিকালে আড়াইহাজার উপজেলায় শহীদ মঞ্জুর স্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলার উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি এই কথা বলেন।
মন্ত্রী আরো বলেন, সারা বাংলাদেশের প্রতিটি প্রাথমিক, মাধ্যমিক স্কুল এবং সকল কলেজগুলোকে ডিজিটাল রূপান্তরের কাজ চলছে। ইতিমধ্যে দেশের প্রায় ৫০ ভাগ স্কুল কলেজে কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ গাউসুল আজম, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ শাহজালাল মিয়া,  সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুর রশিদ ভূইয়া প্রমুখ।
খেলায় আড়াইহাজার পৌর সভা একাদশ টাইব্রেকারে হাইজাদি একাদশকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার ললাটি এলাকায় শনিবার রাতে যুবলীগ কর্মী উপর হামলা চালিয়ে পিটিয়ে ও কুপিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করেছে দুবৃত্তরা। এ বিষয়ে রোববার দুপুরে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই যুবলীগ কর্মীর পরিবারের সদস্যরা। সোনারগাঁ থানায় দায়ের করা মামলার বিবরণীতে উল্লেখ করেন, উপজেলার কাচঁপুর ইউনিয়নের ললাটি গ্রামের যুবলীগ কর্মী নজরুল ইসলাম তার ব্যবসায়িক কাজ শেষে বাড়ী ফেরার পথে বস্তল সেতুর উপর তাকে গতিরোধ করে অজ্ঞাত ৫/৭ জনের একদল সন্ত্রাসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্রেসজ্জিত হয়ে তার উপর হামলা চালিয়ে পিটিয়ে ও কুপিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে। তাকে উদ্ধার করে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
আহত যুবলীগ কর্মী নজরুল ইসলাম জানান, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কাচঁপুর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ৮ নং ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী হওয়ায় প্রতিপক্ষ প্রার্থীর ক্যাডাররা আমাকে প্রানে মেরে ফেলার জন্য পূর্ব পরিকল্পিতভাবে হামলা চালিয়েছে। অবলিম্বে হামলাকারীদের চিহিৃত করে গ্রেফতার করে শাস্তির দাবি জানান তিনি।সোনারগাঁ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হারুনুর রশিদ জানান, যুবলীগ কর্মীকে আহত করার ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ নেওয়া হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সিদ্ধিরগঞ্জের নয়াআটির রসুলবাগ এলাকায় গরু ব্যবসায়ী জয়নাল মিয়াকে (৪৮) গুলি করে পৌঁনে ১০ লাখ টাকা ছিনতাই করে নিয়ে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। গুলিবিদ্ধ জয়নাল মিয়াকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গুলিবিদ্ধ জয়নাল মিয়া সিদ্ধিরগঞ্জে নয়াআটির রসুলবাগের মৃত হাসেম বেপারীর ছেলে। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার রাত সাড়ে ১০টায়।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এসআই (উপ-পরিদর্শক) সাখাওয়াত হোসেন জানান, চাচা জয়নাল মিয়া ও ভাতিজা আজিজুর রহমান ৯ লাখ ৭০ হাজার টাকা নিয়ে রাজশাহীতে গরু কিনতে যাচ্ছিলেন। তারা রসুলবাগের নিজ বাসা থেকে বের হওয়ার পর পর একটি প্রাইভেটকার যোগে ৩-৪ জন ছিনতাইকারী চাচা-ভাতিজার গতিরোধ করে। এ সময় ছিনতাইকারীরা চাচা জয়নাল মিয়াকে লক্ষ্য করে গুলি করে। গুলিটি তার পায়ে বিদ্ধ হয়। ভাতিজা আজিজুলকে মারধর করে। পরে ছিনতাইকারীরা তাদের কোমড় থেকে ৯ লাখ ৭০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে চলে যায়। স্থানীয় লোকজন গুলিবিদ্ধ জয়নাল মিয়াকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। তিনি আরও জানান, চাচা-ভাতিজা গরু ব্যবসায়ী। তারা রাজশাহীসহ বিভিন্ন স্থান থেকে গরু কিনে এনে এলাকার হাটগুলোতে বিক্রি করেন।

অপহরণের ৩দিন পর নারায়ণগঞ্জ থেকে অপহৃত শিশু মিমকে (৩) পাবনার সুজানগর থেকে উদ্ধার ও অপহরণকারী মিন্টুকে (৩৫) আটক করেছে পুলিশ। অপহৃত মিম নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লা থানার মমিনুর রহমানের মেয়ে। আটক মিন্টু পাবনার সুজানগর থানার সাতবাড়িয়া গ্রামের মাজেদ আলীর ছেলে।
শনিবার (৩০ জানুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে শিশুটিকে উদ্ধার ও অপহরণকারীকে আটক করা হয়।শনিবার রাত ৯টায় সুজানগর থানার ওসি শাকিল উদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, মিন্টু নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় মিমের বাবা মমিনুরের বাসায় ভাড়া থেকে রিক্সা চালাতো। মিন্টু মমিনুরের কাছে ৫০০ টাকা ধার চেয়ে না পেয়ে রাগ করে বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে মিমকে নিয়ে পাবনায় চলে আসে। এদিকে মিমকে না পেয়ে মিমের বাবা ফতুল্লা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে সুজানগর থানা পুলিশ শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে সাতবাড়িয়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে শিশু মিমকে উদ্ধার ও অপহরণকারী মিন্টুকে আটক করে।

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার গঙ্গানগর এলাকা থেকে সোহান ও শফিক নামে দুই শিশুকে অপহরণ করে নিয়ে গেছে অপহরণকারীরা। এরপর মোবাইল ফোনের মাধ্যমে উভয় পরিবারের কাছে ২৫ হাজার টাকা করে মুক্তিপণ দাবী করছে তারা। আধুনিক প্রযুক্তির সহায়তায় পুলিশ ঘটনা সাথে জড়িত ২ অপহরনকারীকে গ্রেফতার করলেও এখনো উদ্ধার হয়নি দুই অপহৃত শিশু। এ দিকে অপহরনের ২ দিন পেরিয়ে গেলেও উদ্ধার না হওয়ায় অপহৃত শিশুদের পরিবার রয়েছে দুশ্চিন্তায়।
অপহৃত শিশুদের পরিবারের বরাত দিয়ে রূপগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক জাহাঙ্গীর আলম জানান, গত ২৯ জানুয়ারি শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার মুড়াপাড়া ইউনিয়নের গঙ্গানগর এলাকার ওয়াসিমের ছেলে ও স্থানীয় গঙ্গানগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী শফিকুল ইসলাম (৭)ও হাবিবুর রহমানের ছেলে সোহানকে (৪) পিঠা খাওয়ানোর প্রলাভন দেখিয়ে বাড়ীর সামনে থেকে অপহরন করে নিয়ে যায় একদল অপহরনকারী। এরপর শনিবার দুপুর থেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে অপহরনকারীর অপহৃত শিশুদের পরিবারের কাছ তাদের মুক্তিপণ বাবদ ২৫ হাজার টাকা করে দাবী জানিয়ে আসছে। অন্যথায় তাদেরকে জীবনে মেরে ফেলবে বলে হুমকি প্রদান করছে। এ ঘটনায় অপহৃত শিশুদের পরিবারের পক্ষ থেকে ৩১ জানুয়ারি রোববার বিকেলে রূপগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়। পুলিশ অভিযোগের ভিত্তিতে আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে রোববার দুপুরে গঙ্গানগর এলাকা থেকে হাফসা বেগম ও আকলিমা আক্তার নামে দুই অপহরকারীকে গ্রেফতার করে। এদিকে অপহরণের ৪৮ ঘণ্টা অতিবাহিত হলেও এখনো উদ্ধার হয়নি অপহৃত দুই শিশু। এনিয়ে দুশ্চিতায় ও আতঙ্কে রয়েছে অপহৃত শিশুর পরিবারের লোকজন।এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মাহামুদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুই জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপহৃত শিশুদের উদ্ধার ও বাকি অপহরনকারীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

শ্রমিক ছাঁটাই ও শ্রমিকদের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করার জেরে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার কা ন পৌরসভার সিনহা গ্রুপের পৃথা ফ্যাশনে শ্রমিক অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। এতে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে শ্রমিকরা। ৩১ জানুয়ারি রোববার দুপুর ২টা পর্যন্ত কারখানা এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করে। গত ১৭ জানুয়ারী সকালে আগাম নোটিশ ছাড়াই কারখানা বন্ধ ঘোষণা করার প্রতিবাদে কারখানায় শ্রমিক বিক্ষোভ দেখা দেয়। কাজে যোগ দিতে এসে কারখানায় তালা বন্ধ দেখে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে শ্রমিকরা। এসময় তারা সংঘবদ্ধ হয়ে বিক্ষোভ মিছিল করার সময় আন্দোলনরত শ্রমিকদের উপর পুলিশ লাঠিচার্জ করে।
শ্রমিকরা জানান, সিনহা গ্রুপের পৃথা ফ্যাশনে বিভিন্ন সেকশনে অন্তত ৫শ শ্রমিক কর্মরত রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে তাদের মূল ডিউটির বাইরে মালিকপক্ষ কোন ওভারটাইম দিচ্ছিল না। শ্রমিকরা দুই ঘণ্টা ওভারটাইমের জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে বারবার দাবি জানিয়ে আসছিল। শ্রমিকদের দাবির প্রেক্ষিতে গত ১৭ জানুয়ারী ওভারটাইম দেয়ার আশ্বাস দেয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সকালে কাজে যোগ দিতে এসে গেইটে তালা ঝুলতে দেখে শ্রমিকরা। পাশাপাশি গেইটে অনির্দিষ্টকালের জন্য কারখানা বন্ধের নোটিশ ঝুলানো দেখতে পায় তারা। এছাড়া আগে থেকেই সেখানে বিপুল সংখ্যক পুলিশ প্রহরায় রাখে মালিকপক্ষ। এতে শ্রমিকরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা সংঘবদ্ধ হয়ে মিলের সামনে থেকে রূপসী-কা ন সড়কে বিক্ষোভ মিছিল করার সময় আন্দোলনরত শ্রমিকদের উপর অতর্কিত লাঠিচার্জ শুরু করে পুলিশ। লাঠিচার্জে ২০ শ্রমিক আহত হয়।এদিকে কারখানায় হামলা ও ভাংচুরের অভিযোগ তুলে মালিকপক্ষ থানায় অর্ধশত শ্রমিকের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। পাশাপাশি গত শনিবার ৩৫ শ্রমিককে ছাটাই করার নোটিশ ঝুলিয়ে দেয় কারখানার সামনে। শ্রমিক ছাটাই ও থানায় অভিযোগ দায়ের করার জেরে গতকাল রোববার সকাল থেকেই বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা কারখানার সামনে জড়ো হতে থাকে। এসময় শ্রমিকদের মাঝে উত্তেজনা দেখা দেয়।
এ ব্যাপারে কারখানার ইনচার্জ (এডমিন) আজিজুর রহমান শ্রমিক ছাটাইয়ের কথা স্বীকার করে বলেন, পোষাক শিল্পে এখন মন্দাভাব চলছে। লোকসান ঠেকাতে ও কারখানায় নাশকতার আশঙ্কায় তাদের ছাটাই করা হয়েছে। কিন্তু তাদের পাওনা বেতন পরিশোধ করা হবে। এ পর্যন্ত অনেকে তাদের পাওনা বুঝে নিয়ে গেছে। কারখানায় হামলা ভাংচুরের ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তবে শ্রমিকদের কথা ভেবেই কোনো মামলা দায়ের করা হয়নি। তবে কবে নাগাদ কারখানা চালু হবে সে ব্যাপোরে নিশ্চিত করে কোন কিছু বলেননি তিনি।

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে একটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের মাইক্রোবাস (নোহা) চুরি করে ওই প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা প্রহরী পালিয়ে গেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শনিবার রাতের যেকোন সময় উপজেলার কা ন পৌরসভার কেন্দুয়া এলাকার মাসকো গ্রুপ ইন্ডাষ্ট্রিজ নামে একটি প্রতিষ্ঠানে এ চুরির ঘটনা ঘটে।
মাসকো গ্রুপ ইন্ডাষ্ট্রিজের সহকারী ম্যানেজার মল্লিক মনিরুজ্জামান জানান, তাদের প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন কাজে কর্মকর্তাদের আনা নেয়ার জন্য একটি মাইক্রোবাস (নাহা) ক্রয় করেন। শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে চালক ইসমাইল হোসেন মাইক্রোবাসটি মাসকো গ্রুপ ইন্ডাষ্ট্রিজ কারখানার নিরাপত্তা প্রহরী সেলিম রেজার কাছে বুঝিয়ে দিয়ে চলে যান। রাতের যেকোন সময় প্রহরী সেলিম রেজা অজ্ঞাত চোরদের সহযোগিতা নিয়ে মাইক্রোবাসটি চুরি করে পালিয়ে যায়। পরের সকালে মাইক্রোবাস ও নিরাপত্তা প্রহরীকে না পেয়ে চুরির বিষয়টি নিশ্চিত হন কর্তৃপক্ষ। নিরাপত্তা প্রহরী সেলিম রেজা বাগেরহাট জেলার শরনখোলা থানার দক্ষিণ আমরা গাছিয়া এলাকার কাবাজ উদ্দিনের ছেলে। রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল ইসলাম বলেন, এ ধরনের ঘটনার একটি অভিযোগ পেয়েছি। চুরি হওয়া মাইক্রোবাস উদ্ধার ও চুরির ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে।

নোয়াগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. শহিদুল্লাহ সরকারকে অশালীন ভাষা প্রয়োগ করায় এবং আসন্ন নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্ধারন করার লক্ষে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।রোববার উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়নের ধন্দীর বাজারে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শহিদুল্লাহ সরকার। গত ২২ জানুয়ারী নোয়াগাঁও গ্রামে এক শালিশী সভায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ সভাপতি শহিদুল্লাহ সরকারের প্রতি উত্তেজিত হয়ে নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ আসন্ন নির্বাচনে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী ইউসুফ দেওয়ান  হুমকি দিয়ে বলেন দলীয় ভাবে তার সমর্থন না করলে শহিদুল্লাহ সরকারকে  দেখে নিবে এবং তাকে জনসম্মুখে অশালিন ভাষা প্রয়োগ করেছে। এ ঘটনায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ হুমকি দাতা ইউসুফ দেওয়ানের বিচারের দাবীতে প্রতিবাদ সভা করেছে। পরে আসন্ন অত্র ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয়ভাবে কাকে যোগ্য চেয়ারম্যান প্রার্থী করা যায় এ নিয়ে বিশদ আলোচনা করা হয়েছে।
সভায় বক্তারা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে যারা আওয়ামী লীগ দলীয় কর্মকান্ডে ত্যাগ স্বীকার করছে তাদের মধ্যে থেকে আসন্ন এ ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী করতে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের প্রতি দাবী জানান।
এসময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ইয়ানুছ আলী, মো. ফজলুল হক, মো. শফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া, মো. বেলায়েত হোসেন, মো. সিরাজুল ইসলাম, তোবারক হোসেন, আব্দুল মান্নান, ইলিয়াছ মিয়া, মোতালিব ভূঁইয়া, আব্দুল রাজ্জাক, মহিউদ্দিন , মনির হোসেন, আমান উল্্যাহ, জসিম উদ্দিন, ইদ্রিস আলী, নুরে আলম, মো. সেলিম, আব্দুল বাতেন, শফিউদ্দিন মেম্বার, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মো. হানিফ ভূঁইয়া, যুবলীগ নেতা নাজমূল হক, এবিএম রিপন ভূঁইয়া, জহিরুল ইসলাম, মেজবাউদ্দিন মিঠু, আনোয়ার হোসেন মেম্বার, আতাউর রহমানসহ বিভিন্ন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে স্থানীয় কৃষকদের প্রশিক্ষণ শেষে গুটি ইউরিয়া সার ও প্রয়োগ যন্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। রোববার  বিকেলে উপজেলা মিলনায়তনে সার ও প্রয়োগ যন্ত্র বিতরণ করা হয়। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যেগে গুটি ইউরিয়া সার ও প্রয়োগ যন্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লোকমান হোসেন। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতিক)। উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান¡ শাহজাহান ভুইয়া, ভাইস চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হারেজ, ফেরদৌসি আলম নিলা, মুড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব বরকত উল্লাহ, কৃষি অফিসার মুরাদুল হাসান, সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জালাল উদ্দিন, আব্দুল বাতেন প্রমুখ। কৃষি অফিসার মুরাদুল হাসান জানান, প্রথম পর্যায়ে ৫০ জন কৃষককে প্রশিক্ষণ শেষে ২০ কেজী করে গুটি ইউরিয়া সার ও প্রয়োগ যন্ত্র বিতরণ করা হয়। পর্যায়ক্রমে সব এলাকার কৃষকদের মাঝে প্রশিক্ষণ শেষে গুটি ইউরিয়া সার ও প্রয়োগ যন্ত্র বিতরণ করা হবে।

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে আইনশৃংখলা বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার সকালে উপজেলা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লোকমান হোসেন। বক্তব্যে রাখেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতিক), উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান ভুইয়া, ভাইস চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হারেজ, ফেরদৌসি আলম নিলা, ইউপি চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ, আবু হোসেন ভুইয়া রানু,¡ আব্দুল মতিন, গোলজার হোসেন, ব্যারিস্টার আরিফুল হক ভুইয়া, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আল-আমিন দুলাল, সাংবাদিক মকবুল হোসেন, আশিকুর রহমান হান্নান, সাইফুল ইসলাম প্রমুখ। বক্তারা মাদক, মানবপাচার, যৌতুক, ইভটিজিং রোধে জোরালো ভূমিকা ও প্রতিটি এলাকায় মানুষের মাঝে এসব বিষয়ে জনসচেতনামুলক কর্মসুচী পালন করার আহবান জানান।

Related posts