September 24, 2018

একযুগেও বাস্তবায়ন হয়নি নওগাঁর আঞ্চলিক মহাসড়ক


একেএম কামালউদ্দিন
নওগাঁ প্রতিনিধিঃ-
নির্মাণ কাজের উদ্বোধনের পরও বাস্তবে রুপ পাইনি নওগাঁ- নাটোর আ লিক মহাসড়কটি।নির্মাণ কাজের উদ্বোধনের প্রায় দীর্ঘ ১যুগ হলেও মহাসড়কটি নির্মাণ না হওয়ায় ক্ষোভে দানা বাধছে স্থানীয়দের মধ্যে। তাছাড়া মহাসড়কটি নির্মানের জন্য তৎকালীন সময়ে ৭২ কোটি টাকা বরাদ্ধ দেয়া হলেও মাটি ভরাট আর কাঁচা রাস্তা ছাড়া কিছুই হয়নি প্রকল্পের। ঠিকাদারের গাফিলতি আর দূর্নীতির কারণে ভেস্তে যায় প্রকল্পটি । এদিকে মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর আবারো নতুন করে নওগাঁ-নাটোর আ লিক মহাসড়কটি হাতে নিয়েছে। মোট ৪৮ কিলোমিটার রাস্তার জন্য ১৯৩ কোটি টাকা ব্যয় ধরে প্রকল্পটি সড়ক যোগা যোগ ও সেতু মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সূত্র জানায় ,২০০৫সালের ২৮ ডিসেম্বর নাটোরে এক সফরে সাবেক প্রধামন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া নাটোর-নওগাঁ আ লিক মহা সড়কটির নির্মাণ কাজের উদ্ভোধন করেন।

সে সময় নওগাঁ এবং নাটোর সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তর প্রায় এক’শ কোটি টাকা ব্যয় ধরে মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব প্রেরণ করে। সে সময় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় তা বিবেচনা করে একনেকের এক বৈঠকে ৫০ কোটি টাকা প্রকল্প অনুমোদন করে। পরে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ৪৮ কিলোমিটার নওগাঁ-নাটোর মহাসড়ক নির্মাণ কাজ শুরু করেন। ওই প্রকল্পের আওতায় ২০০৮-০৯ অর্থবছরের মধ্যে মহাসড়কে মাটি ভরাট,সড়ক প্রশস্ত করন,ব্রীজ,র্কালভাট নির্মাণের কথা উল্লেখ করা হয়। কিন্তু বরাদ্ধকৃর্ত অর্থে সড়ক ও জনপথ বিভাগের দেয়া নক্সার বাইরে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তাদের মন গড়া নিয়মে মাটি ভরাট ও প্রশস্ত করণ কাজ সম্পুর্ণ করে। তাছাড়া আজও ব্রীজ ,কালভাট নির্মাণ করা হয়নি। এতে সংশ্লিষ্ঠ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কাজ নিয়ে সে সময় নানা প্রশ্ন তুলে স্থানীয়রা। এমনকি কাজ না করেই অর্থ উত্তোলন করা হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

এদিকে, স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, তৎকালিন সময়ে রেল ও যোগা যোগ মন্ত্রণারয়ের সমন্বয়হীনতার কারনে নওগঁ-নাটোর আ লিক মহাসড়ক নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়ে যায়। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আ লিক মহাসড়কটির কোথাও কোন অস্তিত্ব নেই। কিছু কিছু জায়গা দখল করে স্থানীয়রা বাড়িঘর নির্মাণ করে বসবাস শুরু করেছে।সড়কের মাঝখানে অনেকে কলা,পেঁপেঁর বাগান তৈরী ও সবজি চাষও করছে। গরু ছাগলের আস্তানায় পরিণত হয়েছে সড়কটি। নওগাঁর আত্রাই অ লের মানুষ সময় মত ট্রেন না পেয়ে রেল লাইনের ধার দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে। আবার পায়ে হেঁটে যাতায়াত করলেও এ সড়কের কথাও ব্রীজ না থাকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ভ্যান,সাইকেল ও মোটর সাইকেল নিয়ে রেলওয়ে ব্রীজ পারাপার হতে হয়। স্থানীয়রা বলছেন, গত কয়েক বছরে এ ভাবে রেলওয়ে ব্রীজ পারা পার হতে গিয়ে বেশ কয়েকটি দূর্ঘটনা ঘটেছে।

সাহাগোলা গ্রামের মোঃ আবু জাহিদ ডালিম জানান, সড়কটিতে যানবাহন ও চলাচলের উপযোগী না হওয়ায় নাটোর,বীরকুৎসা,মাধনগর, আত্রাই,সাহাগোলা,রাণীনগর এলাকার জন সাধারণকে নাটোর ও রাজশাহী অ রে আবার নাটোর,মাধনগর,নলডাঙ্গাএ লাকার জনসাধারনকে যাতায়াত করতে হয় বাগমারা উপজেলার শিকদারী ভাগনদী-শ্রীপতিপাড়া হয়ে নলডাঙ্গা থানার চেউখালী হয়ে ৪০ কিলোমিটার অতিরিক্ত রাস্তা ঘুরে। আবার আত্রাই, সাহাগোলা, রাণীনগর এলাকার জনসাধারণ আত্রাই সিংড়া ,নাটোর হয়ে ৩৬কিলোমিটার অতিরিক্ত রাস্তা ঘুরে এ কারণে শিক্ষা,স্বাস্থ্য,ব্যবসা-বানিজ্য সহ নানা উন্নয়ন মূখী কাজেও পিছিয়ে পড়েছে এখানকার মানুষরা।

পরিবেশ সামাজিক সচেতন নিয়ে কাজ করা স্থানীয় সংগঠন আস্থা শিশুও মহিলা উন্নয়ন সংস্থার পরিচালক রওশন আরা পারভীন শিলা বলেন, নওগাঁ থেকে নাটোর পর্যন্ত সড়কটি নির্মাণ করা হলে আন্তঃ জেলার সাথে যোগাযোগ উন্নয়ন সম্ভব হবে।তা ছাড়া নওগাঁ-নাটোর ১০০কিলোমিটার দূরত্ব কমে আসবে। অপর দিকে ট্রেনের ওপর চাপ কমে যাবে। সেই সাথে এই অঞ্চলের ব্যবসা-বানিজ্য সম্প্রসারণ ও যোগাযোগের উন্নয়ন হবে। অথচ এই সড়কটি নির্মাণ না করায় এ অ লটি অবহেলিত ও উন্নয়ন বি ত হয়ে পড়েছে।

এদিকে, ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের বাজেট বক্তৃতায় নওগাঁ-৬(আত্রাই-রাণীনগর) আসনের সংসদ সদস্য এলাকার উন্নয়ননের অগ্রদূত, ইসরাফিল আলম সংসদে বলেন, নওগাঁ-নাটোর আ লিক মহাসড়কটি ২০০১সালে সর্ব প্রথম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন। সে সময় আ লিক মহাসড়কটির নির্মাণ ব্যায় ধরা হয় ৭২ কোটি টাকা। এরপর প্রকল্পটি ব্যায়ভার বৃদ্ধি পেয়ে ১৭২ কোটি টাকায় এসে দাঁড়ায়। এরপর ৯০ কোটি টাকা বরাদ্ধ হলেও কোন কাজ না করেই ৭২ কোটি টাকা খরচ হয়ে যায় । কিন্তু আজও এই আ লিক মহাসড়কটি বাস্তবে রুপ পাইনি। মহাসড়কটি নিয়ে ১১বার সংসদে উপস্থাপন করার পরেও প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়নি ।এ সময় সংসদ সদস্য বলেন জোট সরকারের সময় প্রকল্প ঘিরে কোটি কোটি টাকা দুর্ণীতি হওয়ার কারনে বাস্তবায়নে রুপ পাইনি। ইসরাফিল আলম এমপি আরো বলেন,এক’শ কোটি টাকার একটি প্রকল্প নেয়া হলেই নওগাঁ- নাটোর আ লিক মহাসড়ক টি নির্মাণ করা সম্ভম হবে ।

মহাসড়কটি নির্মান হলে ছয় জেলার মানুষের সাথে যোগাযোগ স্থাপন হবে। এবং ঢাকার সাথে এই অ লের মানুষের ৬০ কিলোমিটার দুরত্ব কমে আসবে। নাটোর সড়কও জনপদ অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী জিকরুল ইসলাম বলেন,নাটোর-নওগাঁ আ লিক মহাসড়কটি নির্মাণের জন্য ১৯৩ কোটির একটি প্রকল্প সড়ক যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রনালয়ে প্রস্তাব আকারে পাঠানো হয়েছে ।প্রকল্পটি অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। অনুমোদন হলেই পুনরাই আ লিক সড়কটির কাজ শুরু করা হবে । জিকরুল ইসলাম আরো বলেন, নাটোর-নওগাঁ আ লিক মহাসড়কের নাটোর অংশের ৬ কিলোমিটারের জন্য ৬০ কোটি টাকা বরাদ্ধ ধরা হয়েছে । এর মধ্যে ছোট-বড় তিনটি ব্রীজ রয়েছে । তবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে আন্ত :জেলার মধ্যে যোগাযোগের এক মাইল সৃষ্টি হবে ।

Related posts