September 22, 2018

এই সাত চিকিৎসকের কাছে আপনি কি নিয়মিত যান?

নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা জরুরি। কেননা নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করলে কঠিন অসুখ হওয়ার প্রবণতা অনেকটা কমে যায়। এটি রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে এবং রোগ বৃদ্ধি পাওয়া থেকে রেহাই দেয়। তাই সব সময়ই চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে থাকা প্রয়োজন। কেবল নিয়মিত চেকআপই নয়, জরুরি বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যায় চিকিৎসকের কাছে যাওয়াটাও জরুরি, অনেকেই আছেন সমস্যা নিয়ে হেলফেলা করেন, এটি ঠিক নয়।

তাই সুস্থ থাকতে সব সময়ই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। কিন্তু কোন চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন। স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইট হেলথ গ্রেডস জানিয়েছে সাত ধরনের চিকিৎসকের নাম, যাদের ঠিকানা, ফোন নম্বর কাছে রাখা জরুরি, কেননা এই সাত ধরনের চিকিৎসক অহরহই আমাদের প্রয়োজনে আসেন।

১. শিশুরোগের চিকিৎসক
শিশুদের জন্মের পর থেকেই পেডিয়াট্রিশিয়ানের প্রয়োজন পড়ে। পেডিয়াট্রিশিয়ানরা শিশুদের রোগ নির্ণয় করে এবং চিকিৎসা দিয়ে থাকেন। এরা শিশুদের বিভিন্ন রোগবালাই প্রতিরোধে টিকা দেন। পাশাপাশি বাবা মায়ের বাচ্চাদের প্রচলিত সমস্যাগুলো নিয়ে পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

২. প্রাথমিক সেবাদানকারী চিকিৎসক
প্রাপ্তবয়স্কদের সবারই প্রাথমিক চিকিৎসার প্রয়োজন পড়ে। প্রাথমিক চিকিৎসকরা সাধারণত ব্যক্তিগত বা পারিবারিক চিকিৎসক হন। উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের রোগ বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে। প্রাইমারি কেয়ার চিকিৎসক এসব বিষয়ে আপনাকে প্রাথমিক ধারণাটুকু দিতে পারবেন।

৩. গাইনি চিকিৎসক
সব মেয়েদেরই গাইনি চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার প্রয়োজন পড়ে। নারীর প্রজনন স্বাস্থ্য নিয়ে তারা কাজ করেন। জন্মনিয়ন্ত্রক ব্যবস্থা গ্রহণ, নারীস্বাস্থের সমস্যা, গর্ভধারণজনিত বিষয়-এ সব বিষয়ে গাইনোকোলজিস্টরা চিকিৎসা করেন। পাশাপাশি জরায়ুমুখের ক্যানসারের স্ক্রিনিংও করেন তারা।

৪. ইউরোলজিস্ট/ ইউরোগাইনোকোলজিস্ট
নারী ও পুরুষের ইউরিনারি ট্র্যাক্টের সমস্যাগুলোতে সাধারণত ইউরোলজিস্টরা চিকিৎসা করে থাকেন। এরা পুরুষের প্রজননস্বাস্থ্যের বিষয়গুলো নিয়েও কাজ করেন। নারীদের ইউরোগাইনোকোলজিস্ট দেখানোর প্রয়োজন হয় অনেক সময়। এরা পেলভিক এরিয়া, প্রস্রাবে সমস্যা এগুলো নিয়ে কাজ করেন।

৫. চক্ষু চিকিৎসক
এই চিকিৎসকরা চোখের চিকিৎসা করেন। চোখের চিকিৎসকরা দৃষ্টিশক্তির সমস্যার সমাধান করেন। ৪০ বছরের পর সব লোকেরই একবার চক্ষু বিশেষজ্ঞের কাছে যাওয়া প্রয়োজন। এ ছাড়া প্রবীণদের প্রতিবছর চোখ পরীক্ষা করা জরুরি। এমনকি শিশুদের স্কুলে ভর্তি করার আগে প্রি-স্কুল চেকআপ করা প্রয়োজন।

৬. চর্মরোগের চিকিৎসক
চর্মরোগের চিকিৎসক বা ডার্মাটোলজিস্টরা ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে কাজ করেন। চামড়ায় কোনো পরিবর্তন লক্ষ্য করলে ডার্মাটোলজিস্টের কাছে যেতে হয়। যাদের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা কম এবং যাদের ত্বকে ক্যানসার হওয়ার পারিবারিক ইতিহাস রয়েছে, তাদের নিয়মিত ডার্মাটোলজিস্টের কাছে চেকআপ করা জরুরি।

৭. দন্ত চিকিৎসক
দন্ত চিকিৎসকরা দাত ও মুখের ভেতরকার চিকিৎসা করেন। প্রত্যেকেরই নিয়মিত দাঁতের চিকিৎসকের কাছে যাওয়া প্রয়োজন। শিশুদের নিয়মিত দাঁতের চিকিৎসকের কাছে নেওয়া প্রয়োজন। এ ছাড়া প্রতি ছয় মাস পরপর প্রাপ্তবয়স্কদের একবার হলেও দন্ত চিকিৎসকের কাছে যাওয়া প্রয়োজন।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts