September 23, 2018

ইটভাটার মহিলাদের দেহভোগ করাই ছিল বরকতের নেশা!!

রফিকুল ইসলাম রফিক
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
এবার অসহায় রেলওয়ে কর্মচারী শফিকুল ইসলামকে প্রাননাশের হুমকী দিলেন তার স্ত্রী রেজিযা বেগম। স্থানীয় মেম্বার বরকতউল্লাহ প্রধানের উস্কানিতে এ হুমকী দেয়া হযেছে বলে শফিকুল ইসলাম অভিযোগ করলেন। পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশে ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে এ হুমকী দেয়ায় নিজগৃহে ঘুমাতেও ভয় পাচ্ছেন শফিকুল। অভিযোগ উঠেছে,বরকত মেম্বার তার যৌবনের কাল থেকেই বংশগতভাবেই যৌন লালসায় অভ্যস্ত ছিল। তৎকালীন সময়ে এলাকায় ইটভাটায় সরদারী করার সময়ে সেখানে কর্মরত অসহায় মহিলাদের সাথে জোরপূর্বক দৈহিক মিলনে লিপ্ত হওয়াই ছিল তার নেশা।

উল্লেখ্য,ফতুল্লা ইউপি মেম্বার বরকতউল্লাহ তারই বাড়ীতে একসময়কার ভাড়াটে হিসাবে বসবাসকারী রেলওযে কর্মচারী শফিকুল ইসলামের দ্বিতীয় স্ত্রী রেজিযা বেগমের সাথে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। পরবর্তীতে তার স্বামী শফিকুলের চাকুরীস্থল থেকে পেনশনে পাওয়া ১৩ লাখ টাকা দিয়ে জমি ক্রয় করিয়ে

বরকত মেম্বার কূটচাল দিয়ে রেজিয়ার নামে রেজিস্ট্রি করিয়ে দেয়। এখন রেজিয়া ও বরকতের লীলাখেলা চললেও শফিকুল আপত্ত্বি করায় তাকে বাড়ীছাড়া করার হুমকী দিয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থায় শফিকুল স্থানীয় ব্যাক্তিদের কাছে ধর্না দিযে কোন প্রতিকার না পাওয়ায় ফতুল্লা মডেল অভিযোগ দাযের করেন।

শফিকুল আরো অভিযোগ করেন, বরকত মেম্বার প্রভাবশালী হওয়ায় থানা পুলিশও এ ব্যাপারে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। এখন উল্টো অসহায় শফিকুল ইসলামকে পিটিয়ে এলাকাছাড়া করার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে বরকতউল্লাহগং।

এলাকাবাসী অভিযোগ করেন,বরকত মেম্বারের বিরুদ্ধে নারী সংক্রান্ত একাধিক অভিযোগ  থাকলেও তারা প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ কিছু বলতে সাহস পায় না। তার দুই ছেলে পাভেল ও মহসীনের বিরুদ্ধেও নারী নির্যাতনের অভিযোগ ছিল।

Related posts