November 19, 2018

ইউকে‘তে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই কমিটি নিয়ে দুই ভাগ

ইউকে‘তে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই

নিয়ে আওয়ামী লীগের দুই ভাগ

দলবাজি, দু‘পক্ষে সংঘর্ষের আশঙ্কা।img_20170105_193312

 

 

লন্ডন প্রতিনিধি:

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন যুক্তরাজ্য শাখা গঠন নিয়ে লন্ডনে  আওয়ামী লীগের রাজনীতি স্পষ্টত দুই ভাগ হয়ে পড়েছে। স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি কাওসার মোল্লা এবং পঙ্কজ দেবনাথ এই দুই পক্ষকে লীড দিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

কাওসার মোল্লার সঙ্গে যোগাযোগ করে ঢাবি‘র সাবেক কিছু আওয়ামী পন্থী ও বামপন্থী ছাত্র কিছুদিন আগে যুক্তরাজ্যে ঢাবি অ্যালাইমনাই অ্যাসোসিয়েশন, ইউকে নামে একটি কমিটি গঠন করেন। এ কমিটিতে সভাপতি রহমান জিলানী এবং সলিসিটর আনোয়ার খান সাধারণ সম্পাদক। তাদের কমিটির প্রধান উপদেষ্টা করা হয় ভারতীয় নোবেল বিজয়ী ড. অমর্ত্য সেনকে।

কোম্পানী লিমিটেড হিসেবে একটি লাইসেন্স করে তারা গত ৪ জানুয়ারী কমিটির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করেন। ১৫ জন স্থায়ী পরিচালক নিয়োগ দিয়ে তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাইকে নিজেদের একটি সম্পত্তি হিসেবে ঘোষণা দেন; যেখানে বলা হয়, এই ১৫ জনের ইচ্ছায় সংগঠন চলবে। একইসঙ্গে অতি গোপনে একটি সিলেকশন কমিটি ঘোষণা করেন তারা।

এদিকে, আওয়ামী লীগের আরেকটি অংশ দুইজন সিনিয়র আইনজীবীকে সামনে রেখে পাল্টা রাজনীতি করেন। ব্যারিস্টার আনিস রহমান ওবিই এবং হাবিব রহমানকে সামনে ঠেলে দিয়ে তারা পাল্টা গ্রুপ দাড় করান।

গত ৫ জানুয়ারী ইস্ট লন্ডনের ব্লু মুন সেন্টারে তারা একটি সভা ডাকেন। সেখানে একটি কমিটি গঠনের কথা বলা হলেও মূলত আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ ফারুক একটি কমিটি পকেটে করে নিয়ে আসেন এবং সেই কমিটি তিনি ঘোষণা করেন। সেখানে উপস্থিত শতাধিক সাবেক শিক্ষার্থীর মতামতকে উপেক্ষা করে তাদের পকেট কমিটির সদস্য সাংবাদিককে দিয়ে তারা আহ্বায়ক কমিটির সংবাদ মিডিয়ায় পাঠায়।

এই সভা নিয়ে বাংলাদেশ ল‘ অ্যাসোসিয়েশন ইউকে‘র আওয়ামী পন্থীদের মধ্যেও বিভক্তি দেখা দিয়েছে। পূর্ব লন্ডনের একজন সলিসিটরের নেতৃত্বে কিছু সদস্য সৈয়দ ফারুক পন্থীদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়েছেন অনেক সদস্য।

তাদের সভায় প্রথম বক্তৃতা করেন আওয়ামী লীগের যুক্তরাজ্য কমিটির সভাপতি। সভা শেষে ফেরার পথে সৈয়দ ফারুককে বলতে শোনা যায়, এখন কাজ হবে কেন্দ্রীয় অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের অনুমোদন নেয়া। পঙ্কজ দা (কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা পঙ্কজ দেবনাথ) কথা দিয়েছেন কোনো সমস্যা নেই। আমরাই অনুমোদন পাবো। img_20170105_193326

সৈয়দ ফারুকের এ উক্তি শুনে, লন্ডনের বাংলা পত্রিকার এক সাংবাদিক হেসে উঠেন। তিনি বলেন, এটা কী ইউকে-তে অবস্থানরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীদের নিয়ে স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি?? দুই পক্ষ দুই নেতার পেছনে ছুটবে! এটা অ্যালামনাই‘র কাজ না।

Related posts