December 10, 2018

আ.লীগ-৪০, বিদ্রোহী-১০, স্বতন্ত্র-২

আজ ৩০ ডিসেম্বর নানা ঘটন-অঘটনের মধ্য দিয়ে ২৩৪টি পৌরসভায় ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। এর মধ্যে বাতিল হয়েছে একটি পৌরসভার নির্বাচন। এছাড়া মেয়র প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগের সাতজন আগেই বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আমাদের হাতে ফলাফল এসেছে মোট ৫২টি পৌরসভার। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের ৪০ জন, ১০ জন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এবং স্বতন্ত্র ২ (জামায়াতসহ) জন বেসরকারিভাবে মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন।

সকাল ৮টা থেকে শুরু হয়ে ভোগগ্রহণ চলে বিকেল পর্যন্ত।

বগুড়া : ধুনট পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র হয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এজিএম বাদশাহ। জগ প্রতীকে ৪ হাজার ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত আলিমুদ্দিন হারুন মন্ডল ধানের শীষ নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ৪৬৪ ভোট। এছাড়া আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী শরীফুল ইসলাম খান নৌকা প্রতীকে ১ হাজার ৫০৫ ভোট পেয়েছেন।

রংপুর : বদরগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী উত্তম কুমার সাহা বেসরকারি ফলাফলে নির্বাচিত হয়েছেন। নৌকা প্রতীকে তিনি ৬ হাজার ৯৯২ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী অধ্যাপক আজিজুল হক নারিকেল গাছ প্রতীকে পেয়েছেন ৬ হাজার ১৫ ভোট।

সিলেট : কানাইঘাট পৌরসভা নির্বাচনে নয়টি কেন্দ্রেরই ফলাফল পাওয়া গেছে। বেসরকারিভাবে পাওয়া প্রাপ্ত ফলাফলে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী বিদ্রোহী প্রার্থী মো. নিজাম উদ্দিন ওলিউল্লাহ। নারকেল গাছ প্রতীক নিয়ে তিনি ৩ হাজার ৩৭৮ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী লুৎফুর রহমান নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ৮৯৭ ভোট।

জকিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা খলিল উদ্দিন নৌকা প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৫০৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ফারুক আহমদ আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী (জগ) প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৮৪ ভোট।

গোলাপগঞ্জে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সিরাজুল জব্বার মোবাইল ফোন প্রতীক নিয়ে ৪ হাজার ৫৮২ ভোটে মেয়র হয়েছেন। নারকেল গাছ প্রতীক নিয়ে তার নিকটতম প্রতীদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী আমিনুর রহমান লিপন পেয়েছেন ৩ হাজার ২০৮ ভোট।

মৌলভীবাজার : সদর পৌরসভায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী ফজলুর রহমান ১০ হাজার ৮৫০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ প্রতীকে বিএনপি প্রার্থী ওলিউর রহমান পেয়েছেন ৫ হাজার ৬২৫ ভোট।

খাগড়াছড়ি : সদর পৌরসভায় বিজয়ী হয়েছেন সম্মিলিত নাগরিক কমিটি মনোনীত প্রার্থী (স্বতন্ত্র) রফিকুল আলম। তিনি মোবাইল ফোন প্রতীকে পেয়েছেন ৯ হাজার ৫৪২ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. শানি আলম নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৬২৯ ভোট।

মাটিরাঙা পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শামসুল হক বিজয়ী হয়েছেন। তিনি নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৭ হাজার ৩শ ৩৮ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মো. বাদশা মিয়া ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৩ হাজার ৩শ ৮৫ ভোট।

নোয়াখালী : কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌরসভায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জা বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৯ হাজার ৪২১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন বিএনপি মনোনীত প্রার্থী কামাল উদ্দিন চৌধুরী। ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে তিনি ভোট পান ১ হাজার ৭৫৬টি।

লক্ষ্মীপুর : জেলার রামগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আবুল খায়ের পাটোয়ারি। তিনি নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ১৯ হাজার ৬শ ৫৭ ভোট। প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত রোমান পাটায়ারী পেয়েছেন ২ হাজার ২৩৯ ভোট।

রায়পুর পৌরসভায় বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইসমাইল হোসেন খোকন। তিনি নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ১৩ হাজার ৮৪৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত প্রার্থী এবিএম জিলানী ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৬৯০ ভোট।

নেত্রকোনা : মোহনগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী অ্যাডভোকেট লতিফুর রহমান রতন ভোট পেয়েছেন ৮ হাজার ৮১৬। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হলেন ধানের শীষ প্রতীকের বিএনপি মাহাবুবুন নবী শেখ। তিনি ভোট পেয়েছেন ৪ হাজার ৩৬৪।

দুর্গাপুরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মওলানা মোহাম্মদ আব্দুস সালাম ৭ হাজার ৮৮৪ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ধানের শীষ প্রতীকে বিএনপির প্রার্থী মো. জামাল উদ্দিন পেয়েছেন ৩ হাজার ৩১৮ ভোট।

কেন্দুয়া পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো আসাদুল হক ভুইয়া ৭ হাজার ৭১২ ভোট পেয়ে জয়ী। ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির শফিকুল ইসলাম ২ হাজার ৭৩৫ ভোট পেয়েছেন।

মদনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. আব্দুল হান্নান তালুকদার নারিকেল গাছ প্রতীক নিয়ে ৩ হাজার ৭৯১ ভোট পেয়ে জয়ী। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো. মাশরিকুর রহমান ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৭৫০ ভোট পেয়ছেন।

ফরিদপুর : বোয়ালমারী পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোজাফফর হোসেন বাবলু মিয়া। জগ প্রতীক নিয়ে তিনি ৭ হাজার ৫৭৮ ভোট পেয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির আব্দুস শুকুর শেখ ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫ হাজার ৭৭৪ ভোট।

নগরকান্দা পৌরসভায় বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী রায়হান উদ্দিন মিয়া।

ভোলা : দৌলতখান পৌরসভায় মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জাকির হোসেন তালুকদার। নৌকা প্রতীকে তিনি পেয়েছেন ৬ হাজার ৯৭৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন বিএনপির আনোয়ার হোসেন কাকন।

চট্টগ্রাম : মিরসরাইয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন (নৌকা) ৭ হাজার ২৯৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী এ জেড এম রফিকুল ইসলাম পারভেজ (ধানের শীষ) পেয়েছেন ৮৭৫ ভোট।

রাউজান পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী দেবাশীষ পালিত নৌকা প্রতীকে ২৮ হাজার ১৬২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী কাজী আবদুল্লাহ আল হাসান ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ১২০ ভোট।

রাঙ্গুনিয়ায় আওয়ামী লীগের শাহজাহান শিকদার নৌকা প্রতীক নিয়ে ১২ হাজার ৯৮ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে ২ হাজার ১৫১ ভোট পেয়েছেন।

সন্দ্বীপে আওয়ামী লীগের জাফর উল্লাহ টিটু ২৫ হাজার ৫৪৪ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। মোট ১৫ কেন্দ্রের ঘোষিত ফলাফলে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির আজমত উল্লাহ বাহাদুর পেয়েছেন মাত্র ৫২২ ভোট।

জামালপুর : মেলান্দহ পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীক নিয়ে শফিক জাহেদী রবিন নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি ভোট পেয়েছেন ৯ হাজার ১৪৫। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে বিএনপির হাজি দিদার পাশা পেয়েছেন ৭ হাজার ৩৬০ ভোট।

ঝালকাঠি : নলছিটি পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী তসলিম উদ্দিন চৌধুরী ১৩ হাজার ৪২ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মজিবর রহমান পেয়েছেন ৬৪৫ ভোট।

যশোর : বাঘারপাড়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কামরুজ্জামান বাচ্চু নৌকা প্রতীকে ২ হাজার ৫৪১ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আবু তাহের সিদ্দিকী পেয়েছেন ১ হাজার ৬২১ ভোট। এখানে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকে আব্দুল হাই মনা ১ হাজার ৩১১ ভোট পেয়েছেন।

গাইবান্ধা : সুন্দরগঞ্জে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুল্লাহ আল মামুন বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন। নৌকা প্রতীকে তিনি পেয়েছেন ৪ হাজার ৮৪১ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির মনোনীত প্রার্থী আজাদুল করিম নিপু ধানের শীষ নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৯৯৩ ভোট।

ফেনী : দাগনভূঞা পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ওমর ফারুক খান নৌকা প্রতীক নিয়ে ১১ হাজার ৫৮১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী কাজী সাইফুর রহমান স্বপন ধানের শীষ নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ৩৪৬ ভোট।

পাবনা : ঈশ্বরদীতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ নৌকা প্রতীকে ২৬ হাজার ৯১৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বিএনপির মোখলেছুর রহমান বাবলু পেয়েছেন ৯ হাজার ৩৭২ ভোট।

চাটমোহর পৌরসভায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মির্জা রেজাউল করিম দুলাল জগ প্রতীকে ৩ হাজার ৫৩৮ ভোট পেয়ে মেয়র হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আব্দুল মান্নান পেয়েছেন ২ হাজার ৯০৩ ভোট।

সিরাজগঞ্জ : কাজীপুরে আওয়ামী লীগ (নৌকা) মেয়র প্রার্থী হাজী নিজামউদ্দীন ৭ হাজার ৮২৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুস সালাম।

মাদারীপুর : শিবচর পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আওলাদ হোসেন খান জয়ী হয়েছেন। নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ১০ হাজার ১৩৭ ভোট এবং তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী তোফাজ্জেল হোসেন খান তোঁতা (নারিকেল গাছ) পেয়েছেন ৪৯১ ভোট।

মেহেরপুর : গাংনী পৌরসভায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আশরাফুল ইসলাম ভেন্ডার বেসরকারি ফলাফলে জয়লাভ করেছেন। জগ প্রতীকে তিনি পেয়েছেন সাত হাজার ৩৮০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আহম্মেদ আলী (নৌকা) পেয়েছেন ৫ হাজার ৩৭৮ ভোট।

ঠাকুরগাঁও : রাণীশংকৈলে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আলমগীর সরকার নৌকা প্রতীকে ৪ হাজার ৮৮১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জামায়াতের স্বতন্ত্র প্রার্থী জগ মার্কায় মোকাররম হোসেন ৩ হাজার ৪৯১ ভোট পেয়েছেন।

পীরগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের কসিরুল আলম নৌকা প্রতীকে ৫ হাজার ৭০৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির রাজিউর রহমান রাজু ধানের শীষ মার্কায় পেয়েছেন ৫ হাজার ১৩৬ ভোট।

বরগুনা : সদরে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শাহাদাৎ হোসেন জগ প্রতীকে নিয়ে ৫ হাজার ৮৯৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কামরুল আহসান মহারাজ নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ৭২৮ ভোট।

বেতাগী পৌরসভায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী গোলাম কবির নৌকা প্রতীকে ২ হাজার ১৭৬ ভোট পেয়ে জয়ী। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বিএনপি মনোনীত হুমায়ন কবির পেয়েছেন ১ হাজার ৫৬১ ভোট।

পাথরঘাটা পৌরসভায় আওয়ামী লীগ মনোনীত আনোয়ার হোসেন আকন নৌকা প্রতীকে ৬ হাজার ৬৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মল্লিক আইউব ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ৬৩২ ভোট।

কুষ্টিয়া : মিরপুর পৌরসভায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত হাজী এনামুল হক ৮ হাজার ৯৭১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী আব্দুল আজিজ খান পেয়েছেন ১ হাজার ৫৭৫ ভোট।

ভেড়ামারা পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী আলহাজ শামীমুল ইসলাম ছানা ৭ হাজার ৪৯১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মশাল প্রতীক নিয়ে জাসদ সমর্থিত আব্দুল আলীম স্বপন পেয়েছেন ৩ হাজার ৭০৭ ভোট।

কুমারখালী পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী সামসুজ্জামান অরুণ নৌকা প্রতীক নিয়ে ৮ হাজার ৪৩৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী তরিকুল ইসলাম লিপু পেয়েছেন ২ হাজার ৭১৩ ভোট।

খোকসা পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী হাজী তারিকুল ইসলাম তারিক ৭ হাজার ৭১৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী আল মাসুম মোর্শেদ শান্ত পেয়েছেন ৩ হাজার ২৬৭ ভোট।

বরিশাল : মেহেন্দীগঞ্জে কামাল উদ্দিন খান নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১২ হাজার ৭ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইসলামী আন্দোল সমর্থিত প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন গাজী (হাতপাখা) পেয়েছেন ১ হাজার ৫৬৭ ভোট। বিএনপির প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন দিপেন (ধানের শীষ) পেয়েছেন ১ হাজার ৪৮৬ ভোট।

বানারীপাড়া পৌরসভায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র শীল নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫ হাজার ৩৫৫ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী গোলাম মাহমুদ মাহবুব মাস্টার (ধানের শীষ) পেয়েছেন ৪৩৩ ভোট।

সুনামগঞ্জ : সদর পৌরসভায় নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আয়ুব বক্স জগলুল ১৪ হাজার ৫৩৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী দেওয়ান গনিউল সালাদিন পেয়েছেন ১০ হাজার ৪৩৪ ভোট।

বান্দরবান : সদরে নৌকা প্রতীকে বিজয়ী হয়েছেন মো. ইসলাম বেবী। তিনি পেয়েছেন ৮ হাজার ৭২৯ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির প্রার্থী মিজানুর রহমান বিপ্লব লাঙল প্রতীকে পেয়েছেন ৪ হাজার ৩১ ভোট। এ পৌরসভায় তৃতীয় অবস্থানে থাকা বিএনপির প্রার্থী জাবেদ রেজা ধানের শীষে পেয়েছেন ৩ হাজার ৮২১ ভোট।

লামা পৌরসভায় নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জহিরুল ইসলাম ৬ হাজার ৫৫৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটকম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আমির হোসেন ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ৭৪৮ ভোট।

নারায়ণগঞ্জ : সোনারগাঁ পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জগ প্রতীকে ৯ হাজার ১১১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি পেয়েছেন ৬ হাজার ১৮০ ভোট।

বাগেরহাট : মোড়েলগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী অ্যাডভোকেট মনিরুল হক তালুকদার নৌকা প্রতীকে ৭ হাজার ৮১৯ ভোট পেয়ে জয়ী। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী আব্দুল মজিদ জব্বার ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৩৯৩ ভোট।

দিনাজপুর : বীরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াত নেতা মওলানা মোহাম্মদ হানিফ ৪ হাজার ৫০০ ভোট পেয়ে পুনরায় নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের মোশাররফ হোসেন নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৩ হাজার ৮৪৮ ভোট।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts