September 23, 2018

আ.লীগ ১৫ মিনিট আগে, বিএনপি ১৮ মিনিট পরে!

ঢাকাঃ  ৫ জানুয়ারি ঘিরে আ.লীগ-বিএনপি উভয়েই সমাবেশ কর্মসূচি দিলে তার জন্য ১৯টি শর্ত জুড়ে দিয়েছিল পুলিশ। এর মধ্যে একটি শর্ত ছিল- দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৫টার মধ্যে সমাবেশ শেষ করতে হবে। এই শর্ত অনুযায়ী নির্দিষ্ট সময়ের ১৫ মিনিট আগেই আওয়ামী লীগ সমাবেশ শেষ করলেও বিএনপির সমাবেশ শেষ হয় নির্দিষ্ট সময়ের ১৮ মিনিট পর।

আজকের দিনটিকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি যথাক্রমে ‘গণতন্ত্রের বিজয় দিবস’ ও ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ আখ্যা দিয়ে প্রথমে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের জন্য পুলিশের কাছে অনুমতি চেয়েছিল। পরে দুদলই জানায়, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি না পাওয়া গেলে তারা নিজ নিজ কার্যালয়ে সমাবেশ করবে।

সে মোতাবেক আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে ও রাসেল স্কয়ারে এবং বিএনপি নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে শর্তসাপেক্ষে সমাবেশের অনুমতি পায়।

সমাবেশের শর্তগুলোর মধ্যে ছিল- নির্দিষ্ট সময়ে সমাবেশ শেষ করা, নির্ধারিত এলাকার বাইরে মাইক ব্যবহার না করা, রাস্তাঘাট আটকে যানজট তৈরি না করা, লাঠি বা কোনো ধরনের অস্ত্র বহন না করা, মিছিল করে সমাবেশে না আসা।

দুপুর ২টা ১০ মিনিটে ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের সভাপতিত্বে নয়াপল্টনে  সমাবেশ শুরু করে বিএনপি। বিকেল পৌন ৩টায় দলের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলামের সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে সমাবেশ শুরু করে আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের সমাবেশে সবশেষে বক্তব্য দিতে ওঠেন আশরাফুল ইসলাম। তিনি যখন বক্তব্য শেষ করেন ঘড়ির কাটায় তখন বিকেল পৌনে ৪টা। সে হিসেবে পুলিশের ১২ নং শর্ত অনুযায়ী নির্দিষ্ট সময়ের ১৫ মিনিট আগেই সমাবেশ শেষ করেছে আওয়ামী লীগ। অন্যদিকে বিএনপির সমাবেশে সবশেষে বক্তব্য দেন দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তিনি বক্তব্য শেষ করেন বিকেল ৫টা ১৮ মিনিটে।

নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সমাবেশ শেষ করার শর্ত আওয়ামী লীগ মানলেও ১৯ শর্তের মধ্যে চারটি ভেঙে দুপুর দেড়টা থেকেই আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, প্রজন্ম লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগের বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা সমাবেশে যোগদান করেন।

ডিএমপির ১৯ শর্তের ৮ নং শর্তে বলা হয়, ‘জনসভার নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা নিশ্চিতকল্পে পর্যাপ্ত নিজস্ব সেচ্ছাসেবক (দৃশ্যমান আইডি কার্ডসহ) নিয়োগ করতে হবে।’ দলে দলে আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা সমাবেশে যোগদান করলেও কোথাও স্বেচ্ছাসেবকদের দেখা যায়নি।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts