November 17, 2018

আসামি না হয়েও বিল্লাল এখন জেলে

001

এ কে আজাদ,চাঁদপুর : ‘নামে নামে যমে টানে’- বলে যে প্রবাদটি প্রচলিত রয়েছে তা আবারো সত্য বলে প্রমাণিত হলো চাঁদপুরে। চাঁদপুর জেলার কচুয়া উপজেলার শিংআড্ডা গ্রামের নিরাপরাধ যুবক বিল্লাল পাঠান কোন মামলার আসামি না হয়েও ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক এক আসামির সাথে নামের মিল থাকায় তাকে এখন জেল খাটতে হচ্ছে।

প্রায় ১২ বছর আগে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলায় ডাকাতির প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ পুলিশের হাতে আটক ডাকাত দলের এক সদস্য নিজের নাম বিল্লাল হোসেন মোল্লা, গ্রাম কচুয়া উপজেলার শিংআড্ডা এলাকায় উল্লেখ করলেও এটি ছিলো তার দেয়া ভুয়া ঠিকানা। তার দেয়া ভূল ঠিকানার কারনে নিরপরাধ বিল্লাল এখন জেল খাটছেন।

জনাযায়,২০০৪ সালের ৮ ডিসেম্বর ফরিদগঞ্জ উপজেলার বর্ডার বাজারে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে পুলিশের হাতে অস্ত্রসহ আটক হয় ৬ ডাকাত। পরে পুলিশ তাদের কারাগারে পাঠায়। এদের মধ্যে এক ডাকাত পুলিশের কাছে নিজের প্রকৃত নাম ঠিকানা গোপন করে নিজের নাম বিল্লাল হোসেন মোল্লা, কচুয়া উপজেলার শিংআড্ডা তার গ্রামের বাড়ি উল্লেখ করে। পরে পুলিশের তদন্তে মলার চার্জশীট তৈরি করতে গিয়ে পুলিশ দেখে বিল্লাল হোসেন মোল্লা, পিতা আঃ জব্বার মোল্লা সাং-শিংআড্ডা, উপজেলা কচুয়া, জেলা চাঁদপুর এমন নাম ও ঠিকানা সম্পূর্ণ ভুয়া। তখন তাকে ভাসমান অপরাধী হিসেবে চিহ্নিত করে ওই ডাকাতকে জেল হাজতে রেখেই বিচারকার্য পরিচালনার জন্যে আদালতের কাছে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নূর নবী ভূঁইয়া। এরই মধ্যে ওই ভুয়া নাম ও ঠিকানা ব্যবহারকারী বিল্লাল হোসেন মোল্লা সাড়ে তিন বছর জেলে থাকার পর উচ্চ আদালত থেকে জামিনে বেরিয়ে যায়। এরপর থেকে সে লাপাত্তা। তাকে আর খুজে পাচ্ছেনা পুলিশ। এদিকে ওই ডাকাতি মামলার চুড়ান্ত রায় হয়ে যায়। ডাকাতির মামলায় তাকে ১০ বছর জেল দেয় আদালত।

এরপর ফরিদগঞ্জ থানার ওই ডাকাতি মামলায় ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে বিল্লাল হোসেন পাঠান নামের এই নিরপরাধ ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশ চাঁদপুর কোর্টে চালান দেয়। তিনি গত ৮/১০ দিন ধরে চাঁদপুর জেলা কারাগারে সাজা ভোগ করছেন।

এরই মধ্যে এই ঘটনার প্রতিবাদে এবং বিল্লালের মুক্তির দাবিতে গত বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে নয়টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২ টা পর্যন্ত তার পরিবারের সদস্যরা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সামনে প্রতিকি অনশন পালন করেছে। পরে জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারন সম্পাদক অ্যাডঃ মুজিবুর রহমান ভুইয়া সহ অনান্য নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে ন্যায় বিচার পাওয়ার আশ্বাসের প্রেক্ষিতে তারা অনশন ভঙ্গ করে। বিল্লালের পরিবার জানান, যে সময়ের ডকিাতির ঘটনায় ডাকাত বিল্লাল আটকহন সেই সময় এই নিরপরাধ বিল্লাল প্রবাসে চাকুরীরত ছিল।

Related posts