November 13, 2018

আশরাফই থাকছেন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক


ঢাকাঃ  আগামী ১০ ও ১১ জুলাই আওয়ামী লীগের ২০তম ত্রিবার্ষিক জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এই সম্মেলন সামনে রেখে ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব নিয়ে দলের মধ্যে নানা হিসাব-নিকাশ চলছে। কেন্দ্রীয় কমিটিতে নতুন কারা আসছেন, কে কোথায় ঠাঁই পাচ্ছেন তা নিয়ে চলছে নানা আলোচনা ও গুঞ্জন। তবে কাউন্সিল ঘিরে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা থাকলেও দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে কোনো পরিবর্তন আসছে না। দলীয় সভাপতি হিসেবে বর্তমান সভাপতি শেখ হাসিনা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হবেন তাতে কোনো সন্দেহ নেই। তবে সাধারণ সম্পাদক পদে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের থাকা না থাকা নিয়ে নানা গুঞ্জন থাকলেও শেষ পর্যন্ত এ পদে তিনিই থাকছেন। দলের নির্ভরযোগ্য এবং সৈয়দ আশরাফের ঘনিষ্ঠ একাধিক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

সূত্রগুলো জানায়, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামই দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পছন্দের ব্যক্তি। দলের দুঃসময়ে নেয়া ভূমিকার কারণে কেন্দ্রীয় ও তৃণমূল নেতাকর্মীরাও এ পদে তাকে বেশ পছন্দ করেন। কিন্তু সৈয়দ আশরাফ এ পদে না থাকার বিষয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে দলের শীর্ষ পর্যায়ে জানিয়ে দেন। এতে এবারের কাউন্সিলে সাধারণ সম্পাদক পদে কে আসছেন তা নিয়ে গুঞ্জনের ডালপালা ছড়ায়। সাধারণ সম্পাদক পদের দৌড়ে নামেন দলের একাধিক প্রভাবশালী নেতা। তারা সাধারণ সম্পাদক হওয়ার আগ্রহ ব্যক্ত করে বিভিন্ন মাধ্যমে শীর্ষ পর্যায়ে ‘ম্যাসেজ’ দেন। এসব নেতা সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বিপে গোপনে যতটা সোচ্চার প্রকাশ্যে ততটা নন। তবে সম্প্রতি দলীয় সভাপতির আগ্রহ ও তৃণমূল নেতাকর্মীদের পছন্দের কথা বিবেচনা করে সাধারণ সম্পাদক পদে আরেক মেয়াদে থাকার ব্যাপারে সম্মতি দেন সৈয়দ আশরাফ। এতে সাধারণ সম্পাদকের দৌড়ে থাকা নেতারা অনেকটাই স্তিমিত হয়ে পড়েন।

আওয়ামী লীগের একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা আলাপকালে বলেন, দুইবারের সাধারণ সম্পাদক হলেও সব সময়ই পর্দার আড়ালে থেকেছেন আশরাফুল ইসলাম। সব সময় শেখ হাসিনার নেতৃত্বকে তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন তিনি। আশরাফ মনে করছেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্ব শক্তিশালী হলে আওয়ামী লীগ শক্তিশালী হবে, বাংলাদেশ শক্তিশালী হবে। আর এ বিষয়টি মাথায় রেখে সৈয়দ আশরাফ সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে আওয়ামী লীগে শেখ হাসিনার নেতৃত্ব সুদৃঢ় করেছেন।

শীর্ষ পর্যায়ের বেশ কয়েকজন নেতা বলেন, ২০১৯ সাল পর্যন্ত মতায় থাকতে গেলে আওয়ামী লীগকে যেসব পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে এর জন্য শেখ হাসিনার পাশে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মতো নেতার বেশি প্রয়োজন। ইতঃপূর্বে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সৈয়দ আশরাফ শেখ হাসিনার আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করেছেন। তার বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত কেউ কোনো দুর্নীতি, অনিয়ম বা স্বজনপ্রীতির অভিযোগ তুলতে পারেনি। তা ছাড়া বিরোধী রাজনীতিক এবং সাধারণ মানুষের কাছেও নিজেকে বেশ গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন তিনি। তাই এ পদে আপাতত কেউ নন, সৈয়দ আশরাফই উপযুক্ত ব্যক্তি। আর বিষয়টি অনেকটাই চূড়ান্ত হয়ে গেছে। এখন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়া বাকি পদগুলো নিয়ে দলের মধ্যে আলোচনা চলছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে দলের সভাপতিমণ্ডলীর একজন সদস্য এ প্রতিবেদককে বলেন, আওয়ামী লীগ সম্মেলনের মধ্য দিয়েই নেতা নির্বাচন করে। আওয়ামী লীগকে গতিশীল করতে কাকে নেতা বানানো যায় সেটা কাউন্সিলররা ঠিক করেন। তবে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ইতোমধ্যে যোগ্যতার স্বার রেখেছেন। তিনি গত দুইবার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করতে চেষ্টা করেছেন। আমার জানা মতে, শেখ হাসিনার আস্থাও অর্জন করতে সম হয়েছেন তিনি। তাই এ পদে তিনি প্রায় চূড়ান্ত সে কথা বলা যায়।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/২৫ মে ২০১৬

Related posts