November 15, 2018

আ’লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে একজনকে কুপিয়ে হত্যা!


জাহিদুর রহমান তারিক,ঝিনাইদহ:  ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ছয়াইল গ্রামে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আকামীর হোসেন (৫৮) নামে এক ব্যক্তি ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন। নিহত আকামীর ছয়াইল গ্রামের বেলায়েত হোসেন মীরের ছেলে। সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে আমজাদ মীর, ইয়াকুব হোসেন মীর, জিয়ারুল ইসলাম ও রেজাউল ইসলামের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। বাকীদের কেও ঝিনাইদহ শহরের বিভিন্ন ক্লিনিক ও প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। ইউপি নির্বাচনে দলীয় প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে আজ শুক্রবার সদর উপজেলার পদ্মাকর ইউনিয়নের ছয়াইল গ্রামে সকাল পোনে ৭টার দিকে আওয়ামী লীগের শাহাবুদ্দীন ও ইমাজউদ্দীন গ্রুপের সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সামাজিক ভাবে শাহাবুদ্দীন হচ্ছে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা বিকাশ গ্রুপ ও ইমাজউদ্দীন ইউপি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পাওয়া নিজামুল গনি লিটুর সমর্থক।

ঝিনাইদহ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাসান হাফিজুর রহমান জানান, আসন্ন ইউপি পরিষদ নির্বোচনে দলীয় প্রতিক নৌকা পায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী নিজামুল গনি লিটু। এ নিয়ে পদ্মাকর ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থী লিটু ও বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান বিকাশ সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। তিনি আরো জানান, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের রেশ ধরে শুক্রবার সকালে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর সমর্থকদের সাথে বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থীর সর্মথকদের এ সংঘর্ষ শুরু হয়। খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে ৩ রাউন্ড সটগানে গুলি চালায় বলে ওসি জানান। তিনি দাবী করেন সংঘর্ষে একজন নিহত ও ৫/৬ জন আহত হয়েছেন। এদিকে গ্রাম্য মেম্বর তোরাপ আলী জানিয়েছেন সকালে ছয়াইল গ্রামের তোতা গ্রুপের রেজাউল ইসলামকে মারধর করে প্রতিপক্ষ সাহাবুদ্দিন গ্রুপের লোকজন। এরপর গ্রামের পুর্বপাড়ায় সংর্ঘষ ছড়িয়ে পড়ে।

এসময় সাহাবুদ্দিন গ্রুপের সমর্থক আকামীর (৫৮) নামে এক ব্যক্তি ঘটনাস্থলেই নিহত হন। তাকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। সংঘর্ষে আহত হন উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন। এদের মধ্যে জিয়ারুল ইসলামে নামে একজনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়েছে বলে হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃ শাহনেওয়াজ কাসেম জানিয়েছেন। এদিকে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান বিকাশ কুমার দাবী করেছেন নির্বাচন নয়, গ্রাম্য আধিপত্য বিস্তার করা নিয়ে ঘটনাটি ঘটেছে। ইউপি নির্বাচনের সাথে এর কোন সর্ম্পক নেই।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/০৮ এপ্রিল ২০১৬/রিপন ডেরি

Related posts