September 25, 2018

আমেরিকান ইহুদি আইএসরূপী!

‘অস্ট্রেলীয় আইএস জিহাদি’ হিসেবে পরিচিত জসুয়া রিনে গোল্ডবার্গ মূলত একজন আমেরিকান ইহুদি। সম্প্রতি মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই (ফেডারেল ব্যুারো অব ইনভেস্টিগেশন) ও অস্ট্রেলীয় ফেডারেল পুলিশের যৌথ তদন্তে বিষয়টি উঠে এসেছে। সিডনি মর্নিং হেরাল্ডের এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

অনলাইনে ‘অস্ট্রেলি উইটনেস’ হিসেবে পরিচয় দিয়ে কাজ চালিয়ে আসছিলেন ২০ বছর বয়সী গোল্ডবার্গ। অস্ট্রেলিয়ার পার্থে বসবাসকারী আইএস (ইসলামিক স্টেট) এজেন্ট হিসেবেও পরিচয় ছিল তার। গত সেপ্টম্বরে টুইন টাওয়ারের ঘটনার স্মরণানুষ্ঠানে বোমা হামলার পরিকল্পনার অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা থেকে তাকে আটক করে নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যে পিতামাতার বাসভবনেই থাকতেন গোল্ডবার্গ। সেখানে থেকেই তিনি অনলাইনে নিজেকে আইএস সদস্য পরিচয় নিয়ে পশ্চিমা দেশগুলোতে অনুষ্ঠান ও ব্যক্তির ওপর সিরিজ হামলার আহ্বান জানান।
সম্প্রতি তিনি অনলাইনে দাবি করেন, অন্যান্য জিহাদিদের সঙ্গে তিনি অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রে হামলার পরিকল্পনা করেছেন। ২ পাউন্ড বিস্ফোরকসহ বিভিন্ন বোমার ছবিও পোস্ট করেন তিনি।

অস্ট্রেলিয়ান টাইম পত্রিকার প্রতিবেদনে গোল্ডবার্গ সম্পর্কে বলা হয়েছে, তিনি একজন অমুসলিম এবং সত্যিকার অর্থে চরমপন্থী সংগঠনগুলোর সঙ্গে তার সংশ্লিষ্টতা নেই। বিস্ফোরক, ধ্বংসাত্মক ডিভাইস ও গণবিধ্বংসী অস্ত্র সম্পর্কে তথ্য ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে গত সেপ্টেম্বরে ফ্লোরিডা পুলিশ তাকে নিজ বাসা থেকে আটক করে।

ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়ার সঙ্গে কথোপকথনে গোল্ডমার্ক জানিয়েছেন, তিনি অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সঙ্গে জড়িত। ইসলামফোবিয়া বিরোধী প্রচারক মরিয়ম ভেসজাদেহ’র সঙ্গে তার বন্ধুত্ব রয়েছে বলে দাবি করেছেন গোল্ডমার্ক।
গোল্ডমার্ক জানান, তিনি জিহাদিদের কাছ থেকে কিছুটা দূরে থাকতেন।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর খবর প্রকাশ করা ‘সাইট ইন্টেলিজেন্স’-এর পরিচালক ইহুদি নারী রিতা কাৎজে’র সঙ্গে ব্যক্তিগত যোগাযোগ রয়েছে বলে জানিয়েছেন গোল্ডমার্ক। এ ছাড়া বেশ কয়েকজন গোয়েন্দা কর্মকর্তার সঙ্গে সম্পর্ক থাকার বিষয়টি স্বীকার করেছেন তিনি।

ঠিক কী কারণে নিজেকে আইএস পরিচয় প্রদান করে হামলায় উদ্বুগ্ধকরণ কার্যক্রম চালাতেন তা জানাননি গোল্ডমার্ক।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/মেহেদি/ডেরি

Related posts