September 25, 2018

আমিরকে ফেরানো নিয়ে উভয়সংকটে পাকিস্তান

1aed7be2c41ce9333e4c7ced8e3a7129-pakistan-amir

ভালোই গ্যাঁড়াকলে পড়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। এ তো এক রকম ‘বিদ্রোহ’ই। বোর্ডের সিদ্ধান্তকে অমান্য করা। আর তাতে আছেন খোদ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক আজহার আলী। আছেন মোহাম্মদ হাফিজের মতো সিনিয়র ক্রিকেটাররাও। মোহাম্মদ আমিরকে জাতীয় দলে ফেরানোর প্রক্রিয়া নিয়ে যে জটিলতা তৈরি হয়েছে, তা নিয়ে আলোচনা করতে সিনিয়র ক্রিকেটারদের সঙ্গে বসছেন পিসিবি সভাপতি শাহরিয়ার খান।
আমির সেই পুরোনো বিতর্ক আবারও সামনে এনেছেন—অপরাধের শাস্তি ভোগ করে ফেলা অপরাধীকে কীভাবে বরণ করে নেবে সমাজ? স্পট ফিক্সিং কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছিলেন মাত্র ১৯ বছর বয়সে। তবে দ্রুতই নিজের অপরাধ স্বীকার করে নিয়ে এই মামলায় রাজসাক্ষীর ভূমিকা নিয়েছিলেন আমির। তাঁর কারণেই বাকি দুই অপরাধী মোহাম্মদ আসিফ ও সালমান বাটকে দোষী প্রমাণ করা সম্ভব হয়েছিল।

যদিও তিনজনই পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা ভোগ করেছেন। যে নিষেধাজ্ঞা শেষ করে এ বছর আবার পেশাদার ক্রিকেটে বেশ দারুণভাবে ফিরেছেন আমির। পাকিস্তানের ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের পর বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত বিপিএলেও দারুণ বোলিং করে জাতীয় দলের ক্যাম্পে জায়গা করে নিয়েছেন। জাতীয় দল থেকে খুব বেশি দূরেও নেই এই ২৩ বছর বয়সী।
কিন্তু আমির ইস্যুতে পাকিস্তানের বর্তমান ও সাবেক ক্রিকেটাররা দুই ভাগে বিভক্ত। আমিরের বিপক্ষে যাঁরা আছেন, তাঁদের একটি অংশের যুক্তিও বেশ ধারালো। তাঁরা বলছেন, দলে আমিরের উপস্থিতি ঘোলাটে আবহাওয়া তৈরি করবে। এর পর ক্রিকেট ম্যাচে নো বলের মতো খুব সাধারণ একটি ঘটনা নিয়েও কখনো কখনো মানুষের মনে সন্দেহ দেখা দেবে। আবার হাফিজ কিংবা আজহার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন নীতির প্রশ্নে। নৈতিক জায়গা থেকেই। এ কারণে আমির থাকায় জাতীয় দলের ক্যাম্প বয়কট করেছেন এ দুজন।
কিন্তু শাস্তি ভোগ করে ফেরা আমিরকে আবার জাতীয় দলে সুযোগ দেওয়ার পক্ষেই বেশির ভাগ মানুষ। পিসিবিও আমিরের মতো প্রতিভাকে হারাতে চায় না। কিন্তু সবার আগে দলের ঐক্যটাই বড়। এ কারণে শিগগিরই সিনিয়র ক্রিকেটারদের সঙ্গে বসবেন বলে জানিয়েছেন শাহরিয়ার, ‘আমি এরই মধ্যে আমিরের বিষয়টি নিয়ে কয়েক জনের সঙ্গে কথা বলেছি। উদ্বেগের জায়গাগুলো নিয়ে আলোচনা করেছি আমরা। আমি হাফিজ ও আজহারের সঙ্গেও কথা বলে বিষয়টি সমাধান করব।’
বিষয়টি নিয়ে পিসিবি আসলে পড়েছে উভয়সংকটে। তারা কি সিনিয়রদের কথা শুনে আমিরকে বাদ দেবে? নাকি বোর্ডের সিদ্ধান্ত অমান্য করায় দেবে শাস্তি? শাহরিয়ার বলেছেন, ‘ওরা আমাদের চুক্তিবদ্ধ খেলোয়াড়। বোর্ডের সিদ্ধান্ত ওদের মানতেই হবে। আমরা অবশ্যই খতিয়ে দেখব ওদের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে ব্যবস্থা নেওয়া যায় কি না। তবে আমরা চাই বিষয়টি দীর্ঘ মেয়াদের জন্যই যেন সমঝোতাপূর্ণভাবে সমাধান হয়।’
সামনে পাকিস্তানের ব্যস্ত সূচি। জানুয়ারিতে নিউজিল্যান্ড সফর। এর পর বাংলাদেশে এশিয়া কাপ। সেখান থেকে তাদের উড়ে যেতে হবে ভারতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলার জন্য। এ কারণে বিষয়টি দ্রুত সমাধান করতে চায় পিসিবি। কাল রাতে দুই ক্রিকেটারকে পিসিবি সভাপতি ডেকেও পাঠিয়েছিলেন বলে জানা গেছে। পিসিবি সাবেক খেলোয়াড়, সমালোচক ও ধারাভাষ্যকারদের উদ্দেশে দীর্ঘ বিবৃতিও দিয়েছে আমিরের বিষয়টি ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখার জন্য।
পাকিস্তানের টেস্ট অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হকও বিবিসি উর্দুকে বলেছেন, ‘বিষয়টি সরল কিছু নয়। প্রত্যেকের জন্যই এটি জটিল একটি পরিস্থিতি। আমির খেললে সাধারণ মানুষের প্রতিক্রিয়াও কী হবে, তারা কীভাবে এটিকে নেবেন, তাও আমরা জানি না। পিসিবিও বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন। খেলোয়াড়েরা এই তিনজনকেই হয়তো ক্ষমা করে দিয়েছে, কিন্তু প্রতিক্রিয়া কী হবে, সেটাই সবচেয়ে বড় প্রশ্ন। যেকোনো অধিনায়কের ক্ষেত্রেও এ নিয়ে মিডিয়ার প্রশ্ন সামলানো অনেক কঠিন হবে। বিদেশে, বিশেষ করে ইংল্যান্ডে দর্শকেরা কীভাবে প্রতিক্রিয়া দেখায়, সেটাও ভাববার বিষয়।’

Related posts