September 23, 2018

আমরা সকলে মিলে চাঁদপুরকে  নিরাপদ রাখতে চাই : শিক্ষার্থীদের সাথে জেলা প্রশাসক

‡‡‡‡‡
এ কে আজাদ, চাঁদপুর : জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খান বলেছেন, নিরাপদ সড়কের আন্দোলন সকলের কাছেই যৌক্তিক কিন্তু সেই আন্দোলন যদি হয় সহিংস সেই আন্দোলনের ফসল ঘরে তুলা যায় না। এই মাত্র আমাদের সাংসদ সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফোন করে আমাকে জানালেন মানণীয় প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ সড়কের আন্দোলনে তোমাদের সকল দাবী মেনে নিয়েছেন। । বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর বড় পরিচয় হচ্ছে তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা।

তিনি আরো বলেন, তোমরা যে সকল দাবীগুলো উপস্থাপন করেছ সবগুলো দাবীর পক্ষে আমরা সকলেই একমত। এসব বিষয়ে আমরা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কাজ করছি। ইতমধ্যে অনেক কাজ দৃশ্যমান হয়েছে। ইনশাল্লাহ এসব দাবীর বিষয়গুলোও অল্প সময়ের মধ্যে দৃশ্যমান হবে। আমরা আমাদের চাঁদপুরকে সকলে মিলে নিরাপদ রাখতে চাই । গতকাল বৃহস্প্রতিবার বিকালে জেলা প্রশাসনের সভা কক্ষে নিরাপদ সড়কের আন্দোলনে অংশগ্রহন কারী শিক্ষার্থী, পরিবহন মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ, শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দদের সাথে এক সভায় এ কথাগুলো বলেন।

এ সময় আন্দোলন কারী ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের বক্তব্যে বলেন, আমাদের আন্দোলন সরকার বা কোন গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয়। আমাদের আন্দোলন একটি নিরাপদ সড়কের জন্যে। আমরা অস্বাভাবিক ভাবে সড়ক দূর্ঘটনার কবলে পড়ে মত্যু বা পঙ্গুত্ববরণ করতে চাই না। এসময় তারা তাদের ১০টি লিখিত দাবি উত্থাপন করেন। এর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য দাবিগুলো হলো : সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের সকল দায়ভার সরকারকে নিতে হবে, বেপরোয়া ড্রাইভারকে সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রেখে সংবিধানে আইন প্রণয়ন করতে হবে, যানবাহনে সিটের অতিরিক্ত যাত্রী নেয়া যাবে না, চাঁদপুুরের সকল রুটে শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ ভাড়া নিশ্চিত করতে হবে, চাঁদপুরের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে স্পিড বেকার নির্মান করতে হবে। ছাত্র-ছাত্রীদের রাস্তা পারাপারের যথাযথ ব্যবস্থ গ্রহণ করতে হবে, ফিটনেস বিহীন যানবাহন রাস্তায় চলাচল করতে পারবে না, এবং লাইসেন্স বিহীন চালকরা গাড়ি চালাতে পারবে না, ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদানে সকল দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে এবং ট্রাফিক পুলিশের দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে, চাঁদপুর শহরের সকল মোড়ে ট্রাফিক পুলিশের ব্যবস্থা করতে হবে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে হর্ন বাজানো যাবে না এবং শিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে এবং বিভিন্ন সময়ে সরকারি মন্ত্রী-এমপিসহ দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের দায়িত্বহীণ কথাবার্তা বন্ধ করতে হবে এবং ছাত্রদের আন্দোলনে পুলিশী হামলা বন্ধ করতে হবে। এছারা তিন ঘন্টার বেসী কোন ড্রাইভারকে গাড়ী চালাতে দেয়া বন্ধ করতে হবে।

সভায় বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটোয়ারী দুলাল, জেলা বিআরটিএর উপ-পরিচালক শেখ মো. ইমরান, চাঁদপুর প্রেসক্লাব সভাপতি ইবকাল হোসেন পাটোয়ারী, জেলা ছাত্র লীগের সাবেক সভাপতি জাহিদুল ইসলাম রোমান, জেলা ট্রাক-লরি সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল কালাম, ছাত্র-ছাত্রীদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর সরকারি কলেজের ছাত্র সাদ্দাম মাহামুদ ও ফাতেমাতুজ জোহরা।
সভায় উপস্থিত ছিলেন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মির্জা জাকির, জেলা বাস-ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি শাহির হোসেন পাটোয়ারী, ট্রাফিক ইন্সপেক্টর নাছির উদ্দিন ভ‚ইয়া, চাঁদপুর জেলা ছাত্র লীগ সভাপতি আতাউর রহমান পারভেজ, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন চাঁদপুর জেলা শাখার সভাপতি এ কে আজাদ, সাধারণ সম্পাদক তালহা জুবায়ের প্রমুখ।

Related posts