December 11, 2018

আবারো সুন্দরবনের চরে আটকা পড়ল এমভি শোভন!

এমভি শোভন নামের একটি কার্গো জাহাজ ৭৪৫ টন ফ্লাই অ্যাশ (সিমেন্ট তৈরির কাচামাল) নিয়ে শরণখোলা রেঞ্জের মরাভোলা চরে আটকা পড়ে। ১ ডিসেম্বর রাতে ঘন কুয়াশায় দিক হারিয়ে ঢাকার মেসার্স আলমগীর নেভিগেশন কোম্পানির (রেজিঃ নং ঢাকা-এম-৬৪৪৯) ওই জাহাজটি দুর্ঘটনার শিকার হয়।

এই একই চরে এবছরের জুন মাসে দুই হাজার টন সার নিয়ে এমভি জাবালে নূর নামের জাহাজটি দুর্ঘটনার শিকার হয়েছিল।

বনবিভাগ ও এলাকাবাসীর আশঙ্কা, আটকে পড়া জাহাজটি দ্রুত উদ্ধার করা না হলে যেকোনো সময় সেটি ডুবে গিয়ে সুন্দরবন আবার বড় ধরণের বিপর্যয়ের মুখে পড়বে।

শরণখোলা স্টেশন কর্মকর্তা (এসও) এ কে এম ইউসুফ আলম জানান, আটকে পড়া জাহাজের মালিকের নাম মো. শোভন আহমেদ। তার বাড়ি ঢাকার নয়াপল্টন এলাকায়। তিনি আরো জানান, জাহাজের মাস্টারসহ ১০ জন নাবিক সুস্থ ও স্বাভাবিক রয়েছেন। তারা ওই জাহাজেই অবস্থান করছেন।

মের্সাস আলমগীর নেভিগেশন কোম্পানির সুপারভাইজার মো. জয়নাল আবেদীন জানান, ঢাকার মুক্তাপুর আমিরাত সিমেন্ট কোম্পানি ভারত থেকে ৭৪৫ টন ফ্লাইঅ্যাশ আমদানি করে। বোঝাই জাহাজটি সুন্দরবন অভ্যন্তর থেকে গন্তব্যে ফেরার সময় দুর্ঘটনার শিকার হয়। প্রথমে আটকে পড়া জাহাজটি মাস্টার-নাবিকরা স্থানীয়দের নিয়ে নামানো চেষ্টা করে ব্যার্থ হয়। দু-একদিনের মধ্যেই অন্য জাহাজে মাল শিপ্টিং করে ওই জাহাজটি খালি করে উদ্ধারে চেষ্টা করা হবে।

তিনি জানান, আগামী কাল (শুক্রবার) জাহাজ মাষ্টার আ. ওহাবকে শরণখোলা থানায় এব্যাপারে একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করতে বলা হয়েছে। জাহাজের মারিকের নাম মো. আসিফ শোভন বলে জানান তিনি।

শরণখোলা রেঞ্জের সহকারী বনসংরক্ষক (এসিএফ) মো. কামাল উদ্দিন আহমেদ গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার সময় জানান, ভারত থেকে সিমেন্ট তৈরীর কাচামাল (ফ্লাইঅ্যাশ) বোঝাই করে জাহাজটি সুন্দরবনের এই রুট হয়ে ঢাকার মুক্তাপুরে যাচ্ছিল। ১ ডিসেম্বর রাত ১১টার দিকে শরণখোলা রেঞ্জ অফিসের নিকটবর্তী মরাভোলা এলাকা অতিক্রমকালে ঘন কুয়াশায় দিক হারিয়ে জাহাজটি চরে উঠে যায়। বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। জাহাজটি তাদের নজরদারিতে রয়েছে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts